বাংলা ভাগের চক্রান্তকে দমন করতে প্রশাসনকে কড়া হওয়ার নির্দেশ মুখ্যমন্ত্রীর

বাংলা ভাগের চক্রান্তকে দমন করতে প্রশাসনকে কড়া হওয়ার নির্দেশ মুখ্যমন্ত্রীর
বাংলা ভাগের চক্রান্তকে দমন করতে প্রশাসনকে কড়া হওয়ার নির্দেশ মুখ্যমন্ত্রীর

উত্তরবঙ্গকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল করার দাবি তুলেছে বিজেপি। কিন্তু বাংলাকে ভাগ হতে দেবেন না বলে আগেই হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই মর্মে উত্তরবঙ্গের জেলাশাসকদের নির্দেশ দিলেন তিনি। এলাকায় কোথাও কোন রকম অপ্রীতিকর পরিস্থিতির তাদের চোখে পড়লে তৎক্ষণাৎ ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

এদিন কোভিড পরিস্থিতি নিয়ে সমস্ত জেলার জেলাশাসক ও পুলিশ সুপারদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্স করেন মুখ্যমন্ত্রী। সূত্রের খবর, সেখানেই তিনি উত্তরবঙ্গের জেলাগুলির প্রশাসনকে বলেন, রাজ্য ভাগের চক্রান্তের বিষয়ে সজাগ থাকতে। অপ্রীতিকর কিছু দেখলেই যেন কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

বিজেপি বঙ্গভঙ্গের দাবি তুললেও দলের একাংশের মতে তারা এই সিদ্ধান্তকে মেনে নিচ্ছেন না বলে জানিয়েছেন। কিন্তু এই সবকিছুর মধ্যেই মুখ্যমন্ত্রী স্পষ্টই ফের একবার বুঝিয়ে দিলেন বাংলাকে কোনোভাবেই ভাগ করা যাবে না। বিচ্ছিন্নতাবাদ মাথা তুলে দাঁড়াতে চাইলেই তাকে করা হাতে দমন করবে প্রশাসন। উত্তরবঙ্গের জেলা প্রশাসনের সঙ্গে বৈঠক করে কার্যত এমনটাই ইঙ্গিত দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

পৃথক উত্তরবঙ্গ রাজ্য বা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের দাবি তুলে সরব হয়েছেন আলিপুরদুয়ারের বিজেপি সাংসদ জন বার্লা। আলিপুরদয়ারের এই বিজেপি সাংসদ কয়েকদিন আগেই তৃণমূলের বিরুদ্ধে উত্তরবঙ্গে সন্ত্রাস, মানুষের প্রতি বঞ্চনার অভিযোগ আনেন। এরপরই উত্তরবঙ্গকে পৃথক রাজ্য বা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল ঘোষণার দাবি জানিয়েছিলেন তিনি।

তাঁর এই দাবিকে যেমন দলের অনেকেই সমর্থন করেছে তেমনই বিজেপি সাংসদের এই দাবিতে আপত্তিও রয়েছে দলের একাংশের। সুরেই সুর মিলিয়ে পৃথক রাজ্যের দাবি তুলেছেন বিষ্ণুপুরের বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ। তাদের সমর্থনে গলা চড়িয়েছেন কোচবিহারের বিজেপি সাংসদ নিশীথ প্রামাণিকও। জন বার্লার পাশে দাঁড়িয়ে গোর্খাল্যান্ড-এর দাবি তোলেন দার্জিলিংয়ের বিজেপি সাংসদ রাজু বিস্তও।

তবে রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ অবশ্য ঘুরিয়ে কান ধরেছেন। তাঁর কথায়, “বঙ্গভঙ্গের দাবি কেউ করেনি। কিন্তু স্বাধীনকার পর থেকেই উত্তরবঙ্গ এবং জঙ্গলমহল বঞ্চিত। সেই কারণে ওই এলাকার মানুষ স্বাধীনতা, মুক্তির জন্য বিরোধী দলকে ভোট দিচ্ছে। রাজ্য সরকার সেখানকার মানুষের উন্নয়নে কাজ করুক, তাঁদের অধিকার ফিরিয়ে দিক। মানুষের যে সরকারের উপরে বিশ্বাস নেই তা স্পষ্ট”।

এদিকে উত্তরবঙ্গকে বাংলা থেকে বিচ্ছিন্ন করে পৃথক রাজ্য ঘোষণা করার দাবির বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। বার্লার বিরুদ্ধে রবিবার রাতে দিনহাটা থানায় অভিযোগ দায়ের করেন কোচবিহার জেলা যুব তৃণমূলের সহ-সভাপতি জাকীরিয়া হোসেন। এবার বঙ্গভঙ্গের উস্কানি দেওয়ার অভিযোগে বিজেপি সংসদের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেয় তৃণমূল।