পুজো উদ্বোধনের ফাঁকে বৃদ্ধাশ্রমে ঢুঁ মারলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

পুজো উদ্বোধনের ফাঁকে বৃদ্ধাশ্রমে ঢুঁ মারলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়
পুজো উদ্বোধনের ফাঁকে বৃদ্ধাশ্রমে ঢুঁ মারলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

পঞ্চমীর বিকেলে একগুচ্ছ পুজো উদ্বোধনের ফাঁকে এক বৃদ্ধাশ্রমে ঢুঁ মারলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন চেতলার নবনীড় বৃদ্ধাশ্রমে গিয়ে সেখানকার আবাসিকদের সঙ্গে বেশ কিছুক্ষন সময় কাটান মুখ্যমন্ত্রী। একইসঙ্গে আশ্বাস দেন তাঁদের সবরকম সাহায্য করার।

রবিবারও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কলকাতার পাশাপাশি ভার্চুয়াল মাধ্যমে রাজ্যের ২০ জেলার মোট ২৩৭টি পুজোর সূচনা করেন। এদিন আলিপুর বডিগার্ড লাইনে এক অনুষ্ঠানে যোগ দেন। সেখান থেকেই তিনি রিমোর্ট কন্ট্রোলের মাধ্যমে রাজ্যের ২৩৭টি পুজোর উদ্বোধন করলেন এদিন। এরমধ্যে পশ্চিম বর্ধমান জেলার আসানসোলের তিনটি ও দূর্গাপুরের দুটো পুজোর উদ্বোধন করেন মমতা। অপরদিকে রবিবার দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার দশটি ক্লাবের পুজোও উদ্বোধন করেন।

পুজো উদ্বোধনের ফাঁকে বৃদ্ধাশ্রমে ঢুঁ মারলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

এই উদ্বোধনের ফাঁকেই এদিন আচমকাই হাজির হয়ে যান চেতলার নবনীড় বৃদ্ধাশ্রমে। এদিন মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন মন্ত্রী ইন্দ্রনীল সেন এবং ফিরহাদ হাকিম।প্রবীন নাগরিকদের সুখ-দুঃখের কথা শোনেন এবং তাঁদের সবরকম সাহায্যের আশ্বাস দেন।

নবনীড় বৃদ্ধাশ্রমের আবাসিকরা

অন্যদিকে, পুজোর সময়ে হঠাৎ করেই মুখ্যমন্ত্রীকে এত কাছে পেয়ে খুশি প্রবীন আবাসিকরাও। তাঁরা জানাচ্ছেন, সারা বছরই এই বৃদ্ধাশ্রমের আবাসিকদের খোঁজখবর নেন মুখ্যমন্ত্রী। তবে পঞ্চমীর বিকেলে তাঁকে কাছে পাওয়া উপরি পাওনা তাঁদের জন্য।