চিনাদের রুখতে গিয়ে শহীদ হয়েছিলেন, মরনোত্তর মহাবীর চক্রে ভূষিত হলেন কর্ণেল সন্তোষ বাবু

চিনাদের রুখতে গিয়ে শহীদ হয়েছিলেন, মরনোত্তর মহাবীর চক্রে ভূষিত হলেন কর্ণেল সন্তোষ বাবু
চিনাদের রুখতে গিয়ে শহীদ হয়েছিলেন, মরনোত্তর মহাবীর চক্রে ভূষিত হলেন কর্ণেল সন্তোষ বাবু

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ লাদাখের গালওয়ান ভ্যালিতে চিন সেনাদের রুখতে গিয়ে শহিদ হয়েছিলেন তিনি। দেশের জন্য নিজের প্রাণ উৎসর্গ করেছিলেন ভারতের এই বীর সেনা জওয়ান। একবার নিজের কথা ভাবেননি কর্নেল সন্তোষ বাবু। তাঁর বীরত্বকে কুর্নিশ জানিয়ে তাঁকে মরণোত্তর মহাবীর চক্র সম্মানে ভূষিত করা হল। এরই সঙ্গে কর্নেল সন্তসের সঙ্গে চিনা ফৌজের বিরুদ্ধে অপারেশন স্নো লেপার্ডে অংশগ্রহণ করে নিহত বাকি চার সেনা জওয়ানকে বীর চক্র উপাধি দেওয়া হয়েছে।

হায়দরবাদের থেকে প্রায় ১৪০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত সুপায়েতে জন্মগ্রহণ করেছিলেন কর্নেল সন্তোষ বাবু। তিনি ১৬ তম বিহার রেজিমেন্টের কমান্ডিং অফিসার ছিলেন। গত বছরই গালওয়ান উপত্যকায় চিনা সেনার সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে ভারতীয় সেনা জওয়ানরা। তারপর থেকে পূর্ব লাদাখ সীমান্তে দুই দেশের মধ্য উত্তেজনা বেড়েছিল।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গালওয়ান উপত্যকায় ভারত ও চিনের মধ্যে ৪৫ বছরে প্রথমবার এমন সংঘর্ষ হয়েছিল। এই সংঘর্ষের পর প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা ক্রমেই বাড়তে শুরু করে। এই সংঘর্ষে সন্তোষ বাবু-সহ মোট ২০ জন ভারতীয় সেনা শহীদ হয়েছিলেন। দীর্ঘ ৭ ঘণ্টা দুই দেশের সেনাদের মধ্যে লাগাতার সংঘর্ষ চলতে থাকে। এই সংঘর্ষে সেনার পক্ষ থেকে ৬০০ জনের বাহিনী অংশগ্রহণ করেছিল বলেই জানা গিয়েছিল। এই সংঘর্ষের পরই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী মোদী লাদাখ সফরে গিয়েছিলেন। সেখানে গিয়েই তিনি সেনাদের বীরত্বের ভূয়সী প্রশংসা করেছিলেন।