ফের বাড়ছে সংক্রমণ, ভোটকেন্দ্রে সতর্ক থাকার একাধিক নির্দেশ কমিশনের

ফের বাড়ছে সংক্রমণ, ভোটকেন্দ্রে সতর্ক থাকার একাধিক নির্দেশ কমিশনের
ফের বাড়ছে সংক্রমণ, ভোটকেন্দ্রে সতর্ক থাকার একাধিক নির্দেশ কমিশনের

ফের চোখ রাঙাচ্ছে করো না। এরমধ্যেই আগামীকাল থেকে শুরু হতে চলেছে একুশের নির্বাচন। তাই এই অবস্থা কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশনের করণা সুরক্ষার গুরুত্বপূর্ণ নিয়মগুলো মানার উপর নজর রাখা হচ্ছে।

নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ অনুযায়ী, এবারে করণা সংক্রমিত এবং করণা সন্দেহভাজনদের জন্য পোস্টাল ব্যালটে ভোট গ্রহণ করা হবে। পাশাপাশি ভোট কর্মীদের পিপিই কিট, ফেস শিল্ড ব্যবহার করতে হবে। যাদের দেহের তাপমাত্রা 104 ডিগ্রি ফারেনহাইট বা তার বেশি হবে তাদের বিকেল পাঁচটা থেকে ছয়টার মধ্যে ভোট নেওয়া হবে।

অন্যদিকে ছড়ানো জায়গায় লাইন এবং খোলামেলা ভোট কেন্দ্র, দূরত্ব বিধি মেনে লাইনে দাঁড়ানো মাস্কের ব্যবহার, স্যানিটাইজারের ব্যবহার লাইন ব্যবস্থাপনায় টোকেনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। পাশাপাশি আশা কর্মীরা ভোটদাতাদের ডান হাতের গ্লাভস দেবেন। ওই গ্লাভস পরেই হবে ভোট দান। এরপর সে ক্লাস ফেলতে হবে নির্দিষ্ট পাত্রে। এই সকল বিষয়ের উপর সজাগ দৃষ্টি দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

সম্প্রতি রাজ্যের বিভিন্ন জেলার জেলাশাসক দের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্স করেছেন মুখ্য সচিব।সেখানেও করণা সংক্রান্ত স্বাস্থ্য বিধি মানার একাধিক নির্দেশিকা এবং পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। মুখ্য সচিব জানিয়েছেন, “করণা বাড়ছে আপনারা সতর্ক থাকুন। কিছু জেলাতে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা তাই ভোট গ্রহণ শুরু হওয়ার সময় সতর্ক হওয়া প্রয়োজন।” ঝাড়গ্রাম পুরুলিয়া বাঁকুড়া পশ্চিম মেদিনীপুর সহ একাধিক সীমান্তবর্তী এলাকায় বিশেষভাবে নজর দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়।

কিন্তু গোটা দেশের পাশাপাশি যেভাবে রাজ্যে করোনা পরিস্থিতি অবস্থার অবনতি হচ্ছে তাদের নির্বাচনের পর আক্রান্তের সংখ্যা কতটা বাড়ে তা চিন্তার ভাঁজ ফেলছে প্রশাসনের কপালে।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.