এবার কি তবে তৃণমূলে কীর্তি আজাদ? জল্পনা তুঙ্গে

এবার কি তবে তৃণমূলে কীর্তি আজাদ? জল্পনা তুঙ্গে
এবার কি তবে তৃণমূলে কীর্তি আজাদ? জল্পনা তুঙ্গে / ছবি সৌজন্যে- Facebook @AzaadKirti

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ একুশের বিধানসভা নির্বাচনের পর থেকেই বিরোধী রাজনৈতিক দল থেকে একের পর এক রাজনৈতিক দল থেকে নেতা-কর্মীরা তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিয়েছেন। এখনও সেই ধারা বর্তমান রয়েছে। অথচ নির্বাচনের আগে অনেকেই তৃণমূল ছেড়ে অন্য দলে বিশেষ করে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন। দল ছাড়ার তালিকায় নেতা- মন্ত্রী থেকে সাধারণ কর্মী অনেকেই ছিলেন। কিন্তু নির্বাচনে তৃণমূলের জয়ের পরেই চিত্রটা ফের বদলে যায়।

এবার রাজনীতির অন্দরে জোর জল্পনা উঠেছে, তৃণমূলে যোগ দিতে পারেন কংগ্রেস নেতা কীর্তি আজাদ। এক সর্ব ভারতীয় সংবাদ সংস্থা সূত্রে খবর, আজ অর্থাৎ মঙ্গলবারই দিল্লিতে তৃণমূলে যোগ দিতে পারেন বিহারের এই কংগ্রেস নেতা। ২০১৪-র লোকসভা ভোটে বিহারের কর্মীরা(Bihar) দ্বারভাঙা (Darvanga) থেকে জিতেছিলেন কীর্তি। দ্বারভাঙ্গা থেকেই তিনবার সাংসদ হয়েছেন। ২০১৪ সালে তিনি বিজেপির টিকিটে লড়াই করেছিলেন।

১৯৮৩ সালের বিশ্বকাপ জয়ী প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার কীর্তি। ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে লোকসভা ভোটের ঠিক আগে বিজেপি ছেড়ে কংগ্রেসে যোগ দিয়েছিলেন। সূত্রের খবর, মঙ্গলবার নয়াদিল্লিতে এবার কংগ্রেস ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিতে চলেছেন তিনি।

এদিকে, উল্লেখ্যযোগ্য বিষয় হল, তৃণমূল নেত্রীও ঘটনাচক্রে দিল্লিতে। বুধবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে বৈঠক করে বৃহস্পতিবার রাজ্যে ফেরার কথা তাঁর। সূত্রের খবর, প্রাক্তন বিজেপি সাংসদ এবং কংগ্রেস নেতার তৃণমূলে যোগদান অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন মমতা। ত্রিপুরায় রাজনৈতিক টানাপোড়েনের আবহে দিল্লি সফরে গিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রধানমন্ত্রীর সম্মুখে বেশ কিছু বিষয় তুলে ধরবেন তিনি। এর মধ্যে যেমন ত্রিপুররার সাম্প্রতিক বিষয় রয়েছে, তেমনই রয়েছে সীমান্তে বিএসএফ এর ক্ষমতা বৃদ্ধি।

সোমবার দিল্লি যাওয়ার আগে ত্রিপুরার হিংসা নিয়ে বিজেপিকে একহাত নেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি অভিযোগের সুরে বলেন, ‘বিজেপি শাসিত রাজ্যগুলির গণতন্ত্রের কঙ্কাল বেরিয়ে পড়ছে। অত্যাচারের পর অত্যাচার চলছে। গুন্ডারা আর্মস নিয়ে পুলিসের সামনে রাস্তায় ঘুরছে। নির্বাচনের নামে ত্রিপুরায় প্রহসন চলছে। তারপরেও আমাদের কর্মীরা কাজ করছেন। মানুষ এর জবাব দেবে।’ একই সঙ্গে তাঁর প্রশ্ন, ‘এখন মানবাধিকার কমিশন কোথায় গেল?’

উল্লেখ্য, চলতি মাসের শেষেই ত্রিপুরায় রয়েছে পুরোভোট। তাঁর আগেই বিজেপি এবং তৃণমূলের দ্বন্দ্বে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে ত্রিপুরা। ত্রিপুরায় তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের উপর হামলা ও গ্রেফতারির বিষয়টি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে জানাবেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সোমবার দিল্লি যাওয়ার আগে সেই কথাই জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী নিজেই। এর পাশাপাশি তিনি বলেন, ‘ত্রিপুরায় বারবার তৃণমূল কংগ্রেস আক্রান্ত হচ্ছে। সায়নীর মতো শিল্পীকেও ছাড়ল না। থানাতেও হামলা চালিয়েছে বিজেপি। আমার সঙ্গে ফোনে কথা হয়েছে।’