রাফালে ইস্যুতে ফের সরব রাহুল গান্ধী, কংগ্রেস নেতার বেনজির আক্রমণের মুখে মোদী!

রাফালে ইস্যুতে ফের সরব রাহুল গান্ধী, কংগ্রেস নেতার বেনজির আক্রমণের মুখে মোদী!
রাফালে ইস্যুতে ফের সরব রাহুল গান্ধী, কংগ্রেস নেতার বেনজির আক্রমণের মুখে মোদী!

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ ২০২২-এ আছে যোগীরাজ্য উত্তরপ্রদেশে নির্বাচন। এরপরই রয়েছে ২০২৪-এ লোকসভা ভোট। তার আগে ফের একবার রাফালে ইস্যুতে কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে সরব হলেন, কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী। রাফালে চুক্তিতে দুর্নীতির অভিযোগকে হাতিয়ার করে, ফের একবার সরকারের উপর চাপ বাড়ানোর চেষ্টা বিরোধীদের। আর সেই লক্ষ্যেই রবিবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে বেনজিরভাবে আক্রমণ করলেন, কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী। রবিবার সকালে রাহুল গান্ধীকে এই বিষয়ে টুইট করতে দেখা গেল। অবশ্য তাঁর টুইটের পালটা জবাব দিয়েছেন, বিজেপির আইটি সেলের প্রধান অমিত মালব্যও।

মূলত রাফালে যুদ্ধবিমান নির্মাণকারী সংস্থা দ্যাঁসল্ট অ্যাভিয়েশনের বিরুদ্ধে চুক্তির মধ্যস্থতাকারীকে ‘উপহার’ দেওয়ার অভিযোগ তুলেছে ফ্রান্সের একটি সংবাদমাধ্যম। তাদের সেই অভিযোগের ভিত্তিতে বেশ কিছু নথিও প্রকাশ করে তারা। এরপরেই এই বিষয়ে নড়েচড়ে বসে ফ্রান্স প্রশাসন। বিচারবিভাগীয় তদন্তের নির্দেশও ইতিমধ্যেই দিয়েছে ফ্রান্স সরকার। চুক্তির তদন্ত করতে এক বিচারককে নিয়োগ করেছে ফরাসি আইনবিভাগ। এরপরই নতুন করে রাফা্লে চুক্তিতে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে, কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে সরব হয়েছে বিরোধীরাও।

উল্লেখ্য, শনিবারই এই ইস্যুতে যৌথ সংসদীয় কমিটিকে দিয়ে তদন্তের দাবি তোলে কংগ্রেস। সেই সূত্রেই রবিবার রাহুল গান্ধী নাম না করে সরাসরি প্রধানমন্ত্রীকে আক্রমণ করলেন। এদিন সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ছবি পোস্ট করেন কংগ্রেস নেতা। প্রধানমন্ত্রীর মুখের একটি অর্ধেক ছবি শেয়ার করে, সেখানে হিন্দিতে ক্যাপশনে লেখা, ‘চোর কি দাড়ি’, যার বাংলা তর্জমা করলে দাঁড়ায়, ‘চোরের দাড়ি’। ছবিতে রাফালে বিমানকেও দেখা গিয়েছে। যা থেকে পরিষ্কার, রাফালে চুক্তিকে কেন্দ্র করেই ফের তিনি প্রধানমন্ত্রীকে নিশানা করেছেন।

দুর্নীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে গিয়ে, এভাবে ব্যক্তিগত স্তরে আক্রমণ করায়, সরব হয়েছে বিজেপিও। কংগ্রেস নেতার এই টুইট ঘিরেই এখন রাজনৈতিক তরজা তুঙ্গে। তবে, থেমে থাকেনি বিজেপিও। কংগ্রেস নেতার পাল্টা আক্রমণ করেছে বিজেপিও। বিজেপির আইটি সেলের প্রধান অমিত মালব্য টুইট করে লেখেন যে, ‘২০১৯-এর লড়াইয়ে একগুচ্ছ নিকৃষ্ট কটূক্তি করার পর, এবার তাঁর আক্রমণের স্তর আরও নিচে নামিয়েছেন রাহুল গান্ধী। দেশবাসী তাঁকে ইতিমধ্যেই প্রত্যাখান করেছে, তবে ২০২৪-এর লড়াইয়ে তাঁকে স্বাগত।’

এদিকে চলতি মাসের ১৯ তারিখ থেকে শুরু হচ্ছে সংসদের বাদল অধিবেশন। আর রাজনৈতিক মহলের জোর গুঞ্জন, আসন্ন বাদল অধিবেশনে এই রাফাল ইস্যুকে কেন্দ্র করে সংসদে সরব হবেন বিরোধীরা। এই বিষয়কে কেন্দ্র করে সরকারকে অস্বস্তিতে ফেলবে বিরোধীরা তেমনটাই মনে করা হচ্ছে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, সম্প্রতি ফের একবার আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে এই রাফালে চুক্তি। ভারত এবং ফ্রান্সের দ্যাঁসল্ট অ্যাভিয়েশনের মধ্যে ৫৯ হাজার কোটি টাকার রাফালে যুদ্ধবিমান কেনার চুক্তিতে দুর্নীতি এবং পক্ষপাতিত্বের অভিযোগে সরগরম রাজনীতি। কংগ্রেসের পক্ষ থেকে শুরু থেকেই অভিযোগ করা হয়েছে যে, ইউপিএ আমলে যে অঙ্কে বিমান কেনার কথা হয়েছিল, তার থেকে অনেক বেশি মূল্যে ৩৬টি রাফালে বিমান ক্রয় করেছিল মোদি সরকার। বিরোধীদের দাবি, বর্তমান সরকারের তত্ত্বাবধানে ভারত এক-একটি যুদ্ধবিমান কিনেছে ১,৬৭০ কোটি টাকা করে। এদিকে ইউপিএ সরকারের আমলে ৫২৬ কোটি টাকায় প্রাথমিক বিডে দাম উঠেছিল। মানে, প্রায় তিনগুণ দামে ওই বিমান কিনেছে বিজেপি সরকার। ২০১৬ সালে ওই চুক্তি হয়। সেই সঙ্গে বিরোধীদের আরও অভিযোগ ছিল, অনিল আম্বানির সংস্থাকে বরাত পাইয়ে দিয়ে, স্বজনপোষণ করেছিল কেন্দ্রের বিজেপি সরকার। এখন এটাই দেখার যে, বিরোধীদের এই আক্রমণ কোন কৌশলে মোকাবিলা করবে কেন্দ্রের মোদী সরকার।