বুধবার, ১৮ মে, ২০২২

করোনার আক্রান্ত হলে রক্ষে নেই! থাকতে হবে ‘বাক্সবন্দি’ ঘরে! ফের বিতর্কে চিন

১০:৪৮ এএম, জানুয়ারি ১৪, ২০২২

করোনার আক্রান্ত হলে রক্ষে নেই! থাকতে হবে ‘বাক্সবন্দি’ ঘরে! ফের বিতর্কে চিন

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ সর্বপ্রথম চিন থেকেই অন্যান্য দেশে ছড়িয়েছিল করোনা। সেই সময় কম বিতর্ক হয়নি। আবার একবার চিনে দেখা দিয়েছে করোনা। চিনের বেশকিছু শহরে নত্রুন করে মাথাচাড়া দিয়েছে করোনা সংক্রমণ।

করোনা সংক্রমণ বাড়তেই ফের একবার লকডাউনের পথে হেঁটেছে চিন। চিনে আগেও করোনাকে নিয়ে নিয়মের কড়াকড়ি ছিলই। কিন্তু এবার সংক্রমণ ধরা পড়তে আরও ভয়ঙ্কর দৃশ্য ধরা পড়ল সেই দেশে। যারা করোনা আক্রান্ত হয়েছেন বলে মনে করা হচ্ছে, তাঁদের বাড়ির প্রবেশ পথ আটকে দেওয়া হচ্ছে, গোটা এলাকায় একজনেরও রিপোর্ট পজেটিভ এলেই তাঁদের ‘বাক্সবন্দি’ করার মতো ভয়ঙ্কর দৃশ্য ধরা পড়েছে চিনে।

https://twitter.com/songpinganq/status/1480157037681995779

এককথায় সিনেমার কোনও দৃশ্যের থেকে কম নয়, চিনের সংক্রমণের মোকাবিলায় এই কড়াকড়ির চিত্র। ইতিমধ্যেই বাক্সবন্দির এই চিত্র ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। আর এই ভিডিও সামনে আসতেই নতুন করে শুরু হয়েছে বিতর্ক। এমনিতেই অস্থায়ী কোয়ারেন্টাইন সেন্টারগুলির সামনে বাসের লম্বা লাইন, ভিতরে বসে রয়েছে হাজার হাজার মানুষ। চিনের জিরো কোভিড নীতি অনুযায়ী, একজনও করোনা আক্রান্ত হলে, গোটা শহরেরই বাসিন্দাদের যেমন করোনা পরীক্ষা করানো হচ্ছে, তেমনই আবার একজনের রিপোর্ট পজেটিভ এলেই, বাকি এলাকার সমস্ত বাসিন্দাদের ধাতব বাক্সে বন্দি করে রাখা হচ্ছে বাকিদের মধ্যে সংক্রমণ ছড়ানো থেকে আটকাতে।

https://twitter.com/songpinganq/status/1480889415572484096

আক্রান্তদের জন্য নাকি ‘ধাতব বাক্স’ বানানো হয়েছে। এই ধাতব বাক্সে নাকি  আইসোলেশনে থাকবেন করোনা আক্রান্তরা। ভাইরাল ভিডিয়োতে দেখা যাচ্ছে, কোভিড সংক্রামিত ব্যক্তিদের বা তাঁদের সংস্পর্শে আসা সবাইকেই ওই 'ধাতব বাক্সে' ঢুকিয়ে দেওয়া হচ্ছে। যাতে কোনওভাবে তাঁদের থেকে আর সংক্রমণ ছড়াতে না পারে।

জানা গিয়েছে, এই ধাতব বাক্সের মধ্যে রয়েছে একটা খাট, জলের বোতল ও শৌচাগার। অভিযোগ, শিশু থেকে শুরু করে বয়স্ক, এমনকি গর্ভবতী মহিলাদেরও নয়া আইসোলেশন ব্যবস্থায় ২ সপ্তাহের জন্য রেখে দেওয়া হচ্ছে। কেউ থাকতে না চাইলে, তাকে জোর করে রাখা হচ্ছে। এই সব নিয়েই বিতর্ক দানা বেঁধেছে।

উল্লেখ্য, আগামী মাসেই বেজিংয়ে রয়েছে উইন্টার অলিম্পিকস। কিন্তু বিশ্বজুড়েই যে হারে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাচ্ছে, তার জেরে অলিম্পিকের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। অনেকের মতে, অলিম্পিকের আগে দেশে যাতে সংক্রমণ বৃদ্ধি না পায়, তার জন্যই এই কঠোর কোয়ারেন্টাইন নীতি চালু করেছে চিন, সেই জন্যই করোনা আক্রান্ত লক্ষাধিক মানুষকে কার্যত বাক্সবন্দি করে রাখা হচ্ছে।

অন্যদিকে, স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের তথ্য অনুযায়ী, চিনে বর্তমানে ২ কোটিরও বেশি মানুষ গৃহবন্ধি রয়েছেন। তাঁদের খাবার কেনার জন্যও বাড়ি থেকে বেরোনোর উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। সোমবার চিনের হেনান প্রদেশে আনিয়াং-এ লকডাউন জারি করা হয়েছে। এছাড়া তিয়ানজিং, জিয়ং ও ইউঝাউতেও আগেই লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছিল।