ফের চোখ রাঙাচ্ছে করোনা! একদিনে দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১ লক্ষের গণ্ডি পার করল!

ফের চোখ রাঙাচ্ছে করোনা! একদিনে দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১ লক্ষের গণ্ডি পার করল!
ফের চোখ রাঙাচ্ছে করোনা! একদিনে দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১ লক্ষের গণ্ডি পার করল! / প্রতীকী ছবি

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ প্রতিদিন আরও ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছে করোনা ভাইরাস। প্রতিদিন ঝড়ের গতিতে বাড়ছে সংক্রমণের হার। দেশজুড়ে বেড়েই চলেছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। করোনার দ্বিতীয় ঢেউ সামাল দিতে দেশের বিভিন্ন রাজ্যের অবস্থা খুবই শোচনীয়। প্রতিদিনই আক্রান্তের সংখ্যার নিরিখে রেকর্ড তৈরি করেছে ভারত। এর পাশাপাশি বেড়েছে মৃত্যুর সংখ্যাও। করোনা আক্রান্তের সংখ্যার নিরিখে বিশ্ব আক্রান্তের সংখ্যার নিরিখে তৃতীয় স্থানে রয়েছে ভারত।

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ১ লক্ষ ৩ হাজার ৮৪৪ জন। এই প্রথম দেশে করোনা আক্রান্তের দৈনিক সংখ্যা ১ লক্ষের গণ্ডি পার করল। ২০২০ সালের রেকর্ড ভাঙল এই সংখ্যা। গত বছর দেশে ১৭ সেপ্টেম্বর সর্বাধিক করোনা সংক্রমণ দেখা গিয়েছিল, সেই সময় একদিনে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ৯৮,৭৯৫। আমেরিকার পর ভারত এখন দ্বিতীয় দেশ যেখানে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা ১ লক্ষ পার করেছে। আমেরিকার তুলনায় বর্তমানে ভারতে অনেক বেশি দ্রুত গতিতে ছড়াচ্ছে করোনা ভাইরাস।

উল্লেখ্য, ভারতে করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হয়েছিল ৫২ দিন আগেই। গত বছরের তুলনায় এই বছরে করোনা ভাইরাস অনেক বেশি ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করেছে। এই মুহূর্তে দেশের করোনা পরিস্থিতি এতোটাই ভয়ঙ্কর যে, গত বছরের তুলনায় করোনা সংক্রমণের হার ৭ গুণ বেশি।

অন্যদিকে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ দেশের দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যাও অনেকটাই বাড়িয়ে দিয়েছে। ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ৪৮৭ জনের। অথচ মার্চের শুরুতেও দেশের দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা ছিল ১০০ থেকে ১৫০-এর মধ্যে। দেশে এখনও পর্যন্ত করোনায় মৃত্যু হয়েছে ১ লক্ষ ৬৫ হাজার ১০১ জনের। করোনা থেকে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১,১৬,৮২,১৩৬ জন। সক্রিয় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৭ লক্ষ ৮১ হাজার ৮৩০ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে করোনার নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৮ লক্ষ ৯৩ হাজার ৭৪৯। ফলে দেশে এখনও পর্যন্ত করোনার মোট নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ২৪ কোটি ৯০ লক্ষ ১৯ হাজার ৬৫৭। দেশে সুস্থতার হার ৯২.৮ শতাংশ। আর এখনও পর্যন্ত টিকাকারণ হয়েছে ৭ কোটি ৯১ লক্ষ ৫ হাজার ১৬৩ জনের।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, দেশের মধ্যে মহারাষ্ট্র, গুজরাত, পঞ্জাব এবং কর্ণাটকের করোনা পরিস্থিতি সবথেকে খারাপ। এখানে দৈনিক সংক্রমণের হারও সবথেকে বেশি। সরকারি হিসেবে মহারাষ্ট্রে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩০ লক্ষ ১০ হাজার ৫৯৭ আর মৃত্যু হয়েছে ৫৫,৮৭৮ জনের৷ গত ২৪ ঘণ্টায় মহারাষ্ট্রে নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৫৭,০৭৪ জন আর মৃত্যু হয়েছে ২২২ জনের।

এদিকে, মহারাষ্ট্রে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। সবথেকে খারাপ অবস্থা মুম্বইয়ের। আর এই জন্যই ফের একবার নতুন করে লকডাউনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে উদ্ধব ঠাকরের সরকার। জানানো হয়েছে, সপ্তাহের শেষ অর্থাৎ শুক্রবার রাত ৮টা থেকে সোমবার সকাল ৭টা পর্যন্ত জারি থাকবে লকডাউন। পাশাপাশি সোমবার থেকে গোটা রাজ্যে রাত ৮টা থেকে সকাল ৭টা পর্যন্ত নাইট কারফিউর কথাও ঘোষণা করা হয়েছে। যদিও এই সময় অত্যাবশকীয় পরিষেবা মিলবে। বলা হয়েছে, আগামী ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত এই নিয়ম চালু থাকবে। এছাড়া করোনা এই ভয়াবহ পরিস্থিতিতে বড় কোনও শুটিংয়েরও অনুমতি দেওয়া হচ্ছে না সরকারের পক্ষ থেকে।

কেরলে আক্রান্ত হয়েছেন ১১ লক্ষ ৩৫ হাজার ২৩৩ জন। মৃত্যু হয়েছে ৪,৬৬৮ জনের। গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছে ২,৮০২ জন। কর্ণাটকে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১০ লক্ষ ১৫ হাজার ১৫৫ আর মৃত্যু হয়েছে ১২,৬২৫ জনের। অন্ধ্রপ্রদেশে আক্রান্ত ৯ লক্ষ ৭ হাজার ৬৭৬ জন। মৃত্যু হয়েছে ৭,২৩৯ জনের।

এছাড়া তামিলনাড়ুতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৮ লক্ষ ৯৯ হাজার ৮০৭ আর মৃত্যু হয়েছে ১২,৭৭৮ জনের। দিল্লিতে সংক্রমিত হয়েছেন ৬ লক্ষ ৭৬ হাজার ৪১৪ জন। সেখানে মৃত্যু হয়েছে ১১,০৮১ জনের। উত্তরপ্রদেশে করোনায় আক্রান্ত ৬ লক্ষ ৩০ হাজার ০৫৯ জন। মৃত্যু হয়েছে ৮,৮৮১ জনের। দেশের মধ্যে অষ্টম স্থানে পশ্চিমবঙ্গ, এখানে আক্রান্তের সংখ্যা ৫,৯৩,৬১৫ জন, আর মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১০,৩৪৪। গত ২৪ ঘণ্টায় পঞ্জাবে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৩,০০৬ জন। মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা গিয়ে দাঁড়িয়েছে ২,৫১,৪৬০ আর মৃত্যু হয়েছে ৭,০৮৩ জনের।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.