সুখবর! কোভিশিল্ডের পর এবার দাম কমল কোভ্যাক্সিনেরও! কতো কমল?

সুখবর! কোভিশিল্ডের পর এবার দাম কমল কোভ্যাক্সিনেরও! কতো কমল?
সুখবর! কোভিশিল্ডের পর এবার দাম কমল কোভ্যাক্সিনেরও! কতো কমল?

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ দেশজুড়ে মারাত্মক আকার নিয়েছে মারণ করোনা। ঝড়ের গতিতে বাড়ছে সংক্রমণ। পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যাও। এই পরিস্থিতিতে আরও বেশি করে টিকাকরণের উপর জোর দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। তাঁদের মতে বেশি সংখ্যায় টিকাকরণ হবে, ততোই তাড়াতাড়ি রোখা সম্ভব হবে এই করোনার সংক্রমণ।

এদিকে গত কয়েকদিন ধরেই কোভিশিল্ডের দাম নিয়ে প্রবল বিতর্ক দেখা দিয়েছিল। বিভিন্ন মহল থেকে প্রশ্ন তোলা হয়েছিল, কেন কেন্দ্র এবং রাজ্য একই দামে এই ভ্যাকসিন পাবে না। এরপর বুধবার করোনা টিকা কোভিশিল্ডের দাম কমানোর কথা ঘোষণা করেছিলেন সেরাম কর্তা।

এবার একই পথে হেঁটে সেরামের পর করোনা টিকার দাম কমাল ভারত বায়োটেকও। করোনা সংক্রমণ রুখতে গণ টিকাকরণের ঘোষণা করেছেন। এই পরিস্থিতিতে বিরোধীরা থেকে শুরু করে বিভিন্ন মহল থেকেই এমনকি আদালতের পক্ষ থেকে এই জাতীয় সংকটে করোনা টিকার দামে বৈষম্য নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়। এই দুই সংস্থার কাছেই কেন্দ্রের তরফে দাম কমানোর আর্জি জানানো হয়। তারপরই টিকার দাম নিয়ে পুর্নবিবেচনার পর, সেরামের পর দাম কমাল ভারত বায়োটেক। রাজ্যগুলিকে আরও কম দামে টিকা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে সংস্থার তরফে।

ভারত বায়োটেকের পক্ষ থেকে এদিন জানানো হয়েছে যে, টিকার দামে কাটছাঁট করা হয়েছে। রাজ্যগুলির থেকে কোভ্যাক্সিনের প্রতিটি ডোজের দাম হিসেবে ৪০০ টাকা নেবে ভারত বায়োটেক। পূর্বের দাম অনুযায়ী, কোভ্যাক্সিনের প্রতিটি ডোজ পেতে রাজ্যকে খরচ করতে হত ৬০০ টাকা। তবে বেসরকারি হাসপাতাল ও কেন্দ্রের ক্ষেত্রে টিকার দামে কোনও পরিবর্তন করেনি ভারত বায়োটেক।

গত শনিবারই ভারত বায়োটেক সংস্থার পক্ষ থেকে বিবৃতি জারি করে জানানো হয়, কেন্দ্রীয় সরকারকে ১৫০ টাকায় কোভ্যাক্সিনের ডোজ সরবরাহ করা হবে। বেসরকারি হাসপাতালগুলিকে এক একটি ভ্যাকসিন ডোজের জন্য খরচ করতে হবে ১২০০ টাকা। এই দামের ক্ষেত্রে কোনও পরিবর্তন করেনি সংস্থা। রাজ্য বেসরকারি হাসপাতালকে ৫০ শতাংশ টিকা দেবে ‘কোভ্যাক্সিন’ প্রস্তুতকারক ভারত বায়োটেক।

উল্লেখ্য, সেরাম সংস্থা তাঁদের করোনা ভ্যাকসিন সম্প্রতি বিজ্ঞপ্তি জারি করে ঘোষণা করেছিল যে, এবার থেকে রাজ্য সরকারগুলি এবং বেসরকারি হাসপাতাল সরাসরি সংস্থা থেকে টিকা কিনতে পারবে, এর জন্য আর কেন্দ্রের উপর নির্ভরশীল থাকতে হবে না। তবে এক্ষেত্রে দামের ফারাক রাখা হয়। বলা হয় যে, কেন্দ্র সরকার প্রতি ডোজ ১৫০ টাকায় পেলেও, রাজ্যগুলি প্রতি ডোজ ৪০০ এবং বেসরকারি হাসপাতালগুলি প্রতি ডোজ ৬০০ টাকায় পাবেন। এরপর বিরোধীদের পক্ষ থেকে এর বিরোধিতা করা হয়। বিরোধীদের পক্ষ থেকে দাবি তোলা হয় যে, ‘এক টিকা এক দাম’ এই নীতি গ্রহণ করতে হবে সেরাম ইনস্টিটিউটকে। চাপের মুখে পড়ে দাম কমানোর কথা ঘোষণা করে সেরাম কর্তা আদর পুনাওয়ালা।

বুধবার নিজেদের অবস্থান পরিবর্তন করেছে সেরাম। বুধবারই সংস্থার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে, রাজ্যের ক্ষেত্রেও টিকার দাম ২৫ শতাংশ কমাচ্ছে তারা। অর্থাৎ তা ৪০০ টাকা থেকে কমিয়ে করা হচ্ছে ৩০০ টাকা। যদিও বৈষম্য থেকেই যাচ্ছে এরপরেও। যদিও বেসরকারি হাসপাতালগুলির ক্ষেত্রে টিকা ডোজ প্রতি দাম একই রাখা হয়েছে। সেখানে দামের কোনও কাটছাঁট করা হয়নি।

উল্লেখ্য, আগামী ১ মে থেকে দেশব্যাপী ১৮ বছরের বেশি বয়সীদের করোনা টিকা দেওয়া হবে। গতকাল থেকেই শুরু হয়ে গেছে, নাম নথিভুক্তকরণের প্রক্রিয়া। টিকাকরণের জন্য রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া হবে অনলাইনেই। আরোগ্য সেতু অ্যাপ বা CoWIN ওয়েবসাইটে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। UMANG App- এর মাধ্যমেও রেজিস্ট্রেশন করা যাবে। শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী, একদিনের মধ্যে ১৮-৪৪ বছর বয়সী ২ কোটিরও বেশি মানুষ টিকা পেতে রেজিস্ট্রেশন করিয়ে ফেলেছেন।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.