ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার সময় অবশ্যই এই বিষয়গুলিতে সতর্ক থাকুন! নির্দেশ স্বাস্থ্যমন্ত্রকের

ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার সময় অবশ্যই এই বিষয়গুলিতে সতর্ক থাকুন! নির্দেশ স্বাস্থ্যমন্ত্রকের / প্রতীকী ছবি
ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার সময় অবশ্যই এই বিষয়গুলিতে সতর্ক থাকুন! নির্দেশ স্বাস্থ্যমন্ত্রকের / প্রতীকী ছবি

দেশজুড়ে করোনার সেকেন্ড ওয়েভ ছড়িয়ে পড়েছে ভালোমতোই। এরমধ্যেই টিকাকরণ প্রক্রিয়াও চালু রয়েছে। সম্প্রতি ঘোষণা করা হয়েছে, ১ এপ্রিল থেকে ৪৫ বছর বা তার ঊর্ধ্বে সকল ব্যক্তিই টিকা পাবেন। যদিও ইতিমধ্যেই অনেকের প্রথম ডোজের টিকা নেওয়া হয়ে গিয়েছে। এবার দ্বিতীয় ডোজের টিকা নেওয়ার আগেই গুরুত্বপূর্ণ কিছু ঘোষণা করেছে স্বাস্থ্যমন্ত্রক।

কোভিডের টিকার দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার আগে মূলত চারটি বিষয়ে কড়া সতর্ক থাকার নির্দেশ দিচ্ছে স্বাস্থ্য মন্ত্রক। সেগুলি যথাক্রমে, ১) কোন ধরনের ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে, ২) কত দিনের মধ্যে ফের নিতে হচ্ছে, ৩) ভ্যাকসিন নেওয়ার পর সার্টিফিকেট এবং ৪) ভ্যাকসিনের তারিখ। যে ভ্যাকসিনের ডোজ প্রথম বার নিয়েছিলেন, সেই একই ভ্যাকসিন দ্বিতীয় বার নেওয়া আবশ্যিক। ‘কোভিশিল্ড’ বা ‘কোভ্যাক্সিন’ এই দুইয়ের মধ্যে যে কোনও একটি ভ্যাকসিনের পরপর দুটি ডোজ নিতে হবে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রক থেকে এও জানানো হয়েছে, ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নেওয়ার পর প্রাপ্ত সার্টফিকেটে আপনার সমস্ত তথ্য সঠিকভাবে রয়েছে কিনা তাও দেখে নিতে হবে। সেই সঙ্গে ভ্যাকসিনের তারিখ অবশ্যই দেখে নেওয়া উচিত। ইতিমধ্যেই রাজ্যের সমস্ত মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ নিয়ে আলোচনা করার পর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্রমোদী জানিয়েছিলেন, যে ভ্যাকসিন আগে এসেছে বা যেগুলির বৈধতার শেষ দিন অন্যান্য গুলির থেকে আগে, সেই সমস্ত ভ্যাকসিনই আগে ব্যবহার করতে হবে। এতে ভ্যাকসিন নষ্টের হার কমবে।

পাশাপাশি স্বাস্থ্যমন্ত্রক এও জানিয়েছে, যেদিন ভ্যাকসিন নিচ্ছেন, তার ঠিক কতদিন পর দ্বিতীয় ডোজ নেবেন তাও খেয়াল রাখতে হবে। কোভ্যাকসিনের ক্ষেত্রে প্রথম ডোজের ২৮ দিনের মাথায় নিতে হবে দ্বিতীয় ডোজ। অন্যদিকে, কোভিশিল্ড ভ্যাকসিনের ক্ষেত্রে পূর্বে দুটি ডোজের মধ্যে ২৮ দিনের ব্যবধানের কথাই বলা হয়েছিল। তবে, বর্তমানে তা বাড়িয়ে ৬-৮ সপ্তাহ করা হয়েছে। অর্থাৎ, কোভিশিল্ডের প্রথম ডোজের ৮ সপ্তাহের মাথায় দ্বিতীয় ডোজ নেওয়া দরকার।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.