শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর, ২০২২

প্রেম বাকি মানসিক বিকৃতি! বারবার ফ্রিজ খুলে প্রেমিকা শ্রদ্ধার মুখ দেখত ‍‍`খুনি‍‍` আফতাব

মৌসুমী মোদক

প্রকাশিত: নভেম্বর ১৫, ২০২২, ০৬:৫৯ পিএম | আপডেট: নভেম্বর ১৫, ২০২২, ০৬:৫৯ পিএম

প্রেম বাকি মানসিক বিকৃতি! বারবার ফ্রিজ খুলে প্রেমিকা শ্রদ্ধার মুখ দেখত ‍‍`খুনি‍‍` আফতাব
প্রেম বাকি মানসিক বিকৃতি! বারবার ফ্রিজ খুলে প্রেমিকা শ্রদ্ধার মুখ দেখত ‍‍`খুনি‍‍` আফতাব

শ্রদ্ধা ওয়ালকার (Shraddha Walkar) খুনের তদন্তে নেমে ক্রমেই একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য পুলিশের হাতে। শ্রদ্ধার লিভ ইন পার্টনার আফতাব আমিন পুনাওয়ালার (Aftab Ameen Poonawala) ব্যবহারে রীতিমতো তাজ্জব তদন্তকারীরা। শ্রদ্ধা হত্যা মামলার তদন্তে দিল্লিতে আফতাবের ফ্ল্যাটে তল্লাশি পুলিশের। শুধু কী ফ্রিজ, সূত্রের খবর ধৃতের বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে একাধিক তথ্যপ্রমাণ মিলেছে বলে খবর! যে শ্রদ্ধাকে খুন করে তাঁর দেহ কেটে ছিলেন, সেখানেই থাকতেন আফতাব। সূত্রের খবর, জেরায় আফতাব জানিয়েছেন খুনের পর, নিয়মিত ফ্রিজ খুলে শ্রদ্ধার মুখ দেখত সে! আফতাব আমিন পুনাওয়ালার মানসিক স্থিতিও ভাবাচ্ছে তদন্তকারীদের

মেহরৌলির যে ফ্ল্যাটে আফতাব এবং শ্রদ্ধা থাকতেন সেখানে তল্লাশি চালায় পুলিশ। সূত্রের খবর, ওই ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার হয়েছে প্রচুর পরিমাণ রুম ফ্রেশনারের খালি কৌটো। খুনের পর ঘর সাফ করতে ভ্যাকুয়াম ক্লিনারও ব্যবহার করেছিল আফতাব। ঘর থেকে বেশ কিছু থার্মোকলও উদ্ধার হয়েছে বলে খবর। তবে খুনের পর দেহ খণ্ড করতে একটি ছোট করাত ব্যবহার করেছিল আফতাব। সেই অস্ত্র এখনও পর্যন্ত উদ্ধার করা যায়নি।

আফতাবের (Aftab Ameen Poonawala) ঘর থেকে হিটার এবং প্রচুর রেডি টু ইট নুডলসের প্যাকেও পাওয়া গিয়েছে বলে খবর। পুলিশ সূত্রে খবর, ফ্রিজ এবং ঘরে রক্তে ছিঁটেও মেলেনি। সম্ভবত রক্ত মোছার জন্য কোনও রাসায়নিক ব্যবহার করেছিল অভিযুক্ত। অনুমান তদন্তকারীদের। ইন্টারনেট রক্ত সাফ করার বিষয়ে জানতে সার্চ করেছিল অভিযুক্ত।

১১ মে শেষ বার সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছিলেন শ্রদ্ধা ওয়ালকার। মে মাসের পর বারবার শ্রদ্ধাকে ফোন করেও পাননি তাঁর বন্ধুরা। প্রশ্ন উঠছে কোথায় গেল শ্রদ্ধার মোবাইল ফোন। দেহাংশ, দেহ টুকরো করার অস্ত্রের মতো শ্রদ্ধার ফোনও খুঁজছেন তদন্তকারীরা। সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে দাবি, শ্রদ্ধার ফোনের শেষ লোকেশন মহারাষ্ট্রে (Maharashtra) পাওয়া গিয়েছে।

দিল্লি থেকে ফোন মহারাষ্ট্রে গেল কী করে? তা হলে কী ঘটনা ধামাচাপা দিতে মুম্বইতে গিয়েই শ্রদ্ধার ফোন ফেলে এসেছিল আফতাব? চলছে তদন্ত। মঙ্গলবার ধৃত আফতাবকে নিয়ে মেহেরৌলির জঙ্গলে তল্লাশি চালায় পুলিশ। জঙ্গল থেকে বেশ কিছু দেহাংশ মিলেছে। ওই দেহাংশ শ্রদ্ধা ওয়ালকারের কিনা জানতে তার ফরেনসিক এবং DNA পরীক্ষা করা হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ।