বড় নাশকতার ছক বানচাল দিল্লি পুলিশের স্পেশাল সেলের! গ্রেফতার ৬ জঙ্গি

বড় নাশকতার ছক বানচাল দিল্লি পুলিশের স্পেশাল সেলের! গ্রেফতার ৬ জঙ্গি
বড় নাশকতার ছক বানচাল দিল্লি পুলিশের স্পেশাল সেলের! গ্রেফতার ৬ জঙ্গি / প্রতীকী ছবি

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ উৎসবের মরশুমে বড় নাশকতার ছক বানচাল করল দিল্লি পুলিশের স্পেশাল সেল। জঙ্গিদমনে বড় সাফল্য পেল দিল্লি পুলিশ। মঙ্গলবার বিকেলে ৬ জঙ্গিকে হাতেনাতে গ্রেফতার করে দিল্লি পুলিশের স্পেশাল সেল। সূত্রের খবর, এই ৬ জনের মধ্যে ধৃত ২ জন সদ্য পাকিস্তান থেকে জঙ্গি প্রশিক্ষণ নিয়ে ফিরেছিল। পুলিশের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, উৎসবের মরশুমে নাশকতার ছক কষেছিল এই জঙ্গিরা।

নানা গোয়েন্দা সংস্থা মারফৎ খবর পেয়ে দিল্লি, রাজস্থান এবং উত্তরপ্রদেশ জুড়ে জঙ্গিদের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছিল পুলিশের স্পেশাল সেন। ৬ জঙ্গিকে গ্রেফতারির পর, ওই স্পেশাল সেলের সিনিয়র আধিকারিক নীরজ ঠাকুর সংবাদ মাধ্যমকে জানান যে, ধৃত ৬ জনের মধ্যে একজনকে রাজস্থানের কোটা থেকে, দু’জনকে দিল্লি থেকে এবং তিনজনকে উত্তরপ্রদেশ থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ধৃতদের নাম জিশান কামার ওরফে কামার জামান, ওসামা, জান মহম্মদ আলি শেখ এবং মহম্মদ আবু বাকার। পুলিস সূত্রে খবর, ধৃতদের মধ্যে ২ জন পাকিস্তানে গিয়ে বিস্ফোরক তৈরি এবং একে-৪৭-সহ অন্যান্য অস্ত্র চালানোর প্রশিক্ষণ নিয়ে এসেছে।

ধৃতদের জেরা করে দিল্লি পুলিস জানতে পেরেছে, তাদের দলে ১৪ থেকে ১৫ জন বাংলাভাষী রয়েছে। তাদেরও পাকিস্তানে প্রশিক্ষণ দিতে নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা ছিল। পুলিশ সূত্রে আরও জানা গিয়েছে যে, উৎসবের মরসুমে দেশের একাধিক জায়গায় বড়সড় নাশকতার ছক ছিল ধৃতদের। দুটি দলে বিভক্ত হয়ে গোটা দেশে ছড়িয়ে ছিল জঙ্গিরা। একটি দল দাউদ ইব্রাহিমের ভাই আনস ইব্রাহিমের সংস্পর্শে ছিল। মূলত সীমান্ত দিয়ে দেশে অস্ত্র ঢোকানোর কাজ করত ওই দলটি। অন্য দলটি হাওয়ালার মাধ্যমে টাকা জোগার করত।

পুলিশ সূত্রে খবর, ধৃতদের কাছে থেকে আগ্নেয়াস্ত্র এবং বিস্ফোরক উদ্ধার হয়েছে। প্রাথমিকভাবে অনুমান করা হচ্ছে, রামলীলা এবং নবরাত্রির মতো অনুষ্ঠানের সময় নাশকতার ছক কষেছিল জঙ্গিরা। ধৃতদের মধ্যে ইব্রাহিম নামক এক ব্যক্তি শামিল, যার কাজই ছিল তহবিল জোগান দেওয়া। এ বাদে আরেক ধৃত লালা আবার একজন আন্ডারওয়ার্ল্ড কানেক্টর। সে উত্তর প্রদেশ এবং মহারাষ্ট্রে বোমা বিস্ফোরণ করতে চেয়েছিল।