কোচবিহারে নির্বাচনী প্রচারে গিয়ে আক্রান্ত বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ! গাড়িতে হামলা

কোচবিহারে নির্বাচনী প্রচারে গিয়ে আক্রান্ত বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ! গাড়িতে হামলা
কোচবিহারে নির্বাচনী প্রচারে গিয়ে আক্রান্ত বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ! গাড়িতে হামলা / ছবি সৌজন্যে- Facebook Posted By @dilipghoshbjp

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ নির্বাচনী প্রচারে বেরিয়ে হামলার শিকার হলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ!

বুধবার শীতলকুচিতে নির্বাচনী সভা শেষ করে বেরোতেই হামলার শিকার হন দিলীপ ঘোষ। তাঁর গাড়ির উপর হামলা চালায় দুষ্কৃতীরা। গাড়ি লক্ষ্য করে ইট ছোড়া হয় বলে অভিযোগ। জানা গিয়েছে, এই হামলার জেরে দিলীপ ঘোষের বাঁ হাতে চোট লেগেছে। অন্যদিকে বিজেপির রাজ্য সভাপতির গাড়ি ছাড়াও তাঁর কনভয়ে হামলার পর ব্যাপক বোমাবাজিও করা হয় বলে অভিযোগ। তাঁর কনভয়ে আরও কয়েকটি গাড়িও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এই হামলার জেরে।

বুধবার কোচবিহারের শীতলকুচি পঞ্চায়েত সমিতির মাঠে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের নির্বাচনী সভা ছিল। সেখান থেকে ফেরার পথেই তাঁর গাড়ির উপর হামলা হয় বলে অভিযোগ। আজকের এই হামলার পর, ফেসবুকে সরাসরি সম্প্রচারে তিনি দাবি করেন যে, তৃণমূলের ঝাণ্ডা নিয়ে, বোমা-বন্দুক সহযোগে তাঁদের উপর হামলা করা হয়েছে। দিলীপবাবুকে ভারী হেলমেট পরে বসতেও দেখা যায়। দিলীপবাবু বলেন, এমন পরিস্থিতির মুখে কোনওদিন তিনি পড়েননি।

চারদিক থেকে ঘিরে ধরে হামলা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন দিলীপবাবু। তিনি জানিয়েছেন, প্রায় ১০০-র বেশি মানুষ তাঁদের ঘিরে ধরেন। আজকের ঘটনায় তিনি পুলিশি নিস্ক্রিয়তার অভিযোগও করেছেন। এদিকে এই হামলার অভিযোগ অস্বীকার করেছে তৃণমূল। তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ জানিয়েছেন যে, আদি বিজেপি এবং নব্য বিজেপির সংঘাতের জেরেই আজকের এই ঘটনা।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, আজ কোচবিহারের শীতলকুচিতে সভা করেন দিলীপ ঘোষ। এদিকে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভা শেষ হওয়ার পর, একই রাস্তা দিয়ে ফিরছিলেন তৃণমূলের কর্মীরা। এরপরেই দুই বিরোধী রাজনৈতিক দলের মধ্যে বচসা এবং হাতাহাতি শুরু হয়। বিজেপির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, সেখানেই তাঁদের কর্মীদের মারধর করার পাশাপাশি বোমাবাজিও করা হয়। এই ঘটনা যখন ঘটে, ঠিক সেই সময় দিলীপ ঘোষ বক্তব্য রাখছিলেন। সভা শেষ করে তিনি যখন যাচ্ছিলেন, তখন তাঁর গাড়িতেও হামলা করা হয় বলে অভিযোগ। তাঁর গাড়ির একটা কাচ ভেঙে যায় এদিন। ঘটনাস্থলে পৌঁছয় পুলিশ।

আজকের এই হামলা প্রসঙ্গে বিজেপির রাজ্য সভাপতি আরও জানিয়েছেন যে, মানুষের জীবনের কোনও সুরক্ষা নেই। এই নির্বাচনের কোনও মানেই হয় না। নির্বাচন কমিশন ব্যবস্থা না নিলে, কোচবিহারে কোনও নির্বাচন সুষ্ঠভাবে হবে না। সেটা সিতাই হোক বা শীতলকুচি। এখানকার পরিস্থিতির কোনও পরিবর্তন হয়নি। তিনি দাবি করেন যে, ভোটকে প্রভাবিত করার জন্যই এই কাজ করেছে তৃণমূল। দিলীপ ঘোষের দাবি, মুখ্যমন্ত্রী চান না শান্তিপূর্ণভাবে ভোট হোক। কয়েকদিন ধরেই উত্তেজনামূলক কথা বলছেন তিনি।

এদিকে আজকের এই ঘটনা প্রসঙ্গে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ সাংবাদিক সম্মেলন করেন কোচবিহার থেকেই। সেখানেই উপস্থিত বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু জানিয়েছেন, দিলীপ ঘোষের উপর এবং তাঁদের কর্মী-সমর্থকদের উপর হামলার প্রতিবাদে কোচবিহার জেলার সমস্ত বিধানসভা এলাকায় এবং সব থানার সামনে বিক্ষোভ দেখানো হবে আগামীকাল। দিলীপ ঘোষ জানিয়েছেন, আগামীকাল সভা করে,  তারপরই তিনি ফিরবেন।

অন্যদিকে, এই ঘটনার প্রতিবাদে আজ কলকাতায় বিক্ষোভ মিছিল হয়। নির্বাচন কমিশনের দফতরের সামনে সৌমিত্র খাঁ-এর নেতৃত্বে ধর্নায় বসেন বিজেপির কর্মীরা। তাঁরা সময় চেয়েছেন মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিকের। তাঁদের মূল দাবি, এই ঘটনার জন্য যারা দায়ি তাঁদের উপযুক্ত শাস্তি দেওয়া হোক। সৌমিত্র খাঁ-এর আরও অভিযোগ, দিলীপ ঘোষকে হত্যা করার চক্রান্ত করা হয়েছে।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.