‘আমরা আগেও লড়াই করেছি, ভবিষ্যতেও করব, এরপর মানুষ যে রায় দেবে সেটাই ঠিক’, বললেন দিলীপ

‘আমরা আগেও লড়াই করেছি, ভবিষ্যতেও করব, এরপর মানুষ যে রায় দেবে সেটাই ঠিক’, বললেন দিলীপ
‘আমরা আগেও লড়াই করেছি, ভবিষ্যতেও করব, এরপর মানুষ যে রায় দেবে সেটাই ঠিক’, বললেন দিলীপ

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ রাজ্যে আসন্ন উপনির্বাচনে মুর্শিদাবাদের ২ টি আসনে নির্বাচন হতে চলেছে। এই দুটি আসন হল সামশেরগঞ্জ এবং জঙ্গিপুর। এই দুই আসনে প্রচার করতে বৃহস্পতিবার বহরমপুর পৌঁছান বিজেপির প্রাক্তন রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

সেখানে গিয়ে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসকে সরাসরি আক্রমণ করেন দিলীপ ঘোষ এবং বিভিন্ন ইস্যুতে সরকারের অপদার্থতা এবং অক্ষমতাকে কাঠগড়ায় তোলেন। এদিন বহরমপুরে বিজেপির সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন যে, ‘এই দুর্যোগের মধ্যে অনেক অঘটন ঘটছে, এই ব্যাপারে মানুষকে সতর্ক করা দরকার। বিদ্যুতের খোলা তার জলে ভিজে থাকার কারনে জলে তড়িৎ প্রবাহ ঘটছে। দুর্ভাগ্যজনক ভাবে ২টি দুর্ঘটনা ঘটেছে এর ফলে। সরকারের উচিত সবাইকে সচেতন করা।’ এর পাশাপাশি প্রাকৃতিক দুর্যোগে সকলকে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

অন্যদিকে, আসন্ন উপনির্বাচনে মুর্শিদাবাদের ২ টি আসন সম্পর্কে তিনি বলেন যে, ‘সামশেরগঞ্জ, জঙ্গিপুরে আমরা আগেও লড়াই করেছি এবং ভবিষ্যতেও করব।’ ওখানে বিজেপি প্রার্থী এবং কর্মীরা আছেন এবং তিনিও ওখানে যাবেন বলে জানিয়েছেন। তিনি বলেন যে, ‘বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী এসেছিলেন মুর্শিদাবাদে। বিজেপি সব শক্তি নিয়ে লড়াই করছে, এরপর সাধারণ মানুষ যে রায় দেবে সেটাই ঠিক।’ পাশাপাশি এই নির্বাচনে অপর রাজনৈতিক দল কংগ্রেসের কোনও অস্তিত্ব নেই বলেই তিনি মনে করেন। কংগ্রেসের বিরুদ্ধে আক্রমণ শানিয়ে তিনি বলেন যে, ‘অধীরবাবু হয়তো রাস্তা খুঁজছেন, কংগ্রেসের ডুবন্ত নৌকা ছেড়ে দিতে কিন্তু কংগ্রেসের নৌকা যেমন ডুবে গেছে সেরকম তিনি যে নৌকায় যেতে চাইছেন সেটাও ফুটো হয়ে গেছে।’

উপনির্বাচনে ভপবানীপুরে কংগ্রেস প্রার্থী না দেওয়ায়, তৃণমূলের সঙ্গে সমঝোতার কথা উঠছে। আর সেই প্রসঙ্গেই এই কথা বলেছেন দিলীপ। তিনি আরও একধাপ এগিয়ে কটাক্ষের সুরে বলেন যে, ‘অধীর জন্য একটাই নিরাপদ যায়গা আছে এবং সেটা বিজেপি।’

এখানেই শেষ নয়। দিলীপ ঘোষ কলকাতা পুরসভা অঞ্চলে গত কয়েকদিনের বৃষ্টিতে জল জমার কথা তুলে আক্রমণ করেছেন শাসকদলকে। পাশাপাশি তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায়কে বেনজিরভাবে আক্রমণ করেন। তিনি বলেন, ‘কলকাতা পুরসভা নিয়ে কিছুই বলার নেই। আমাদের মাননীয় সাংসদ সৌগত বাবু লুঙ্গী পড়ে হেঁটে বেড়াচ্ছেন। ওনার যখন ৭ বছর বয়স ছিল তখন সৌগত বাবু হাফপ্যান্ট পরে জলে এইভাবে হাটতেন। আর ৭৭ হয়ে যাওয়ার পরেও ৭০ বছর ধরে সেখানেই আছেন আর এখন লুঙ্গী পড়ে হাঁটছেন। তিনি আরো বলেন সৌগত রায় কংগ্রেসেও ছিলেন এবং কংগ্রেস একসময় ক্ষমতায় ছিল। এখন উনি তৃণমূলে আছেন কিন্তু তার অবস্থার কোনো পরিবর্তন হয়নি এবং ওনাকে সারা জীবন জলই ঘাটতে হল। কলকাতার কোথায় লন্ডন হওয়ায় কথা ছিল কিন্তু সেই বাংলা কোথায়?’

এদিকে, ভবানীপুরের নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নির্বাচনী প্রচারে পরিবেশ উত্তপ্ত হওয়ার বিষয়ে তাঁর মন্তব্য, ‘যারা বলেছিল বিজেপির জামানত জব্দ হবে এবং মমতা ব্যানার্জী জিতে গেছেন তাঁরা আজ ভয় পাচ্ছেন। বিজেপির একজন সাধারণ কর্মী প্রিয়াঙ্কাকে ভয় পাচ্ছে ত্রিনমুল, বিজেপিকে ভয় পাচ্ছে তারা। তৃণমূলকে কত চাপে আছে তার প্রমার বিজেপিকে প্রচার করতে না দেওয়া। ’