ফের দিলীপ ঘোষের নিশানায় বুদ্ধিজীবী মহল

  ফের দিলীপ ঘোষের নিশানায় বুদ্ধিজীবী মহল
  ফের দিলীপ ঘোষের নিশানায় বুদ্ধিজীবী মহল

বিএসএফের পরিসর বৃদ্ধি নিয়ে প্রবল বিতর্ক চলছে রাজ্যে। বাংলার সীমান্ত এলাকায় ৫০ কিলোমিটার এলাকা পর্যন্ত এলাকায় গ্রেফতারি, তল্লাশি কিংবা বাজেয়াপ্ত করার ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্সকে। এই নিয়ে রাজ্যের পাশে দাঁড়িয়েছেন বিদ্বজনেরা। এবার সেই বিদ্বজনদেরকেই নিশানা করলেন দিলীপ ঘোষ।

এদিন সকালে দিলীপ ঘোষ অপর্ণা সেনদের সরাসরি আক্রমণ করে বলেন, “ওরা চিরদিন দেশদ্রোহী। আজ তার সমর্থনের পার্টি বা সরকার নেই। তাই খুব একটা দেখা যায়না। আমরা বহুদিন ধরে দেখে আসছি, দেশের পক্ষে যা কিছু, ওনারা তার বিরুদ্ধে”। বিজেপির সর্ব ভারতীয় সহ সভাপতির আরও অভিযোগ, “ভারতীয় পরম্পরা, সংস্কৃতি, হিন্দুত্বের বিরোধিতা করেছেন ওনারা আর এখন দেশের বিরোধিতা করছেন। ওঁরা মানুষের থেকে ভালবাসা পেয়েছেন, কিন্তু দেশের সরকার ও সমাজের বিরোধিতা করেছেন। এরপরেই তিনি বলেন এখন দেশের মন এবং সমাজ পাল্টেছে যা ওনারা বুঝতে পারছেন না।”

প্রসঙ্গত, এর আগেও বিজেপির নিশানায় পড়েছিলেন রাজ্যের বিদ্বজ্জনেরা। শুভেন্দু অধিকারী বলেছিলেন, “উনি নিশ্চয়ই পে রোলে আছেন, ভাতাজীবী। এরা কাল এসে বিএসএফের কাছে ক্ষমা চেয়ে যাক”।গত মঙ্গলবার টুইটারে বুদ্ধিজীবীদের ‘সন্ত্রাসজীবী’ বলে কটাক্ষ করেছিলেন বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ। তিনি অপর্ণা সেন, শঙ্খ ঘোষ, শুভাপ্রসন্নদের একটি পুরনো ছবি টুইট করে লিখেছিলেন, “যাঁরা বিপদের দিনে মানুষের পাশে দাঁড়ান না, তাঁরা বুদ্ধিজীবী নন, সন্ত্রাসজীবী।”