দুয়ারে কে পৌঁছাবে রেশন? কটাক্ষ ছুঁড়ে মমতাকে প্রশ্ন দিলীপের

দুয়ারে কে পৌঁছাবে রেশন? কটাক্ষ ছুঁড়ে মমতাকে প্রশ্ন দিলীপের
দুয়ারে কে পৌঁছাবে রেশন? কটাক্ষ ছুঁড়ে মমতাকে প্রশ্ন দিলীপের

এবার থেকে ১০০ শতাংশ বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া হবে রেশন। মঙ্গলবার থেকে রাজ্য সরকারের যে দুয়ারে রেশন প্রকল্প ফের চালু হয়েছে তাতে এমনটাই জানানো হয়েছে। আর এরপরের দিনই এই প্রসঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কটাক্ষ করলেন বিজেপির সর্ব ভারতীয় সহ সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তাঁর মন্তব্য, “লোকের কাছে নিজেকে ভাল প্রমাণের চেষ্টা করছেন।

দুয়ারে রেশন প্রকল্প চালু করে জানানো হয় এতদিন কর্মী নিয়োগ করতে পারতেন না রেশন ডিলাররা। এবার থেকে প্রত্যেক রেশন ডিলার দুজন করে কর্মী নিয়োগ করতে পারবেন। অর্থাৎ ২১ হাজার রেশন ডিলার মত ৪২ হাজার কর্মী নিয়োগ করতে পারবে। যাদের বেতন হবে মাসিক ১০ হাজার টাকা। তাঁদের বেতনের অর্ধেক দেবে রাজ্য সরকার, অর্ধেক দেবেন রেশন ডিলাররা।

এছাড়াও, এতদিন রেশন ডিলারশিপ নিতে খরচ হত ৫ লক্ষ টাকা। পরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সেই খরচ কমিয়ে করেছিলেন ২ লক্ষ টাকা। তবে এবার তা কমিয়ে আনা হয়েছে ৫০ হাজার টাকায়। মহিলাদেরও রেশন ডিলার করার পরামর্শ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। পাশাপাশি এই প্রকল্পের ক্ষেত্রে ২১ হাজার গাড়ির প্রয়োজনের কথাও জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। ডিলাররা যদি নিজেদের গাড়িতে রেশন পৌঁছে দেন তবে রাজ্য তাঁদের ১ লক্ষ টাকা করে ভর্তুকি দেবে বলেও জানিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এরপরেই মুখ্যমন্ত্রীর সমালোচনা করেছেন দিলীপ ঘোষ। এদিন সকালে তিনি বলেন, “লোককে দেখাচ্ছে আপনাদের জন্য আমি খুব ভাবি। লোক এটা চায়নি”। কটাক্ষ ছুঁড়ে তাঁর প্রশ্ন, “দুয়ারে কে পৌঁছাবে রেশন”?

দিলীপ ঘোষ আরও বলেন, “ডিলারদের আদালতে যেতে হল। লক্ষ্মীর ভাণ্ডার, দুয়ারে রেশন, এগুলো মানুষের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলা। ডিলারদের ভয় দেখিয়ে, চমকে বেশিদিন সরকার চালানো যায় না। দিল্লিতে ইতিমধ্যেই বন্ধ হয়ে গেছে।”