মোদীর প্রশংসার পরেই দিলীপ ঘোষ দিলেন এই হুঙ্কার!…

মোদীর প্রশংসার পরেই দিলীপ ঘোষ দিলেন এই হুঙ্কার!...
মোদীর প্রশংসার পরেই দিলীপ ঘোষ দিলেন এই হুঙ্কার!... / নিজস্ব ছবি

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ বাংলায় প্রথম দফার ভোট ২৭ মার্চ। তার এক সপ্তাহ আগে আজ ফের রাজ্যে নির্বাচনী প্রচারে আসেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। আজ খড়গপুর সদরের বিজেপি প্রার্থী হিরণ্ময় চট্টোপাধ্যায় ওরফে অভিনেতা হিরণের সমর্থনে খড়গপুর বিএনআর ময়দানে সভা করেন তিনি।

দিল্লি থেকে বিমানে সরাসরি কলাইকুণ্ডা পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী। এরপর সেখান থেকে ফের কপ্টারে চড়ে নামেন খড়গপুরের কল্যাণ মণ্ডপ মাঠের অস্থায়ী হেলিপ্যাডে। সেখান থেকে গাড়িতে করে সভাস্থলে পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী।

আজ খড়গপুরে সভায় দিলীপ ঘোষের ঢালাও প্রশংসা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। বিজেপির রাজ্য সভাপতির প্রশংসা করে বলেন যে, ‘আমাদের সৌভাগ্য যে, আমরা দিলীপ ঘোষের মতো নেতা পেয়েছি। যিনি দিদির হুমকিতে ভয় পাননি। ভয় এবং হামলা সত্ত্বেও মাটি কামড়ে পড়ে আছেন।’

এর পরেই তাঁর সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসাসূচক মন্তব্য প্রসঙ্গে দিলীপ ঘোষ বলেন যে, ‘আমাকে যে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, সেটা পালন করছি। নেতৃত্ব খুশি হলে, আমার পরিশ্রম সফল।’ এরপরই তিনি রীতিমতো হুঙ্কারের সুরে বলেন যে, ‘মেদিনীপুর জেলা থেকেই আমি বিধায়ক এবং সাংসদ হয়েছি। আমার কাজ বিজেপিকে ২০০ আসনে জিতিয়ে ক্ষমতা আনা ও মেদিনীপুরের সব কেন্দ্রে জয় এনে দেওয়া।’

আজ খড়গপুরে প্রধানমন্ত্রীর সভায় বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ রাজ্য সরকারকে নিশানা করে বলেন যে, বাংলায় সন্ত্রাসের রাজনীতি চালিয়েছে তৃণমূল। শাসকদলকে কটাক্ষ করে আরও বলেন, ‘দুয়ারে নয়, বাংলায় হুইলচেয়ারে সরকার।’

এদিকে, বিজেপির প্রার্থী তালিকাকে কেন্দ্র করে ক্ষোভ-বিক্ষোভ কিছুতেই প্রশমিত হচ্ছে না। আজ ইংরেজবাজার ও নদীয়ার রানাঘাটে বিক্ষোভ দেখান বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা। শনিবার মালদা শহরে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ বিজেপির বিক্ষুব্ধ কর্মী-সমর্থকরা। অন্যদিকে রানাঘাটেও শনিবার প্রার্থী নিয়ে অসন্তোষের জেরে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন বিজেপি কর্মীরা।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.