‘ট্র্যাজেডি কিং’ দিলীপ কুমারের মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ মোদী-মমতা থেকে রাহুল-রাজনাথ সিং-এর

‘ট্র্যাজেডি কিং’ দিলীপ কুমারের মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ মোদী-মমতা থেকে রাহুল-রাজনাথ সিং-এর
‘ট্র্যাজেডি কিং’ দিলীপ কুমারের মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ মোদী-মমতা থেকে রাহুল-রাজনাথ সিং-এর

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ জীবনকে শেষ বিদায় জানিয়ে, চিরঘুমের দেশে পাড়ি দিলেন কিংবদন্তি অভিনেতা দিলীপ কুমার। বুধবার সকাল ৭.৩০ মিনিট নাগাদ তাঁর মৃত্যু হয়। মৃত্যুকালে চলচ্চিত্র জগতের এই দিকপালের বয়স হয়েছিল ৯৮ বছর। জুন মাসের শেষে মুম্বইয়ের হিন্দুজা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল তাঁকে। সেখানেই তাঁর মৃত্যু হয়েছে। জানা গিয়েছে, কোভিড আবহে পুলিশের অনুমতিতে শুধুমাত্র জনা কয়েক ঘনিষ্ঠরাই উপস্থিত হতে পারবেন অভিনেতার শেষকৃত্যে।

জানা গিয়েছে, আজ কিংবদন্তির নশ্বর দেহ বাড়িতে পৌঁছানোর পর, বিকেলে জুহুতে শেষকৃত্য হবে অভিনেতার। আজ অভিনেতার মৃত্যু সংবাদ প্রকাশ্যে আসার পরই শোকপ্রকাশ করেন রাষ্ট্রপতি থেকে শুরু করে প্রধানমন্ত্রী, প্রতিরক্ষা মন্ত্রী, রাহুল গান্ধী, পীযূষ গোয়েল, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রমুখ রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বরা। কিংবদন্তি অভিনেতার মৃত্যুতে একে একে শোকপ্রকাশ করে টুইট করেন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বরা। দিলীপ কুমারের মৃত্যুতে একটি যুগের অবসান হল বলে টুইটে শোকপ্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী অভিনেতার মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করে টুইটে লিখেছেন, ‘অসামান্য প্রতিভার অধিকারী ছিলেন দিলীপ কুমারজি। তাঁর কাজ বহু প্রজন্মকে মোহিত করেছে। তাঁকে একজন সিনেম্যাটিক কিংবদন্তী হিসেবে মনে রাখবে দেশ। ওঁর মৃত্যুতে আমাদের সাংস্কৃতিক জগতের অপূরণীয় ক্ষতি হল। ওঁর পরিবার, পরিজন এবং ভক্তদের প্রতি আমার সমবেদনা।’

বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কিংবদন্তি এই অভিনেতার স্ত্রী তথা অভিনেত্রী সায়রা বানু এবং দিলীপ কুমারের পরিবারকে সমবেদনা জানিয়ে টুইটে লিখেছেন, ‘গভীরভাবে শোকাহত। অসাধারণ অভিনয় দক্ষতার জন্য আগামী প্রজন্ম মনে রাখবেন ওঁকে।’

কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী টুইটে শোকপ্রকাশ করে লেখেন, ‘দিলীপ কুমারজির পরিবার, আত্মীয়-স্বজন এবং অনুরাগীদের প্রতি সমবেদনা রইল। ভারতীয় চলচ্চিত্রে তাঁর অসামান্য অবদান চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে।’

এছাড়াও কিংবদন্তি বর্ষীয়ান এই অভিনেতার মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করেছেন, প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী পীযূষ গোয়েল এবং স্মৃতি ইরানি প্রমুখ।

দীর্ঘদিন ধরেই বার্ধক্যজনিত অসুস্থতায় ভুগছিলেন এই কিংবদন্তি অভিনেতা। মুম্বইয়ের হিন্দুজা হাসপাতালের আইসিইউ-তে ভর্তি ছিলেন তিনি। কয়েকদিন আগেই তাঁর শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল বলেই জানিয়েছিলেন স্ত্রী তথা কিংবদন্তি অভিনেত্রী সায়রা বানু। শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যার পাশাপাশি তাঁর ফুসফুসেও জল জমেছিল। সঙ্গে দেখা দিয়েছিল কিডনির সমস্যাও।

উল্লেখ্য, প্রথমে গত ৬ জুন দিলীপ কুমারকে শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা হওয়ার কারণে মুম্বইয়ের হিন্দুজা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। সেই সময় তাঁকে অক্সিজেন সাপোর্ট দেওয়া হয়। এরপর ১১ জন তিনি হাসপাতাল থেকে ছাড়াও পান। কিন্তু গত মাসেই দ্বিতীয়বারের জন্য ফের হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাঁকে। ৩০ জুন তাঁকে দ্বিতীয়বার হিন্দুজা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গত কয়েকমাস ধরেই শারীরিক সমস্যা বেড়েছিল বর্ষীয়ান অভিনেতার। এর আগেও বেশ কয়েকবার হাসপাতালেও ভর্তি করা হয়েছিল তাঁকে। কিন্তু এবার আর শেষরক্ষা হল না।

সিনেমার জগতে দিলীপ কুমারের প্রবেশ দেবিকা রানির বম্বে টকিজ প্রযোজনা সংস্থার কর্মী হিসেবে। মাসিক ১২৫০ টাকার বিনিময়ে এই কাজ শুরু করেছিলেন তিনি। সেখানেই অশোক কুমার ও শশধর মুখোপাধ্যায়ের সান্নিধ্য পান এই বর্ষীয়ান অভিনেতা। অভিনেতা দিলীপ কুমারের বলিউডে আত্মপ্রকাশ ১৯৪৪ সালে ‘জোয়ার ভাটা’ সিনেমার মাধ্যমে। তবে নায়ক হিসেবে তাঁকে পরিচিতি দেয় ১৯৪৭ সালে মুক্তি পাওয়া ‘জুগনু’। তারপর থেকেই বলিউডে শুরু হয় দিলীপ কুমারের ‘নয়া দওর’। তিনি চলচ্চিত্র শিল্প ছয় দশকের অধিক সময় ধরে বিচরণ করেছেন এবং অভিনয় করেছেন ৬০টির বেশি ছায়াছবিতে। দিলীপ কুমারকে হিন্দি চলচ্চিত্রের ইতিহাসে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ অভিনেতাদের একজন হিসেবে বিবেচনা করা হয়। কিংবদন্তি এই অভিনেতার মৃত্যুতে এক যুগের অবসান হল।