নৃশংসতার ভয়ঙ্কর রূপ! বাইকের পিছনে পথ-কুকুরকে বেঁধে টানল যুবক! প্রবল যন্ত্রণায় মৃত্যু, ভাইরাল ভিডিও

নৃশংসতার ভয়ঙ্কর রূপ! বাইকের পিছনে পথ-কুকুরকে বেঁধে টানল যুবক! প্রবল যন্ত্রণায় মৃত্যু, ভাইরাল ভিডিও
নৃশংসতার ভয়ঙ্কর রূপ! বাইকের পিছনে পথ-কুকুরকে বেঁধে টানল যুবক! প্রবল যন্ত্রণায় মৃত্যু, ভাইরাল ভিডিও / প্রতীকী ছবি

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ মানুষ যেমন পৃথিবীর সবথেকে উন্নত জীব, ঠিক তেমনই মানুষের নৃশংসতার রূপও কখনও কখনও এতোটাই ভয়ঙ্কর চেহারা নেয় যে, তা ভাষায় ব্যক্ত করা যায় না।

সম্প্রতি গুজরাটের সুরাতে এমনই এক ঘটনা ঘটেছে। যেখানে মানুষের নৃশংস আচরণ দেখে চমকে উঠবে যে কেউ। পথ-কুকুরকে বাইকের পিছনে দড়ি দিয়ে বেঁধে, হিড়হিড় করে টেনে নিয়ে যাচ্ছে পুরসভার সাফাইকর্মী। যন্ত্রণায় প্রবল চিৎকার করছে সে। কুকুরের আর্ত চিৎকারে তাঁর এতোটুকু মায়া হচ্ছে না।

সোশ্যাল মিডিয়ায় এই ভিডিও প্রকাশ পেতেই, তা দেখে শিউরে উঠছেন সকলে। যুবকের আচরণে ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন সকলে। অসহায়, অবলা কুকুরটি এই নির্মম অত্যাচার সহ্য করতে পারেনি। মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে একসময় কুকুরটি। ভিডিওটি ভাইরালও হতে বেশি সময় নেয়নি। ঘটনার দিন ওই অসহায় পথ-কুকুরটিকে বাইকের পেছনে বেঁধে প্রায় দেড় কিলোমিটার টেনে নিয়ে যাওয়া হয়। কুকুরটি যন্ত্রণায় ছটফট করলেও, তাতে বিন্দুমাত্র কর্ণপাত করেননি ওই সাফাইকর্মী।

এদিকে এই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় দেখার পরে, সালোনি রাঠি নামে এক মহিলা খাটোদাড়া থানার দ্বারস্থ হন। এরপর পুলিশ ঘটনার তদন্তে নেমে, সিসি ক্যামেরার ফুটেজ খতিয়ে দেখে। সেখানেই বাইকের নম্বর নিয়ে, সেই বাইকের রেজিস্ট্রেশন নম্বর মিলিয়ে, মালিক হিতেশ পাটেল নামে এক যুবককে শনাক্ত করে। এরপর তাকে ফ্রেফতারও করা হয়, বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে আপরাধের সময় ব্যবহৃত বাইকটিও। তবে, হিতেশের বন্ধু পলাতক। তার খোঁজে তল্লাশি চলছে। হিতেশের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪২৯ ধারায় মামলা রুজু করা হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে খবর, হিতেশ সুরাত মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশনের সাফাইকর্মী। এ দিন ভিডিওতে দেখা গিয়েছে, সে এবং তার এক বন্ধু বাইকে রয়েছ। ওই বন্ধুই গাড়ি চালাচ্ছিল। আর হিতেশের হাতে থাকা দড়ির একপ্রান্ত বাঁধা ছিল কুকুরের গলায়, সেভাবেই টানতে টানতে দেড় কিলোমিটার নিয়ে যায়। যদিও হিতেশের দাবি, কুকুরটি মারা গিয়েছিল, তাই সে কুকুরটির মৃতদেহ ডাম্পিং গ্রাউন্ডে ফেলে দেওয়ার জন্য নিয়ে যাচ্ছিল। তবে, সেই কথা পুরোপুরি মিথ্যা বলেই দাবি একাধিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সদস্যদের। তাঁদের মতে, কুকুরটিকে ভিডিওতে নড়াচড়া করতে দেখা গিয়েছে। নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করতে মিথ্যা কথা বলছে ওই সাফাইকর্মী।