গল্পকথার চরিত্রের দেখা মিলল বাস্তবে! সমুদ্রতটে ভেসে এল ভয়ঙ্কর নীল ড্রাগন! ভাইরাল ভিডিও

গল্পকথার চরিত্রের দেখা মিলল বাস্তবে! সমুদ্রতটে ভেসে এল ভয়ঙ্কর নীল ড্রাগন! ভাইরাল ভিডিও
গল্পকথার চরিত্রের দেখা মিলল বাস্তবে! সমুদ্রতটে ভেসে এল ভয়ঙ্কর নীল ড্রাগন! ভাইরাল ভিডিও

বংনিউজ২৪x৭ ডেস্কঃ রূপকথা বা কল্পবিজ্ঞানে আমরা এমন অনেক কিছুর উপস্থিতির কথা জানতে পারি, যাঁদের বাস্তবের মাটিতে দেখা পাওয়া যায় না। তাদের হাজারো কীর্তির সাক্ষী হই আমরা। কিন্তু ভাবুন, যদি এই চরিত্রগুলিই বাস্তবের মাটিতে উঠে আসে তাহলে কীরকম হয়!

তেমনই ঘটনা সম্প্রতি ঘটেছে দক্ষিণ আফ্রিকায়। রূপকথার গল্পে নীল ড্রাগনের কথা আমরা প্রায় সকলেই কমবেশি শুনেছি। এই রূপকথার চরিত্রের দেখা পাওয়া গেল এবার দক্ষিণ আফ্রিকার কেপটাউনের কাছে অবস্থিত ফিশ হোক বিচে। তাও একটা দুটো নয়, এই বিচে প্রায় ২০ টি নীল ড্রাগনকে দেখতে পান স্থানীয় বাসিন্দা মারিয়া ওয়েজেন। এই বিরল দৃশ্যের সাক্ষী হতে পেরে তিনি সময় নষ্ট না করে, সেই ছবি তুলে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেন। যা দেখে নেটিজেনদের মধ্যে উত্তেজনা শুরু হয়ে যায়।

অনেকেই সেই ছবি দেখার পর, মন্তব্য করেন যে, ‘সমুদ্রের সবথেকে সুন্দর খুনি’। এই নীল ড্রাগন কে দেখতে নেটদুনিয়ায় উপচে পরে ভিড়। আট থেকে আশি সকলেই এই ভিড়ে সামিল হন। মুহূর্তেই ভাইরাল হয়।

উল্লেখ্য, এই নীল ড্রাগনের বৈজ্ঞানিক নাম গ্ল্যাকাস আটলান্টিকাস, সমুদ্রের ‘ভয়ঙ্কর খুনি’ নামে আলাদা পরিচিতি আছে এর। কারণ সমুদ্রের বিষাক্ত প্রাণীদের মেরেই খিদে মেটায় এই নীল ড্রাগন। তাছাড়া বিষাক্ত প্রাণীদের কোষ ব্যবহার করেই ফের শিকার করে। আকারে ছোট হলেও, এরা প্রচণ্ড বিষাক্ত। এঁদের শরীরে থাকা হুলগুলি মানুষ বা অন্য কোনও প্রাণীর শরীরে ফুটলে, বিষ ছড়িয়ে পরতে সময় লাগে না।

মারিয়া ওয়েজেন জানিয়েছেন, প্রতিদিনের মতো সেদিনও তিনি ভোরবেলায় সমুদ্রের ধার ধরে হাঁটছিলেন। সেই সময়ই তিনি নীল ড্রাগনের দেখা পান। তিনি ব্জানিয়েছেন, ড্রাগন গুলির মধ্যে পাখি, টিকটিকি এবং অক্টোপাসের ফিচার লক্ষ করেছেন তিনি। মাঝেমধ্যেই সমুদ্রতটে নানা সামুদ্রিক প্রাণী ঢেউয়ের সঙ্গে ভেসে আসে। সেগুলিকে তিনি চেষ্টা করেন পুনরায় জলে ছেড়ে দিতে। কিন্তু এই ড্রাগনগুলি দেখে খানিক ভয়-ই পেয়েছিলেন তিনি।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.