চতুর্থ দফা ভোটের আগে তিন জেলার নির্বাচনী আধিকারিক বদল কমিশনের!

চতুর্থ দফা ভোটের আগে তিন জেলার নির্বাচনী আধিকারিক বদল কমিশনের!
চতুর্থ দফা ভোটের আগে তিন জেলার নির্বাচনী আধিকারিক বদল কমিশনের! / ছবি সৌজন্যে- Facebook Post By @ECI

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ বাংলায় একুশের নির্বাচনে ফের প্রশাসনিক রদবদল। চতুর্থ দফার ভোটের আগে এবার দুই বর্ধমান এবং দক্ষিণ দিনাজপুরের জেলাশাসককে সরিয়ে দিল কমিশন। এর পাশাপাশি বদলি করা হল কলকাতার রিজেন্ট পার্ক ও বাঁশদ্রোণী থানার ওসি-কেও।

কমিশন সূত্রে জানা গিয়েছে, এদের তিনজনের বিরুদ্ধেই ভোটের কাজ সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা না করার অভিযোগ রয়েছে। সেই অভিযোগ খতিয়ে দেখেই, এই আধিকারিকদের বদলির সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন। সেই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বিবৃতি দিয়ে একথা জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

নিখিল নির্মলকে সরিয়ে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলায় নতুন জেলা নির্বাচনী আধিকারিক করা হচ্ছে ২০০৭ ব্যাচের আইএএস অফিসার সি মুরুগানকে। অপসারিত করা হল পূর্ব বর্ধমানের নির্বাচনী আধিকারিক এনাউর রহমানকে। তাঁর জায়গায় পূর্ব বর্ধমানের নতুন নির্বাচনী আধিকারিক করা হয়েছে শিল্পা গৌরীসারিয়াকে। তিনি ২০০৯ ব্যাচের আইপিএস আধিকারিক। এছাড়া ২০০৭ ব্যাচের আইএএস অফিসার অনুরাগ শ্রীবাস্তবকে বসানো হয়েছে পশ্চিম বধর্মানের জেলার নির্বাচন আধিকারিকের পদে, সরিয়ে দেওয়া হল পূর্ণেন্দু কুমার মাঝিকে। কমিশন সূত্রে বলা হচ্ছে, বাংলায় অবাধ ও নিরপেক্ষ ভোট করানোটা একটা চ্যালেঞ্জ। আর সেই চ্যালেঞ্জের কথা মাথায় রেখেই, এই আধিকারিকদের সরানোর সিদ্ধান্ত।

নির্বাচন কমিশন রাজ্য সরকারকে বদলি দ্রুত কার্যকর করার নির্দেশ দিয়েছেন। নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, অপসারিত ওই তিন জনকে দিয়ে নির্বাচন সংক্রান্ত কোনও কাজ করানো যাবে না। আগামীকাল সকাল ১০টার মধ্যে তাঁদের জায়গায় যাঁদের নিয়োগ করা হয়েছে, তাঁদের কাজে যোগ দিতে হবে। আর সেই সংক্রান্ত রিপোর্ট পাঠাতে হবে কমিশনকে।

অন্যদিকে, শুধুমাত্র নির্বাচন শান্তিপূর্ণ করতে নির্বাচনী আধিকারিকদের সরানোর পাশাপাশি নিরাপত্তা ব্যবস্থা আরও জোরদার করতে আগামী পর্বে কলকাতায় যে এলাকায় নির্বাচন, সেই এলাকার দুটি থানার আধিকারিকদের সরানো হয়েছে। রিজেন্ট পার্ক থানার ওসি মৃণালকান্তি মুখোপাধ্যায়কে সরিয়ে স্পেশাল ব্রাঞ্চে পাঠানো হয়েছে। বাঁশদ্রোণী থানার ওসি প্রতাপ বিশ্বাসকে পাঠানো হয়েছে গোয়েন্দা বিভাগে। পরিবর্তে টালিগঞ্জে রাম থামা এবং মলয় বসুকে বাঁশদ্রোণী থানার ওসি করা হয়েছে। উল্লেখ্য, রাজ্যে ভোট নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘোষণার পর থেকেই রাজ্য পুলিশে রদবদল লেগেই রয়েছে। বাদ যাননি ডিজি, এডিজি(আইনশৃঙ্খলা)-র মতো শীর্ষ পদাধিকারীরাও।

উল্লেখ্য, টালিগঞ্জেও এবার দুই হেভিওয়েটের লড়াই। একদিকে বিজেপির প্রার্থী কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় অন্যদিকে তৃণমূলের পক্ষ থেকে এই আসনে প্রার্থী হয়েছেন রাজ্যের প্রভাবশালী মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস। এছাড়াও লড়াইয়ে রয়েছেন সিপিএমের প্রার্থী অভিনেতা দেবদূত ঘোষও। সেই জন্যই এই পরিবর্তন কমিশনের, তেমনটাই রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.