শনিবার, ২৯ জানুয়ারি, ২০২২

বিক্ষোভ চরমে, ভেস্তে গেল বিজেপির নির্বাচন কমিটির বৈঠক! রূপা বনাম সুকান্তর লড়াই স্পষ্ট

১১:১৮ এএম, ডিসেম্বর ১, ২০২১

বিক্ষোভ চরমে, ভেস্তে গেল বিজেপির নির্বাচন কমিটির বৈঠক! রূপা বনাম সুকান্তর লড়াই স্পষ্ট

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ কলকাতা পুরভোট নিয়ে বিজেপির অন্দরে বিক্ষোভ চরমে। বিজেপির ডাকা ভার্চুয়াল বৈঠকে উঠে এল সুকান্ত মজুমদার বনাম রূপা গঙ্গোপাধ্যায়ের দ্বন্দ্ব। দলের রাজ্য সভাপতির বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছেন রূপা গঙ্গোপাধ্যায়। পরিস্থিতি এমন পরজায়ে যায় যে, বৈঠকের মাঝপথেই বৈঠক ছেড়ে উঠে যান রূপা গঙ্গোপাধ্যায়। এরপরেই কার্যত ভেস্তে যায় বিজেপির নির্বাচন কমিটির বৈঠক।

বিজেপির এই বৈঠকে দিল্লি থেকে উপস্থিত ছিলেন দলের সর্বভারতীয় সহ সভাপতি দিলীপ ঘোষ ও রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার। ছিলেন অমিতাভ চক্রবর্তী-সহ নির্বাচনী কমিটির সদস্যরা। রূপা বৈঠকের মাঝখানে হঠাৎই বলেন, ‘এরকম বৈঠকে আমাকে আর ডাকবেন না।’ এরপরই তিনি ভারচুয়ালি সংযোগ বিচ্ছিন্নও করে দেন। এদিকে রূপার ক্ষোভের কারণ স্পষ্ট নয় কারও কাছেই। তবে তাঁর একটি ফেসবুক পোস্ট নিয়ে গুঞ্জন মাথাচাড়া দিয়েছে। অনেকেই মনে করছেন, তিস্তা বিশ্বাসের স্বামী গৌরব বিশ্বাসের প্রার্থী না করায় অসন্তুষ্ট রূপা গঙ্গোপাধ্যায়।

এদিকে, রূপা গঙ্গোপাধ্যায়ের ফেসবুক পোস্ট থেকে এটা পরিষ্কার যে দুর্ঘটনায় তিস্তা বিশ্বাসের মৃত্যু হয়েছে তাঁর পিছনে অন্তরঘাতের সম্ভাবনা রয়েছে বলে মনে করছেন তিনি। তিনি আরও বলেন এই বিষয়ে দলের কোনও নেতা এই মুহূর্তে মুখ খুলতে রাজি নন এবং এই সম্পূর্ণ বিষয়টিকে ছোট করে দেখানোর চেষ্টা চলছে। তিস্তা বিশ্বাসের ওয়ার্ডে বিজেপি প্রার্থী করেছে রাজর্ষি লাহিড়ীকে। অন্যদিকে তিস্তা বিশ্বাসের স্বামী নির্দল প্রার্থী হয়ে মনোনয়ন জমা দিয়েছে এই ওয়ার্ডে। দলের সঙ্গে মতানৈক্য তৈরি হওয়ায় আগামি নির্বাচনে তাঁকে স্টার ক্যাম্পেনার হিসেবে নামানো যাবে কিনা সেই বিষয়ে সন্দিহান দল।

https://www.facebook.com/roopa.ganguly.31/posts/10158571190273786

গোলমালের সূত্রপাত ৮৬ নম্বর ওয়ার্ড নিয়ে। ৮৬ নম্বর ওয়ার্ডে বিজেপির বিদায়ী কাউন্সিলর প্রয়াত তিস্তা বিশ্বাসের স্বামী গৌরব বিশ্বাসের প্রার্থী হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু তা হয়নি। ক্ষুব্ধ গৌরব নির্দল হিসাবে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন। দলের পুরনো কর্মী গৌরববাবুর বক্তব্য, ‘কাকে সুবিধা করে দিতে বিজেপি আমাকে এই ওয়ার্ডে প্রার্থী করল না? আমি প্রার্থী হচ্ছি বলে সব ঠিক ছিল। প্রায় ১৫ বছর ধরে সক্রিয়ভাবে দলটা করে আসছি।’ এই ওয়ার্ডেরই বাসিন্দা রাজ্য বিজেপির সহ-সভাপতি রাজকমল পাঠককে এ বিষয়ে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি বলেন, ‘কলকাতা বা এই ওয়ার্ডে প্রার্থী করার ক্ষেত্রে তাঁর সঙ্গে কোনও আলোচনা করা হয়নি বা পরামর্শ নেওয়া হয়নি।’

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, কিছুদিন আগে দীঘা থেকে ফেরার সময় গাড়ি দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয় পুরপ্রতিনিধি এবং দক্ষিণ কলকাতায় বিজেপির সাংগঠনিক মুখ তিস্তা বিশ্বাসের। দুর্ঘটনা যেভাবে ঘটেছে তা নিয়ে এতদিন একক ভাবে অন্তরঘাতের অভিযোগ তুলছিলেন রূপা গঙ্গোপাধ্যায়। কিন্তু এই বিষয়ে দল তাঁর বক্তব্যের পাশে না দাঁড়ানোয় দলের সঙ্গে স্বাভাবিকভাবেই দুরত্ব তৈরি হয় রূপার।