শিয়ালদহ থেকে সরাসরি আলিপুরদুয়ার! শুরু হল বিদ্যুৎ চালিত তিস্তা-তোর্সা এক্সপ্রেসের পথচলা

শিয়ালদহ থেকে সরাসরি আলিপুরদুয়ার! শুরু হল বিদ্যুৎ চালিত তিস্তা-তোর্সা এক্সপ্রেসের পথচলা
শিয়ালদহ থেকে সরাসরি আলিপুরদুয়ার! শুরু হল বিদ্যুৎ চালিত তিস্তা-তোর্সা এক্সপ্রেসের পথচলা

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ কাটিয়ে ধীরে ধীরে ঘুরতে শুরু করেছে বাংলার পর্যটনশিল্পের চাকা। এর মধ্যেই এবার পাহাড়প্রেমীদের জন্য এল দারুণ খুশির খবর! অবশেষে শুরু হল নিউ আলিপুরদুয়ার থেকে শিয়ালদহগামী বিদ্যুৎ চালিত তিস্তা-তোর্সা এক্সপ্রেসের পথচলা। দীর্ঘদিন ধরেই ইলেকট্রিক ইঞ্জিনে চলা এই ট্রেন চালু করার কথাবার্তা চলছিল। অবশেষে বৃহস্পতিবার তা সত্যি হল। জানা গিয়েছে, নিউ আলিপুরদুয়ার থেকে সরাসরি শিয়ালদহ পর্যন্ত মিলবে ইলেকট্রিক ইঞ্জিন চালিত ওই এক্সপ্রেসের পরিষেবা। ফলে কলকাতার সঙ্গে উত্তরবঙ্গের যোগাযোগ যে আরও নিবিড় হল, এ কথা বলাই বাহুল্য।

এদিন কোভিড সতর্কতা মেনে ছোট একটি উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। এরপরেই বিদ্যুৎ চালিত তিস্তা-তোর্সা এক্সপ্রেস শিয়ালদহের উদ্দেশে রওনা দেয়। রেলের মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক গুনিত কৌর জানিয়েছেন, এদিনই প্রথম নিউ আলিপুরদুয়ার থেকে শিয়ালদহগামী ওই বিদ্যুৎ চালিত তিস্তা-তোর্সা ট্রেন চালানো হল। যদিও গত আট মাস আগে থেকেই নিউ কোচবিহার স্টেশন থেকে শিয়ালদহ পর্যন্ত বিদ্যুৎ চালিত তিস্তা-তোর্সা এক্সপ্রেস চলাচল করত। তবে এদিন আলিপুরদুয়ার থেকে শিয়ালদহ পর্যন্ত সরাসরি চালু হল এই ট্রেন।

রেল সূত্রে এও জানা গিয়েছে, আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই অসমের নিউ বঙ্গাইগাঁও স্টেশন পর্যন্ত চলা শুরু করবে বিদ্যুৎ চালিত যাত্রীবাহী এই ট্রেন। ইতিমধ্যেই নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশন থেকে গুয়াহাটির মধ্যে ইলেকট্রিফিকেশিনের কাজ শেষ হয়ে গিয়েছে। বুধবার থেকেই নিউ কোচবিহার থেকে নিউ বঙ্গাইগাঁও পর্যন্ত কয়েকটি মালবাহী ইলেকট্রিক ট্রেন চালানো হয়েছিল। রেল দপ্তরের আশা যে খুব শ্রীঘ্রই কামাখ্যা পর্যন্ত যাত্রীবাহী ইলেকট্রিক ট্রেন চালানো সম্ভব হবে।

প্রসঙ্গত, পর্যটকদের পাহাড়যাত্রাকে আরও আকর্ষণীয় করে তুলতে কার্শিয়াং থেকে মহানদী রুটে ‘রেড পাণ্ডা পর্যটক স্পেশ্যাল’ টয় ট্রেন চালু করেছে রেল কর্তৃপক্ষ। গত ১৬ অক্টোবর শুরু হয়েছে এই ট্রেনের যাত্রা। জানা গিয়েছে, দার্জিলিংয়ের পর্যটন ব্যবসা আরও জমজমাট করতে আগামী নভেম্বর মাস থেকেই শুরু হচ্ছে ‘ঘুম উৎসব’। পর্যটকদের কাছে ওই উৎসবকে আরও আকর্ষণীয় করে তোলার জন্যই ‘রেড পাণ্ডা পর্যটক স্পেশ্যাল ’ টয় ট্রেন চালু করা হয়েছে। এছাড়াও কার্শিয়াং-এ যাতে আরও পর্যটক সমাগম হয়, সেদিকে নজর রেখেও চালু হয়েছে ওই ট্রেন।