রবিবার, ০২ অক্টোবর, ২০২২

অটোচালক থেকে দেশের অন্যতম ‍‍`কমেডি কিং‍‍`! ফিরে দেখা রাজু শ্রীবাস্তবের জার্নি

মৌসুমী মোদক

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২১, ২০২২, ০১:৩৬ পিএম | আপডেট: সেপ্টেম্বর ২১, ২০২২, ০১:৩৬ পিএম

অটোচালক থেকে দেশের অন্যতম ‍‍`কমেডি কিং‍‍`! ফিরে দেখা রাজু শ্রীবাস্তবের জার্নি
অটোচালক থেকে দেশের অন্যতম ‍‍`কমেডি কিং‍‍`! ফিরে দেখা রাজু শ্রীবাস্তবের জার্নি

হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে গত প্রায় দেড় মাস ধরে দিল্লির এইমসে ভর্তি ছিলেন দেশের অন্যতম ‍‍`কমেডি কিং‍‍` রাজু শ্রীবাস্তব। গত ১০ অগাস্ট জিমে শরীরচর্চা করার সময় হঠাৎই বুকে ব্যথা নিয়ে এইমসে ভর্তি হন রাজু। এরপর তাঁর শারীরিক অবস্থার ক্রমশ অবনতি হতে থাকে। পরে অবস্থার কিছু উন্নতি হলেও ১ সেপ্টেম্বর থেকে ফের ভেন্টিলেশনে রাখতে হয় কমেডিয়ানকে। শেষ পর্যন্ত আর শেষ রক্ষা হল না। বুধবার সকালে ৫৮ বছর বয়সে প্রয়াত হলেন বলিউডের এই কৌতুকশিল্পী।

কমেডি জগতের অঘোষিত সম্রাট ছিলেন তিনি।  কৌতুকরসের জন্য সহজেই জায়গা করে নিয়েছিলেন দেশবাসীর মনে। তবে এই সাফল্য কিন্তু একদিনে আসেনি। বরং দিনের পর দিন পরিশ্রম করে বিনোদনের জগতে নিজের জায়গা করে নিয়েছিলেন রাজু শ্রীবাস্তব। একসময় অটো পর্যন্ত চালিয়েছেন। বহু স্ট্রাগলের পর সাফল্য এসে ধরা দেয় তাঁর কাছে। সেই কাহিনী হয়তো অনেকেরই অজানা৷

১৯৬৩ সালের ২৫ ডিসেম্বর উত্তরপ্রদেশের কানপুরে এক মধ্যবিত্ত পরিবারে জন্ম রাজুর। তাঁর আসল নাম সত্যপ্রকাশ শ্রীবাস্তব। রাজুর বাবা রমেশচন্দ্র শ্রীবাস্তব ছিলেন কবি। হিন্দি কবিতার দুনিয়ায় বড় অবদান তাঁর। ‍‍`বলাই কাকা‍‍` নামে খ্যাতি লাভ করেছিলেন রমেশ। তাঁর ছেলে হাঁটলেন সম্পূর্ণ ভিন্ন পথে। ছোট থেকেই তারকাদের গলা নকল করতে ভালবাসতেন রাজু। তাঁর এই প্রতিভার জন্য নিজের এলাকায় বেশ জনপ্রিয়তাও লাভ করেছিলেন তিনি। সেখান থেকেই কৌতুকশিল্পী হওয়ার ইচ্ছা জাগে রাজুর।

ছেলেবেলা থেকেই স্কুলের মাস্টারমশাইদের নকল করতেন রাজু। অন্য শিক্ষকরা বকুনি দিলেও, স্কুলের প্রিন্সিপাল কিন্তু বেশ পছন্দ করতেন। তাঁর আশকারা পেয়ে ধীরে ধীরে অমিতাভ বচ্চন, ধর্মেন্দ্রদের মতো তারকাদেরও অনুকরণ করতে শুরু করেছিলেন রাজু। এরপর সিদ্ধান্ত নেন অভিনেতা হবেন এবং মুম্বইয়ে চলে আসেন। আটের দশকে কানপুর থেকে মুম্বইয়ে এসেছিলেন রাজু। চোখে ছিল বড় হওয়ার স্বপ্ন। তবে এর জন্য প্রচুর স্ট্রাগলও করতে হয়েছিল তাঁকে।

মুম্বইতে পা দেওয়ার কিছু দিনের মধ্যেই বাড়ি থেকে আনা টাকা শেষ হয়ে যায়। চরম অভাব-অনটনের মুখে পড়েন রাজু। নিজের খরচ চালাতে নিরুপায় হয়ে অটোর স্টিয়ারিং ধরেন রাজু। তবে কৌতুকশিল্পী হওয়ার স্বপ্ন দেখা তখনও ছাড়েননি। ছোটখাটো অনুষ্ঠানে কৌতুক পরিবেশন করতে শুরু করেন তিনি। হঠাৎই এক দিন অটোচালক রাজুর সুযোগ জোটে এক হাস্যকৌতুকানুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার। এর পর আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাঁকে। নিজের মিমিক্রি করার দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে তিনি অংশ নেন The Great Indian Laughter Challenge-এ। এরপরেই জীবন বদলে যায় রাজুর।

ডিডি ন্যাশনালের বিখ্যাত কৌতুকানুষ্ঠান ‘টি টাইম মনোরঞ্জন’ থেকে শুরু করে ‘দ্য গ্রেট ইন্ডিয়ান লাফটার চ্যালেঞ্জ’, নিজের কৌতুক রসের দৌলতে দর্শকের মধ্যে বিশেষ ভাবে পরিচিত হন রাজু। প্রতিভার জোরে খুব তাড়তাড়ি দেশবাসীর ঘরের ছেলে হয়ে ওঠেন।‘দ্য গ্রেট ইন্ডিয়ান লাফটার চ্যালেঞ্জ’-এ দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছিলেন রাজু। এরপর ধীরে ধীরে টেলিভিশনের বিভিন্ন অনুষ্ঠানেও অংশ নেন রাজু। ২০০৯ সালে বিতর্কিত রিয়্যালিটি শো ‘বিগ বস’-এর তিন নম্বর সিজনে তিনি অংশ নিয়েছিলেন। ২০১৩ সালে স্ত্রীকে নিয়ে যোগ দেন ‘নাচ বলিয়ে সিজন ৬’-এ। ‘দ্য ইন্ডিয়ান মজাক লিগ’-এও অংশ নেন তিনি। জনপ্রিয় কৌতুকানুষ্ঠান ‘কমেডি নাইটস উইথ কপিল’-এও অতিথি হিসাবে হাজির হয়েছিলেন বেশ কয়েক বার। কৌতুকশিল্পী হিসাবে জনপ্রিয় হয়ে ওঠার আগে একাধিক বলিউড সিনেমাতেও ছোট ছোট চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন রাজু। এমনকি, ‍‍`আমদানি আঠান্নি খরচা রুপাইয়া‍‍`, ‍‍`ম্যায়নে প্যায়ার কিয়া’ এবং ‘বাজিগর’-এর মতো সিনেমাতে ছোট ছোট চরিত্রে অভিনয় করতে দেখা গিয়েছে তাঁকে।

২০১০ সালে পাকিস্তান থেকে প্রাণনাশের হুমকিও পেয়েছিলেন রাজু। ফোন করে এই হুমকি দেওয়া হয়েছিল রাজুকে। বিভিন্ন অনুষ্ঠানে পাকিস্তান এবং আন্ডারওয়ার্ল্ড ডন দাউদ ইব্রাহিমকে নিয়ে কৌতুক পরিবেশন করার জন্য তিনি এই হুমকি পেয়েছিলেন। রাজু একসময়ে রাজনীতিতেও পা দিয়েছিলেন। ২০১৪ সালে লোকসভা নির্বাচনে সমাজবাদী পার্টির হয়ে কানপুর থেকে প্রার্থী হন তিনি। কিন্তু তিনি দলের স্থানীয় ইউনিট থেকে যথেষ্ট সমর্থন পাচ্ছেন না, এই অভিযোগে প্রার্থীপদ থেকে নিজের নাম প্রত্যাহার করে নেন তিনি। এরপর রাজু বিজেপিতে যোগ দেন। পরবর্তীতে ‘স্বচ্ছ ভারত অভিযান’-এর অংশ হিসেবে  প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি রাজুর নাম মনোনীত করলে দেশের বিভিন্ন শহরে ঘুরে পরিচ্ছন্ন ভারত গড়ার প্রচার চালিয়েছিলেন তিনি। এহেন ব্যক্তিত্বের প্রয়াণে শোকস্তব্ধ বলিউড থেকে রাজনৈতিক মহল।