Fact Check: মণিপুরের ২ বছরের পুরনো ভিডিও শীতলকুচির বলে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল!

Fact Check: মণিপুরের ২ বছরের পুরনো ভিডিও শীতলকুচির বলে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল! জেনেনিন এর সত্যতা
Fact Check: মণিপুরের ২ বছরের পুরনো ভিডিও শীতলকুচির বলে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল! জেনেনিন এর সত্যতা

চতুর্থদফার ভোটচলাকালীন কোচবিহারের শীতলকুচিতে কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে ৪ জনের মৃত্যু হয়। যাকে কেন্দ্র করে রাজ্য রাজনীতির উত্তাপ ক্রমশ বেড়েই চলেছে৷ কেন্দ্রীয় বাহিনীর দাবী, শীতলকুচির ১২৬ নম্বর বুথে গ্রামবাসীদের হামলার অভিযোগেই গুলি চালিয়েছে তারা। কয়েকশো লোক নাকি হামলা চালায় কেন্দ্রীয় বাহিনীর ওপরে। তৃণমূল কংগ্রেসের তরফে ইতিমধ্যেই নির্বাচন কমিশনের কাছে ঘটনার পূর্ণঙ্গ তদন্ত দাবী করা হয়েছে। তবে নির্বাচন কমিশন বা প্রশাসনের তরফে এখনও কোনও ছবি বা ফুটেজ প্রকাশ করা হয়নি।

সম্প্রতি এই ঘটনাকে কেন্দ্র করেই একটি ভিডিও ভাইরাল হল নেটদুনিয়ায়। যেখানে দাবী করা হচ্ছে, ভিডিওটি নাকি শীতলকুচির ঘটনার প্রত্যক্ষ প্রমাণ। শীতলকুচির একটি বুথে নাকি ভাঙচুর চালিয়েছে তৃণমূল সমর্থকরা। সেই হামলাকারীদের সরাতেই গুলি চালিয়েছে কেন্দ্রীয় বাহিনী৷ ফলে খুব ভালো কাজ করেছে তারা। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভিডিওটি শেয়ার করে ফেসবুকে ক্যাপশন লেখা হয়, ‘শীতলকুচিতে কেন্দ্রীয় বাহিনী সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’

ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া ভিডিও
ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া ভিডিও

দুবছর পুরনো ওই ভিডিয়োটি @TNSubbaRao নামে একটি টুইটার হ্যান্ডল থেকে শেয়ার করা হয়েছে। লেখা হয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সমর্থকরা শীতলকুচির একটি বুথে জোর করে ঢুকছে। @Vaishnavi Gosha Bannarji হ্যান্ডল থেকেও ভিডিওটি শেয়ার করা হয়েছে। ভাষ্কর সামন্ত নামে এক ব্যক্তিও ফেসবুকে শেয়ার করেন ভিডিওটি।

তথ্য যাচাই

বংনিউজ২৪x৭ ভিডিওটি যাচাই করে দেখে ভিডিওটি আসলে ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনের। ঘটনাটি ঘটেছিল মণিপুরে। ভিডিওটি খুব ভালো করে দেখলে বোঝা যাবে শীতলকুচির ঘটনার দিন যে ফুটেজ বাংলার বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে সম্প্রচারিত হয়েছে তার সঙ্গে ভাইরাল হওয়া ভিডিওটির যথেষ্ট পার্থক্য রয়েছে। শীতলকুচির বুথে গুলি বা বিস্ফোরণের আওয়াজের সঙ্গে মানুষজনকে দৌড়ে পালাতে দেখা গিয়েছিল। বোমা পড়ার ছবিও ধরা পড়েছিল ফুটেজে। অথচ ভাইরাল হওয়া ভিডিওটিতে গুলি বা বিস্ফোরণের শব্দ পাওয়া গেলেও দেখা যাচ্ছ কেন্দ্রীয় বাহিনী ভোটারের লাঠি হাতে ঘেরা কম্পাউন্ড থেকে বের করে দিচ্ছে।

বংনিউজ২৪x৭ আরও রিসার্চ করে দ্যা নিউ ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের একটি ইউটিউব চ্যানেলে এই ভিডিওটি খুঁজে পায়। যেটি ১৮ এপ্রিল ২০১৯ আপলোড করা হয়েছিল। ভিডিওটির ক্যাপশনে লেখা, “India Elections 2019: Violence disrupts polling in Inner Manipur। বর্ণনায় লেখা, মণিপুরের একটি বুথে শূন্য গুলি চালিয়ে, লাঠিচার্জ করে গোলমালকারী জনতাকে সরিয়ে দিচ্ছে সিআরপিএফ। অভিযোগ জনতা ইনার মণিপুরের কায়ামেগি মুসলিম মাখা লেইকাইক বুথে জোর করে ঢোকার চেষ্টা করেছিল। ভিডিয়োটি খুব ভালো করে দেখলে বুথের নামও বোঝা যায়।

পরে আরও দুটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমও ভিডিওটি শেয়ার করে। @EastMojo হ্যান্ডল থেকেও ভিডিয়োটি শেয়ার করা হয়েছে। দেখা যায়, বুথটি একটি ঘেরা কম্পাউন্ডের মধ্যে। ওইদিন বুথে এভিএম বহুক্ষণ কাজ না করায় বুথে ভাঙচুর চালানোর চেষ্টা করে ভোটাররা।