ইংরেজবাজার থানার CUG মোবাইল নম্বর ব্যবহার করে, সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়ালো ভুয়ো তথ্য! রইল বিস্তারিত

ইংরেজবাজার থানার CUG মোবাইল নম্বর ব্যবহার করে, সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়ালো ভুয়ো তথ্য! রইল বিস্তারিত
ইংরেজবাজার থানার CUG মোবাইল নম্বর ব্যবহার করে, সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়ালো ভুয়ো তথ্য! রইল বিস্তারিত

নিজস্ব প্রতিনিধি, মালদাঃ এবার ইংরেজবাজার থানার আইসির cug মোবাইল নম্বর ব্যবহার করে, সোশ্যাল মিডিয়ায় ভুয়া তথ্য ছড়ানোর অভিযোগ উঠল। আর এই অভিযোগকে কেন্দ্র করে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে জেলা পুলিশ মহলে। শনিবার এই ঘটনা জানার পর, বিকেলে তড়িঘড়ি নিজের রুমে সাংবাদিক বৈঠক করেন ইংরেজবাজার থানার আইসি।

সাংবাদিক বৈঠকে তিনি বলেন যে, সোশ্যাল মিডিয়ায় যে ভুল তথ্য ব্যবহার করা হয়েছে, তাতে ওই থানার cug নম্বর ব্যবহার করা হয়েছে ও তার সঙ্গে আরেকটি মোবাইল নম্বর ব্যবহার করা হয়েছে। যেসব তথ্য ছাড়ানো হয়েছে, তা সম্পূর্ণরূপে মিথ্যে। তিনি বলেন যে, এই ধরনের কোনও তথ্য তাঁরা দেননি সোশ্যাল মিডিয়ায়। পাশাপাশি পুলিশের নামে মিথ্যে প্রচার করা হচ্ছে বলেও তিনি অভিযোগ করেন।

তিনি সাংবাদিকদের উদ্দেশে বলে যে, এই বিষয়টি প্রকাশ্যে আসার পর, তাঁদের পক্ষ থেকে পুরো বিষয়টি জেলা সাইবারক্রাইম থানাতে জানানো হয়। তার সঙ্গে এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগও করা হয়। ইতিমধ্যেই, তাঁদের অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করেছে জেলা সাইবারক্রাইম থানা।

শনিবার বিকেলে ইংরেজবাজার থানার আইসি মদন মোহন রায় থানায় বসেই সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে জানান, হঠাৎই তিনি আজ একটি বিশেষ কাজে যাচ্ছিলেন, তখনই তাঁর মোবাইলে একটি তথ্য তিনি দেখতে পান, সোশ্যাল মিডিয়ায় যে তথ্য লিখে ছাড়া হয়েছে, সেটি হল- আমাদের সুস্থ সমাজের এই লোকগুলি হল বড় ক্রিমিনাল, শয়তান, তোলাবাজ, মাফিয়া। এরা বিহার-ঝাড়খন্ড থেকে বহু ক্রাইম, লুট, চিটফান্ড করে। মালদায় একজন নেতার ছত্রছায়ায় থেকে, আমাদের সমাজের বহু মানুষের উপর দিনের-পর-দিন নির্বিচারে অত্যাচার করেছে। এরা গায়ের এবং অস্ত্রের জোরে আপনাদের বাড়ির ইয়ং ছেলেগুলোকে বিভিন্নভাবে ক্রিমিনাল এ পরিণত করছে। তাই সকলে সাবধান হোন। বহু non-bailable কেসে এদের পুলিশ, সিআইডি সন্ধান করছে। তাই আমরা সহযোগিতার জন্য জানাচ্ছি, যারা এনাদের খোঁজ দেবেন, তাদের সাত লক্ষ টাকা নগদ পুরস্কারও দেওয়া হবে। আসুন সকলে মিলে এই ক্রিমিনালদের সমাজ-ছাড়া করি। এর সঙ্গে ফোন নম্বরও দেওয়া হয়েছে। আর সেটি হল- যোগাযোগ 7001198651, 9083270308।

এই ভুয়ো প্রতিবেদনে যে চারজন অপরাধীর ছবি দেওয়া হয়েছে, তাঁরা হলেন সন্তোষ সিং, অমর দীপ, জিনিয়াস যাদব, অমিত সাহা। এদের প্রত্যেকের খোঁজ দিলে ৭ লক্ষ টাকা নগদ পুরস্কার দেওয়া হবে বলেও জানানো হয়েছে।

ইংলিশবাজার থানার আইসি মদন মোহন রায় জানান যে, ইংরেজবাজার থানার পুলিশের ভাবমূর্তি সাধারণ মানুষের কাছে খারাপ করার জন্যই সোশ্যাল মিডিয়ায় এমন তথ্য ছড়ানো হয়েছে। তবে, এই তথ্য কে বা কারা ছড়িয়েছে, সে সম্পর্কে তাঁরা একেবারেই অবগত নন। তিনি পরিষ্কারভাবে বলেন যে, সংশ্লিষ্ট থানা থেকে এমন কোনও তথ্য সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল করা হয়নি। আইসির দাবি, যারা এই কাজ করেছেন, তাঁরা পূর্বপরিকল্পিতভাবে এই কাজটি করেছে। যাঁদের ছবি ওই তথ্যে তুলে ধরা হয়েছে, তাঁদের চেনেন না বলেই তিনি দাবি করেছেন। সবশেষে, ইংরেজবাজার থানার আইসি মদন মোহন রায় জানিয়েছেন যে, খুব শীঘ্রই তদন্তে আসল সত্যিটা প্রকাশ্যে আসবে।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.