মাত্র ৩০ টাকায় ঘুরল ভাগ্যের চাকা! কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই কোটিপতি হলেন বীরভূমের এই ফেরিওয়ালা

মাত্র ৩০ টাকায় ঘুরল ভাগ্যের চাকা! কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই কোটিপতি হলেন বীরভূমের এই ফেরিওয়ালা
মাত্র ৩০ টাকায় ঘুরল ভাগ্যের চাকা! কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই কোটিপতি হলেন বীরভূমের এই ফেরিওয়ালা

মাত্র ৩০ টাকা! আর তাতেই ঘুরল ভাগ্যের চাকা। রাতারাতি ফেরিওয়ালা থেকে কোটিপতি হয়ে উঠবেন বীরভূমের এক যুবক। মাত্র কয়েক ঘণ্টার মধ্যে বদলে গেল তাঁর ললাট লিখন। কীভাবে সম্ভব হল এই আশ্চর্য বদল? জানালেন যুবক নিজেই।

যুবকটি বীরভূমের দুবরাজপুর থানার অন্তর্গত ইসলামপুরের আশরাফী পাড়ার বাসিন্দা। নাম শেখ এহসান৷ পেশায় তিনি একজন ফেরিওয়ালা। প্লাস্টিকের নানা রকমের জিনিসপত্র ফেরি করে সংসারের খরচ চালান তিনি। অত্যন্ত দরিদ্র এক পরিবারে খড়ের চাল দেওয়া বাড়িতে স্ত্রী, দুই সন্তান এবং বাবা-মার সঙ্গে থাকেন যুবক। ফেরি করে রোজ গড়ে ২০০ টাকা রোজগার হয়। সেই টাকাতেই চলে সংসার।

তবে যুবকটির একটি নেশাও রয়েছে। রোজগারের টাকা থেকে প্রতিদিন ৬০ টাকা খরচ করে লটারি টিকিট কেটে থাকেন এহসান। প্রতিদিনের সেই নেশা মতই সোমবার সকালেও ৩০ টাকার টিকিট কাটেন তিনি। দুপুর বেলায় সেই টিকিটের রেজাল্ট বেরোয়। আর তখনই দেখা যায় তাতে প্রথম পুরস্কার এক কোটি টাকা পেয়েছেন এহসানই।

এই খবর পাওয়া মাত্রই ওই যুবকের বাড়িতে ভিড় জমান স্থানীয় বাসিন্দারা। চিন্তায় পড়ে তড়িঘড়ি নিরাপত্তার জন্য দুবরাজপুর থানার দ্বারস্থ হন এহসান। এরপর পুলিশের তরফ থেকে তাঁকে সমস্ত রকম নিরাপত্তা দেওয়া হয়েছে৷ অন্যদিকে কোটপতি হওয়ার আনন্দে উচ্ছ্বসিত এহসান জানিয়েছেন, তিনি এবং তার বাবা বংশ-পরম্পরায় ফেরিওয়ালার ব্যবসায় যুক্ত। অর্থের অভাবে এভাবেই সংসার চলে তাঁদের। তবে এই বিপুল পরিমাণ অর্থ পাওয়ার পর তাঁর স্বপ্ন নিজের পছন্দের একটি বাড়ি বানানো। পাশাপাশি নিজের ছেলেমেয়েদের উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিতও করতে চান এহসান।