‘অর্থ এবং নারী চক্রে জড়িয়েছে বিজেপি’ মন্তব্যের জের! তথাগতর বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের

‘অর্থ এবং নারী চক্রে জড়িয়েছে বিজেপি’ মন্তব্যের জের! তথাগতর বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের
‘অর্থ এবং নারী চক্রে জড়িয়েছে বিজেপি’ মন্তব্যের জের! তথাগতর বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ বিজেপির রাজ্যে নেতৃত্বের সঙ্গে তাঁর সংঘাত ক্রমশ বেড়েই চলেছে। এই সংঘাত মেটার নয় বলে মনে করছেন অনেকেই। ক্রমশ ফাটল আরও চওড়া হচ্ছে। একুশের বিধানসভা নির্বাচনের পর থেকেই ক্রমাগত রাজ্য শীর্ষ নেতৃত্বকে আক্রমণ করে চলেছেন মেঘালয়ের প্রাক্তন রাজ্যপাল তথা বিজেপির বর্ষীয়ান নেতা তথাগত রায়। দিলীপ ঘোষ, কৈলাস বিজয়বর্গীয়দের ক্রমাগত নিশানা করে চলেছেন তিনি।

দিলীপ ঘোষের কটাক্ষের পরেও তিনি যে দমে যাননি, তার প্রমাণ সম্প্রতি তথাগত রায়ের নতুন টুইট। রাজ্য নেতৃত্বের উদ্দেশে ফের চড়া সুরে আক্রমণ শানিয়েছেন তিনি। শুধু আক্রমণ করাই নয়, দলের বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগও এনেছেন বর্ষীয়ান এই বিজেপি নেতা। তাঁর নয়া ধারাবাহিক বিস্ফোরক টুইট ঘিরে ইতিমধ্যেই রাজ্য রাজনীতিতে শুরু হয়েছে জোর চর্চা। এদিকে, তথাগত রায়ের সাম্প্রতিকতম টুইটকে হাতিয়ার করেই তাঁর বিরুদ্ধে দায়ের হল এফআইআর।

উল্লেখ্য, সোমবারই একাধিক টুইটে বিস্ফোরক করেন তথাগত রায়। তার মধ্যেই একটি টুইটে তিনি দাবি করেন, ‘৩ থেকে ৭৭ (এখন ৭০) গোছের আবোলতাবোল বুলিতে পার্টি পিছোবে, এগোবে না। অর্থ এবং নারীর চক্র থেকে দলকে টেনে বার করা অত্যাবশ্যক। দলের নবনিযুক্ত সভাপতি ও বিরোধী দলনেতা-এঁরা দুজনে নেতৃত্ব দিন। পুরোনো চক্রে ফেঁসে থাকলে এখন যে পুরভোটের প্রার্থী পাওয়া যাচ্ছে না এরকম অবস্থাই চলবে।’ ইতিমধ্যেই এই টুইটকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে দলের অন্দরে।

সেই টুইটকেই সামনে এনে, সায়ন বন্দ্যোপাধ্যায় নামে কলকাতা হাইকোর্টের এক আইনজীবী তথাগত রায়ের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। চিঠিতে তিনি লিখেছেন, ‘আমি জানতে পারি ত্রিপুরা ও মেঘালয়ের প্রাক্তন রাজ্যপাল তথাগত রায় অভিযোগ করেন, ২০২১ সালে বাংলা বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি অনৈতিকভাবে অর্থ ও নারী আদান প্রদান করেছে। পরবর্তী সময় তিনি তাঁর অফিসিয়াল টুইটারে এ কথা লেখেনও। পাশাপাশি তাঁর আরও অভিযোগ, বাংলায় বিজেপি নেতারা নারী চক্রে জড়িয়ে পড়েছেন। ইতিমধ্যেই নারী সংক্রান্ত অপরাধে গেরুয়া শিবিরের নেতাদের বিরুদ্ধে মহিলা কমিশনে একাধিক অভিযোগ জমা পড়েছে। একজন নাগরিক হিসেবে গোটা ঘটনা আমায় ভাবিয়েছে। এধরনের অভিযোগ আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ। তাই বিষয়টি তদন্ত করে দেখার আবেদন জানাচ্ছি।’

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এর আগে রবিবারও টুইটারে তোপ দাগেন তথাগত রায়। স্বেচ্ছায় যে তিনি বিজেপি ছাড়ছেন না, সেই টুইটে তা স্পষ্ট করে দেন। সেই সঙ্গে হুঁশিয়ারিও দেন। তিনি বলেন, দল ছাড়তে পারলে অনেকের অনেক গোপন কীর্তিই তিনি ফাঁস করে দেবেন।