ভরসন্ধ্যায় বাড়ির সামনেই তৃণমূলের যুব নেতাকে লক্ষ্য করে চলল গুলি

ভরসন্ধ্যায় বাড়ির সামনেই তৃণমূলের যুব নেতাকে লক্ষ্য করে চলল গুলি
ভরসন্ধ্যায় বাড়ির সামনেই তৃণমূলের যুব নেতাকে লক্ষ্য করে চলল গুলি/ প্রতীকী ছবি

আবারও শ্যুট আউটের ঘটনা ঘটল ক্যানিংয়ে। এদিন বাড়ির সামনেই তৃণমূলের যুব নেতা তথা নিকারিঘাটা অঞ্চল যুব তৃণমূলের সভাপতি মহরম শেখকে লক্ষ্য করে গুলি চালানোর অভিযোগ উঠল। শনিবার এই ঘটনায় মুহূর্তেই চাঞ্চল্য ছড়ায় সংশ্লিষ্ট এলাকায়। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাঁকে ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তবে অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে
কলকাতার চিত্তরঞ্জন হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়।

স্থানীয় সূত্রে খবর, এদিন রাত আটটার কিছু পরে দলীয় অফিস থেকে কাজ সেরে বাইক করে বাড়ি ফিরছিলেন মহরম শেখ। সেই সময় তাঁকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে দুষ্কৃতীরা। দুটি গুলি লাগে তাঁর বুকে। মুহূর্তেই রক্তে ভেসে যায় ওই স্থান লুটিয়ে পড়েন তৃণমূলের ওই যুব সভাপতি। স্থানীয়রা তখন তাঁকে তড়িঘড়ি ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে যান। এরপরেই আঘাত গুরুতর বুঝতে পেরেই চিকিৎসকরা তাঁকে চিত্তরঞ্জন হাসপাতালে স্থানান্তর করে দেন।

প্রসঙ্গত, মাস কয়েক আগেও একবার মহরমের উপর গুলি চলার ঘটনা ঘটেছিল। সেবার তাঁর পায়ে গুলি লেগেছিল। বিষয়টি যুব তৃনমূলের তরফ থেকে পুলিশ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হলেও এ বিষয়ে কোনোরকম পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি বলেও অভিযোগ করছে শাসক দল।

এদিকে, এই ঘটনায় কে বা কারা জড়িত সে বিষয়টি এখনও পরিষ্কার নয়। তবে আততায়ীদের মধ্যে কয়েকজনকে চিনতে পেরেছে মহরম ও তার পরিবারের সদস্যরা। সেই সূত্র ধরেই আততায়ীদের খোঁজ করছে ক্যানিং থানার পুলিশ। দলীয় কর্মীকে গুলি করে খুনের চেষ্টার খবর পেয়ে ক্যানিং পশ্চিম এর বিধায়ক পরেশ দাস ও তৃণমূলের রাজ্য সাধারণ সম্পাদক তথা ক্যানিং পূর্ব বিধানসভার বিধায়ক শওকাত মোল্লা ক্যানিং হাসপাতালে আসেন। এই ঘটনায় দোষীদের কঠোর শাস্তির দাবি করেছেন দুজনেই।