দেশ

কৃষকদের কাঁধে বন্দুক রেখে সরকারকে নিশানা করা হচ্ছে, সামনে এসে কৃষি বিল নিয়ে সাফাই প্রধানমন্ত্রীর

কৃষি বিল নিয়ে বিপুল চাপের মুখে পড়েছে মোদি সরকার। আর এই পরিস্থিতিতে সামনে এসে সরকারের পক্ষে সাফাই দিতে বাধ্য হলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।শুক্রবার সংঘ পরিবার-এর সদস্য দীনদয়াল উপাধ্যায়ের ১০৪তম জন্মবার্ষিকীতে বলেন, ব্যক্তিগত স্বার্থে কিছু মানুষ কৃষকদের ভুল বুঝাচ্ছে। এতদিন ধরে যারা কৃষকদের তাদের প্রাপ্য থেকে বঞ্চিত রেখেছিল, তারা এখন কৃষকদের কাঁধে বন্দুক রেখে সরকারকে নিশানা করছে। বর্তমান প্রেক্ষাপটে প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্য অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে।

বাদল অধিবেশন চলাকালীন প্রায় বিরোধী-শূন্য অবস্থাতে সংসদে শ্রমিক বিল পাশ করিয়ে নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। একই সঙ্গে কৃষি বিল নিয়ে চলছে তুমুল তুলকালাম। বিরোধীদলগুলি রীতিমতো বিক্ষোভের পথে হাঁটছে। এতদিন পর্যন্ত নরেন্দ্র মোদির মন্ত্রিসভার সদস্যরা এই পরিস্থিতি সামাল দিতে চেষ্টা করছিলেন। কিন্তু শেষমেশ আসরে নামতে হল প্রধানমন্ত্রীকে।

এদিনের বক্তব্যে তিনি বলেন, যারা এতদিন পর্যন্ত মিথ্যে কথা বলে কৃষকদের পাওনা থেকে বঞ্চিত রেখেছিল এখন তারাই তাদের ভুল বোঝাচ্ছে। কৃষকদের উন্নতিতে সরকারের ভূমিকা প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বেশির ভাগ কৃষকদের হাতে ক্রেডিট কার্ড তুলে দেওয়া হয়েছে। এতদিন পর্যন্ত যাদের ২ হেক্টর পর্যন্ত জমি ছিল তারা কিসান ক্রেডিট কার্ড পেতেন। কিন্তু বর্তমানে সকলেই এই সুবিধা পাচ্ছেন। দেশের কৃষকদের ওপর কোন রকম ভাবে কর বৃদ্ধি করা হয়নি। আগের থেকে দেড় গুণ বেশি বেড়েছে সহায়ক মূল্য পাচ্ছে কৃষকরা। এছাড়াও ব্যাঙ্কের সঙ্গে কৃষকদের সরাসরি সংযোগ স্থাপনের চেষ্টা করা হয়েছে, বলে দাবি করেছেন প্রধানমন্ত্রী। বিরোধীধের নিশানা করে তিনি বলেন, স্বাধীনতার পর বহু দশক ধরে কৃষকদের উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু সেই প্রতিশ্রুতি রাখেনি আগের সরকার। এতদিন পর্যন্ত তাদের ভুল বুঝিয়েছিল আগে সরকার।

পাশাপাশি এদিন শ্রমিক আইন নিয়ে সাফাই দিয়ে তিনি বলেন, আগের শ্রমিক আইনে দেশের মহিলা শ্রমিকদের জন্য কোন নিরাপত্তা ছিল না। কিন্তু নতুন আইনে নারী-পুরুষ সমান সমান অধিকার পাবেন। এছাড়াও আগামী দিনে সমস্ত অসংগঠিত ক্ষেত্রে শ্রমিকরা যাতে ন্যূনতম বেতন পান তা নিশ্চিত করা হয়েছে বলেও দাবি করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি আরো বলেন, কৃষকদের মত শ্রমিকদেরও বহুদিন ধরে প্রতিশ্রুতির জালে আটকে রাখা হয়েছে। তাদের সেই গোলকধাঁধা থেকে বের করে আনার চেষ্টা করছে এই সরকার।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.

Back to top button