খেলেছেন বিশ্বকাপ ফাইনাল! শেহওয়াগকে ১০০ না করতে দেওয়া শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটার পেটের দায়ে এখন বাসচালক

খেলেছেন বিশ্বকাপ ফাইনাল! শেহওয়াগকে ১০০ না করতে দেওয়া শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটার পেটের দায়ে এখন বাসচালক
খেলেছেন বিশ্বকাপ ফাইনাল! শেহওয়াগকে ১০০ না করতে দেওয়া শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটার পেটের দায়ে এখন বাসচালক

২০১১ সালের ২ এপ্রিল৷ মুম্বইয়ের মাঠে শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে ভারত দ্বিতীয়বারের মতো হাতে তুলেছিল ক্রিকেট বিশ্বকাপ। ভারতের বিরুদ্ধে বিশ্বকাপ ফাইনামে শ্রীলঙ্কান দলের সদস্য ছিলেন তিনি। জয়বর্ধনে, কুমার সাঙ্গাকারা, তিলকরত্নে দিলশান, মুথিয়া মুরলীধরনের মতো কিংবদন্তি তারকার পাশাপাশি ফাইনালে মাঠে নেমেছিলেন সুরজ রণদিভও। তবে সংসার চালাতে প্রাক্তন এই ক্রিকেটার এখন বাসচালকের পেশা বেছে নিয়েছেন। শ্রীলঙ্কা ছেড়ে তিনি এখন অস্ট্রেলিয়ায়। মেলবোর্নের পরিবহন সংস্থা বা বাস কোম্পানি ট্রান্সডেভের হয়ে বাস চালাচ্ছেন তিনি।

শ্রীলঙ্কার হয়ে আন্তর্জাতিক মঞ্চে রণদিভের অভিষেক ২০০৯ সালে। শ্রীলঙ্কার হয়ে তিন ফর্ম্যাটের ক্রিকেটেই প্রতিনিধিত্ব করেছেন তিনি। ১২টি টেস্টে ৪৬টি উইকেট আছে তাঁর। এছাড়াও ৩১টি ওয়ানডেতে ৩৬টি উইকেট এবং ৭টি টি-২০তে ৭টি উইকেট নিয়েছেন। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে রনদীভের সর্বোচ্চ স্কোর ৫৬। ২০১১ সালের বিশ্বকাপ ফাইনালে বল হাতে ৯ ওভারে ৪৩ দিয়েছিলেন রণদিভ। তবে কোনও উইকেট পাননি। আইপিএলে চেন্নাই সুপার কিংসের হয়েও খেলেছেন তিনি। ২০১২ সালে এই ফ্রেঞ্চাইজিকে চ্যাম্পিয়ন করতেও সাহায্য করেছিলেন। ওই মরশুমে সিএসকের হয়ে খেলে রণদিভ ৮টি ম্যাচে ৬টি উইকেট নিয়েছিলেন। শেষ ঘরোয়া ম্যাচ ২০১৯ এর এপ্রিল মাসে।

রণদিভের সঙ্গে জড়িয়ে আছে আরও একটি ঘটনা। ভারতীয় ক্রিকেটে সূরজ রণদিভ তাঁর করা নো বলের জন্য সবচেয়ে বেশি পরিচিত। ২০১০ সালে একদিনের ম্যাচে জয়ের জন্য বাকি ছিল মাত্র ১ রান। ৯৯ রানে ব্যাট করছিলেন বীরেন্দ্র শেহওয়াগ। কিন্তু নো-বল করেছিলেন রণদিভ। সে কারণে ছক্কা মেরেও শতরান করতে পারেননি শেহওয়াগ। এ জন্য তাঁকে সাসপেন্ডও হতে হয়েছিল৷ পরে অবশ্য তা নিয়ে ক্ষমাও চেয়েছিলেন রণদিভ।

বর্তমানে, অস্ট্রেলিয়ায় বাস চালানো ছাড়াও স্থানীয় সার্কিটে ক্রিকেট খেলেন ৩৬ বছরের রণদিভ। অস্ট্রেলিয়ায় ডান্ডেনাং ক্রিকেট ক্লাবের হয়ে খেলেন তিনি। ওই ক্লাবের হয়ে জেমস প্যাটিসন, পিটার সিডলের মতো তারকারাও খেলেন। ভারতীয় দলের অস্ট্রেলিয়া সফরের সময় এমসিজিতে অস্ট্রেলিয়া দলকে স্পিন বোলিং প্র্যাকটিসও করিয়েছিলেন রণদিভ। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার রাজ্য স্তরের প্রতিযোগিতাতেও অংশগ্রহন করেন তিনি। আপাতত তাঁর আশা তাঁর বাস চালনা সংস্থা ট্রান্সডেভ ভবিষ্যতে নিজেদের ক্রিকেট দল বানাবে৷ সেখানেও অংশ নিতে চান রণদিভ।