করোনা আতঙ্কের মধ্যে খানিক আশার আলো, বুধবার রাজ্যে আসছে আরও ৪ লক্ষ ভ্যাকসিন

করোনা আতঙ্কের মধ্যে খানিক আশার আলো, বুধবার রাজ্যে আসছে আরও ৪ লক্ষ ভ্যাকসিন
করোনা আতঙ্কের মধ্যে খানিক আশার আলো, বুধবার রাজ্যে আসছে আরও ৪ লক্ষ ভ্যাকসিন

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ গোটা দেশের পাশাপাশি এ রাজ্যে ভোটের আবহে দ্রুত গতিতে বাড়ছে করোনার সংক্রমণ। বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যাও। কোথাও কোথাও হাসপাতালে বেড পাওয়া যাচ্ছে না। অক্সিজেনের পর্যাপ্ত পরিমাণ জোগান নিয়েও প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।

এই রকম একটা জটিল পরিস্থিতিতে খানিক আশার আলো ছড়িয়ে, আজই রাজ্যে আসতে চলেছে ৪ লক্ষ ভ্যাকসিন। জানা বগিয়েছে, বুধবার দুপুরের মধ্যেই কোভিশিল্ডের ৪ লক্ষ ভ্যাকাসিন রাজ্যে ঢুকতে চলেছে।

এই ভ্যাকসিন আসার পর, তা বাগবাজারের রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের স্টোরে যাবে ওই করোনা ভ্যাকসিন। এরপর সন্ধ্যা থেকে বিভিন্ন জেলাগুলিতে তা পাঠানোর প্রক্রিয়া শুরু হবে বলেই স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে। ভ্যাকসিন পেতে সমস্যা দেখা দেওয়ায়, ইতিমধ্যেই রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের তরফে তৎপরতা শুরু হয়ে গেছে। জানা গিয়েছে, কেন্দ্রের কাছে আরও ভ্যাকসিন পাঠানোর আর্জি জানানো হবে চলতি সপ্তাহের মধ্যেই। আর চলতি সপ্তাহে রাজ্যে আরও ভ্যাকসিন ঢুকবে বলেই স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে খবর।

উল্লেখ্য, সোমবারই রাজ্যে এসেছে ৩ লক্ষ কোভিশিল্ড। সোমবার বিকেলে, এয়ার এশিয়ার বিমানে করে সেরাম ইন্সটিটিউটের এই করোনা প্রতিষেধক রাজ্যে এসে পৌঁছায়। এরপর আজ আবার আসতে চলেছে ভ্যাকসিন।

কোভিশিল্ড ভ্যাকাসিন

রাজ্যে করোনার সংক্রমণ বাড়তে থাকায়, মানুষের মধ্যে ভ্যাকসিন নেওয়ার ব্যস্ততা শুরু হয়ে গিয়েছে। আর তাই চাহিদা অনুযায়ী জোগান না থাকায় সংকট শুরু হয়। কলকাতা থেকে শুরু করে বিভিন্ন জেলার মানুষকে ভ্যাকসিন পেতে চূড়ান্ত হয়রান হতে হচ্ছে বেশ কয়েকদিন ধরেই। গত কয়েকদিন ধরে কলকাতার বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালে ভ্যাকসিনের জন্য দিনভর বিশাল লাইন লক্ষ করা গেছে। কোনও হাসপাতাল আবার পরিস্থিতি সামাল দিতে কুপনের ব্যবস্থাও এনআরএস কর্তৃপক্ষ। এক্ষেত্রে যারা ভ্যাকসিন পাচ্ছেন না, তাঁদের কুপন দিয়ে অন্যদিন আসতে বলা হচ্ছে। জেলার চিত্রটাও একই রকম।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ফের একবার রাজ্যের ক্ষমতায় আসলে, রাজ্যবাসীকে বিনামূল্যে করোনা টিকা দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই ঘোষণা অনুযায়ী, তৃণমূল ক্ষতায় এলে, আগামী ৫ মে থেকে রাজ্যে বিনামূল্যে করোনা টিকা মিলবে। ইতিমধ্যেই বাংলায় এক কোটির বেশি মানুষকে করোনার টিকা দেওয়া হয়েছে।

এই পরিস্থিতিতে নির্বাচন কমিশনের থেকে আগাম এবং লিখিত অনুমতি নিয়ে প্রশাসনের শীর্ষকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই বৈঠকে তিন কোটি করোনার ভ্যাকসিন জোগাড় করার পরিকল্পনা নিয়েছে রাজ্য সরকার। সূত্রের খবর, সরকার যেমন এ ব্যাপারে উদ্যোগ নিচ্ছে, বেসরকারি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকেও একই পদক্ষেপ করার সুপারিশ দেওয়া হয়েছে প্রশাসনের পক্ষ থেকে।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.