শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে প্রতিদিন খান ঘি

বন্ধু তোমায় পেয়েছিলাম সব হারানোর মাঝে, দিগদিগন্ত নিকষ কালো আমার সকাল সাঁঝে। ভেজা চোখের পাতায় যখন স্মৃতিরা কাঁদায়,হাসায়, তখন তোমার গানের সুর আমার মনকে ভাসায়। রাতজাগানিয়া গল্প কথায় দুঃখ ভুলে যাই, অসুখ মনের সুখী দিনে চেয়েছিলাম তাই।
বন্ধু তোমায় পেয়েছিলাম সব হারানোর মাঝে, দিগদিগন্ত নিকষ কালো আমার সকাল সাঁঝে। ভেজা চোখের পাতায় যখন স্মৃতিরা কাঁদায়,হাসায়, তখন তোমার গানের সুর আমার মনকে ভাসায়। রাতজাগানিয়া গল্প কথায় দুঃখ ভুলে যাই, অসুখ মনের সুখী দিনে চেয়েছিলাম তাই।

প্রতিদিন ঘি খেলে কী কী উপকার পাবেন, জেনে নিন এখনই-
১. নিয়মিত ঘি খেলে শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। বিশেষ করে ঋতু পরিবর্তনের সময় চট করে রোগ-জীবাণু আপনাকে সহজে কাবু করতে পারবে না।
২.দুপুরে ভাতের সাথে ঘি খেলে পেট ভরা থাকে অনেকক্ষণ। ফলে বিকেলে জাঙ্ক ফুড খাওয়ার ইচ্ছেটাও আস্তে আস্তে কমে যায়। খাওয়ার পর অনেকেরই ঘুম পায়। পাতে রোজ ঘি খেলে সেই সমস্যাও কমে যায়।
৩.রাতে নিয়মিত ঘি খেলে ঘুম যেমন ভালো হয় সাথে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যাও কমে। খাবার হজম হয় খুব তাড়াতাড়ি। যারা কোলেস্টেরল বা হাই ব্লাড প্রেসারের রোগী তারাও সমস্যা কমাতে রোজ নিশ্চিন্তে ঘি খেতে পারেন। নিয়মিত ঘি খেলে লিপিড প্রোফাইল কমে।

৪.কতটা ঘি খাবেন সেটাও অবশ্যই লক্ষ্য রাখতে হবে। যতটা ঘি দিলে খাবারের স্বাদ নষ্ট না হয় ততটা পর্যন্ত ঘি রান্নায় বা পাতে দিতেই পারেন। তবে প্রত্যেকের ৩-৬ চামচ ঘি রোজ খাওয়া উচিত। দেশি গরুর দুধ থেকে বানানো গাওয়া ঘি খাওয়া বেশি উপকারি। বাড়িতে ঘি তৈরি করে নিতে পারলে আরও ভালো হয়।
৫.বাইরে অনেক সময়েই দোকানে অর্গানিক মাখন পাওয়া যায়। তার থেকে বেশি উপকারি দেশি গরুর দুধ থেকে বানানো দুধের প্রোডাক্ট। যাদের ঠাণ্ডার সমস্যা তারা সারা বছরই কম-বেশি বন্ধ নাকের সমস্যায় ভোগেন। আয়ুর্বেদ বলছে, রোজ ঘুম থেকে ওঠার পর দু-তিন ফোঁটা ঘি গরম করে নাকে দিয়ে টানলে এই সমস্যা থেকেও সুরাহা পাবেন।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.