ভুল তথ্য দিচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী! পাল্টা জবাব রাজ্যপালের

ভুল তথ্য দিচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী! পাল্টা জবাব রাজ্যপালের
ভুল তথ্য দিচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী! পাল্টা জবাব রাজ্যপালের

হাওয়ালা জৈন মামলায় এখনও পর্যন্ত কেউ দোষী সাব্যস্ত হয়নি, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অভিযোগের প্রেক্ষিতে পাল্টা জবাব দিলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকর। সেইসঙ্গে এদিন সংবাদমাধ্যমের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন রাজ্যপাল।

নবান্নে এদিন সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ”রাজ্যপাল এক জন আদ্যপান্ত দুর্নীতিগ্রস্ত মানুষ। হাওড়ার জৈন হাওয়ালা-কাণ্ডের চার্জশিটেও ওঁর নাম ছিল।” এই মন্তব্যের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই সাংবাদিক বৈঠকে তার জবাব দিলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। বলেন, ”মুখ্যমন্ত্রী ভুল তথ্য দিচ্ছেন।”

এদিন রাজ্যপাল প্রশ্ন তুলে বলেন, “করোনা অতিমারি নিয়ে ২ হাজার কোটি টাকার দুর্নীতি হয়েছে। সেই দুর্নীতির বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রী চুপ কেন, তদন্তের রিপোর্ট কেন সামনে আসছে না?” অন্যদিকে, এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মতো একজন সিনিয়র রাজনীতিবিদের মুখে এমন ‘সোজাসাপ্টা অসত্য’ দুর্ভাগ্যজনক বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

তাঁর কথায়, “কখনও ভাবিনি মমতার মতো নেতা উত্তেজনা তৈরির জন্য এমন মন্তব্য করবেন।” এর পরই রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে একের পর এক অভিযোগের তির ছোঁড়েন তিনি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কেন রাজ্যপালের বিরুদ্ধে এই মারাত্মক অভিযোগ আনলেন, তারও ব্যাখ্যা দিয়েছেন ধনকড়।

তাৎপর্যপূর্ণ ভাবে এদিন মুখ্যমন্ত্রীকে নিজের ছোট বোন বলেও উল্লেখ করে রাজ্যপাল। বলেন, “ভারতীয় সংস্কৃতিতে বোনের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করা যায় না। তাই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অসত্য তথ্য দিলেও কোনও পদক্ষেপ করব না।”

রাজ্যপাল যোগ করেন, আজকের সাংবাদিক বৈঠকের মিনিট দশেক আগেই নাকি তাঁদের মধ্যে ফোনে কথাও হয়। উত্তরবঙ্গে গিয়ে এমন পরিস্থিতি দেখে এসেছেন রাজ্যপাল তা অবর্ণনীয়, এবং কল্পনাতীত, জানিয়েছেন জগদীপ ধনকড়। নির্বাচনের ক্ষেত্রেও একই প্রশ্ন তুলেছেন রাজ্যপাল।