পদ্মশ্রী সম্মানে ভূষিত ‘গুরুমা’ কমলি সোরেন ফিরলেন গ্রামে! ফুলে-মালায় সংবর্ধনা মালদাবাসীর

পদ্মশ্রী সম্মানে ভূষিত ‘গুরুমা’ কমলি সোরেন ফিরলেন গ্রামে! ফুলে-মালায় সংবর্ধনা মালদাবাসীর
পদ্মশ্রী সম্মানে ভূষিত ‘গুরুমা’ কমলি সোরেন ফিরলেন গ্রামে! ফুলে-মালায় সংবর্ধনা মালদাবাসীর

নিজস্ব প্রতিনিধি মালদহঃ চলতি মাসের ৯ তারিখ রাষ্ট্রপতি ভবনে রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের হাত থেকে পদ্মশ্রী পুরস্কার নিয়েছেন মালদার গাজোল থানার প্রত্যন্ত গ্রাম কোটালহাটি গ্রামের মেয়ে গুরুমা কমলি সোরেন। সমাজসেবক হিসেবে তাঁর কাজের জন্যই তাঁকে এই সম্মানে ভূষিত করা হয়েছে। গুরুমার দাবি, “আদিবাসীদের ভুল বুঝিয়ে ধর্মান্তরিত করা হচ্ছে। তাঁদের মূলস্রোতে ফিরিয়ে আনাই আমার একমাত্র লক্ষ্য।” আর এই কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ তাঁকে পদ্মশ্রী সম্মানে ভূষিত করল।

পদ্মশ্রী সম্মান গ্রহণের পর, এদিন তিনি সকালে মালদা গৌড় স্টেশনে নামেন। সেখানে তাঁকে ভক্তরা সংবর্ধনা জানান। পাশাপাশি মালদা টাউন স্টেশন থেকে হুডখোলা গাড়িতে করে রোড-শো করা হয়। গাজলের তুড়ি মোড়। সেখান থেকে পাঁচ কিলোমিটার গেলেই কোটালহাটি গ্রাম। গ্রামের আশেপাশে যাকেই জিজ্ঞাসা করবেন, কমলি সোরেনকে চেনেন, তেমন কোনও সদুত্তর পাবেন না হয়ত। তারপরে হয়তো আরও পরিষ্কার করে বোঝাতে জানতে চাইলে যদি বলেন, ‘গুরুমা’কে চেনেন? সঙ্গে উজ্জ্বল হয়ে উঠবে মুখ। দেখিয়ে দেবে গ্রামের কোন রাস্তায় গেলে মিলবে তাঁর বাড়ি। এমনই তাঁর প্রভাব এখানে।

পদ্মশ্রী সম্মানে ভূষিত কমলি সোরেনকে নিয়ে রোড-শো

পুরাতন মালদার যাত্রা ডাঙ্গা বাগমারা গ্রামের আদিবাসী পরিবারের মেয়ে কমলি সোরেন। গাজলের তালতলা গ্রামের  শাওনা হেমব্রম-এর সঙ্গে বিয়ে হয়। তাঁর স্বামী মারা যাওয়ার পর, জড়িয়ে পড়েন আশ্রম এর সঙ্গে। দীক্ষা নেন রাজেন‌ সাধুর কাছে। তখন থেকেই শুরু করেন সমাজসেবামূলক কাজ। শুরু করেন সমাজসেবামূলক কাজ।

গাজলের প্রত্যন্ত এলাকায় কোটালহাটি আশ্রম এ বসবাস করে সমাজসেবার কাজে নেমে পড়েন তিনি। ধর্মান্তরিত আদিবাসীদের সমাজে ফিরিয়ে আনার কাজে ব্রতী হয়েছিলেন। মালদা জেলা-সহ রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় খ্রিস্টান ধর্মে ধর্মান্তরিত আদিবাসীদের মূলস্রোতে ফিরিয়ে এনেছেন তিনি। তাঁর কাজের সুবাদে গোটা রাজ্যে ছড়িয়ে রয়েছে তার শিষ্য। সমাজসেবামূলক কাজের স্বীকৃতি হিসেবে চলতি বছরের ২৫ জানুয়ারি পদ্মশ্রী প্রাপক হিসেবে গুরুমা কমলি সোরেনের নাম ঘোষণা করা হয়।

আজই তিনি মালদায় ফিরেছেন। শুক্রবার সকালে মালদা টাউন স্টেশনে আসার পরই পদ্মশ্রী সম্মানে ভূষিত কমলি সোরেনকে শোভাযাত্রা সহকারে গাজলের নিয়ে যাওয়া হয়। গাজোলে পৌঁছানোর পর হাইস্কুল ময়দানে আদিবাসী প্রথায় তাঁকে বরণ করা হয়। এরপর শোভাযাত্রা সহকারে তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় আশ্রম কোটালহাটি গ্রামে।