ভুয়ো ভ্যাকসিন কান্ড থেকে শিক্ষা নিয়ে টিকাকরণ শিবির নিয়ে বড় সিদ্ধান্ত স্বাস্থ্য ভবনের

ভুয়ো ভ্যাকসিন কান্ড থেকে শিক্ষা নিয়ে টিকাকরণ শিবির নিয়ে বড় সিদ্ধান্ত স্বাস্থ্য ভবনের
ভুয়ো ভ্যাকসিন কান্ড থেকে শিক্ষা নিয়ে টিকাকরণ শিবির নিয়ে বড় সিদ্ধান্ত স্বাস্থ্য ভবনের

দেবাঞ্জন দেবের ভুয়ো ভ্যাকসিন কান্ড নাড়িয়ে দিয়েছে গোটা প্রশাসনিক মহলকে। এর পরেই নড়েচড়ে বসেছে স্বাস্থ্য ভবন। শনিবার একটি সাত পাতার নির্দেশিকা জারি করে স্বাস্থ্য ভবনের তরফে জানানো হয়েছে এবার থেকে কোথাও টিকাকরণ ক্যাম্পের আয়োজন করতে গেলে সে ক্ষেত্রে সরকারের অনুমতি নিতে হবে। সরকারের অনুমতি ছাড়া রাজ্যের কোথাও কোনও রকম টিকাকরণ শিবির করা যাবে না।

বুধবার থেকে পর্দা ফাঁস হয় কসবার দেবাঞ্জন দেবের ভুয়ো ভ্যাকসিন কাণ্ডের। এরপরে খুলতে থাকে রহস্যের মোড়ক। তাই এর থেকে শিক্ষা নিয়ে স্বাস্থ্য ভবন নির্দেশিকা জারি করে জানিয়েছে, স্বাস্থ্য ভবন এর অনুমতি ছাড়া কোন টিকাদান শিবিরের আয়োজন করা যাবে না। পাশাপাশি এই ভুয়া ভ্যাকসিন কান্ডের যাতে পুনরাবৃত্তি না হয় সেই নিয়োগ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ওই নির্দেশিকায়। এছাড়াও যদি বেসরকারি কোন সংস্থা টিকাকরণ শিবির করতে চায় তাহলে সেক্ষেত্রে স্বাস্থ্য দপ্তরের নোডাল অফিসার এর কাছে পুরো বিষয়টি জানিয়ে অনুমতি নিতে হবে এবং জেলার ক্ষেত্রে জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিক কে গোটা বিষয়ে জানাতে হবে। প্রসঙ্গত লালবাজারের তরফেও জানানো হয়েছে, কেউ কোথাও টিকাকরণ শিবির করতে গেলে সে ক্ষেত্রে পুলিশ গিয়ে আগে পুরো বিষয়টি তদারকি করবে তারপরে অনুমতি দেওয়া হবে।

এদিকে স্বাস্থ্য ভবনের ঐ নির্দেশিকায় উল্লেখ করা হয়েছে, টিকাকরণ শিবির করতে গেলে পুলিশের অনুমতির পাশাপাশি ওই শিবিরের জন্য কোন রকম টাকা নেওয়া হচ্ছে কিনা সেই বিষয়টিও উল্লেখ করতে হবে স্বাস্থ্য ভবনের কাছে। এছাড়াও যে সংস্থা বা সংগঠন শিবিরের আয়োজন করছে তাদের কাছে টিকা কোথা থেকে এলো সে বিষয়ে স্পষ্ট ভাবে জানাতে হবে।

অন্যদিকে, কসবা ভুয়ো ভ্যাকসিন কাণ্ডে এবার চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করল স্বাস্থ্য ভবন। যারা ওই কেন্দ্র থেকে ভ্যাকসিন নিয়েছেন তাদের শারীরিক অবস্থা কেমন রয়েছে তা খতিয়ে দেখবে এই চার সদস্যের কমিটি। এই তদন্ত কমিটির কথা শনিবার স্বাস্থ্য ভবনের তরফে জানানো হয়েছে।

স্বাস্থ্য ভবনের তরফে জানানো হয়েছে, এই কমিটিতে রয়েছেন স্কুল অফ ট্রপিক্যাল মেডিসিনের চিকিৎসক শান্তনু ত্রিপাঠী, আর জি কর হাসপাতালের চিকিৎসক জ্যোতির্ময় পাল, এসএসকেএম হাসপাতালের চিকিৎসক জিকে ঢালি ও সৌমিত্র ঘোষ। কোনও প্রতারিত যদি ভুয়ো টিকা নেওয়ার কারণে অসুস্থ বা পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার শিকার হন তাহলে, চার সদস্যের কমিটিতে থাকা বিশেষজ্ঞরা পরমার্শ দেবেন সেই রোগীকে।