১৫ জুলাই পর্যন্ত রাজ্যে বাড়ল বিধিনিষেধ, নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে কী জানালেন মুখ্যমন্ত্রী?

১৫ জুলাই পর্যন্ত রাজ্যে বাড়ল বিধিনিষেধ, নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে কী জানালেন মুখ্যমন্ত্রী?
১৫ জুলাই পর্যন্ত রাজ্যে বাড়ল বিধিনিষেধ, নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে কী জানালেন মুখ্যমন্ত্রী?

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ রাজ্যে করোনা সংক্রমণ এখন অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে। ভোটের আবহে ঝড়ের গতিতে রাজ্যে বাড়ছিল করোনা সংক্রমণ। তবে, এখন পরিস্থিতি অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে। এই পরিস্থিতিতে রাজ্যে বিধিনিষেধ আরও কিছুদিন বাড়ালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে, বেশ কিছু ক্ষেত্রে ছাড়ও দেওয়া হল। দীর্ঘ দেড় মাস পর রাজ্যে চালু হচ্ছে বেসরকারি বাস। যদিও বন্ধ থাকবে লোকাল ট্রেন পরিষেবা। এছাড়াও করোনাবিধি মেনেই, রাজ্যে খুলে যাচ্ছে বিউটিপার্লার, স্যালোঁ ও জিম।

এদিন মুখ্যমন্ত্রী নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে বলেন, ‘করোনা অতিমারির জন্য রাজ্যে বিধিনিষেধ ১৫ জুলাই পর্যন্ত বাড়ানো হচ্ছে। কিছুটা হালকা করলে, কী হয়, সেটাই দেখছি। রাত ৯ টা থেকে ভোর ৫ টা পর্যন্ত আপৎকালীন কাজই করা যাবে। সরকারি ও বেসরকারি বাসের অনুমতি দিচ্ছি। আন্তঃরাজ্য বাসও চলবে। এর পাশাপাশি অটো, টোটোও চালাতেও অনুমোদন দিচ্ছি। ৫০ শতাংশের বেশি যাত্রী নেওয়া যাবে না। যানের নিয়মিত স্যানিটাইজেশন ও মাস্ক বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে।’ পাশাপাশি তিনি জানিয়েছেন যে, চালকদের টিকাকরণ বাধ্যতামূলক এবং সেই কাজও চলছে।

এদিন বাস-অটো চলার ক্ষেত্রে কিছুটা ছাড় দিলেও, এখনই চালানো হচ্ছে না ট্রেন। এদিন নবান্ন থেকে সেটা পরিষ্কার জানিয়ে দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পরে, পরিস্থিতি বিবেচনা করে, পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলেই তিনি জানিয়েছেন।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, করোনা মোকাবিলায় প্রথমেই মুখ্যমন্ত্রী সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন, লোকাল ট্রেন বন্ধ করার। আর সেই মতোই চলছে না লোকাল ট্রেন। শুধুমাত্র চলছে স্টাফ স্পেশাল ট্রেন। যদিও এর ফলে সমস্যায় পড়েছেন নিত্যযাত্রীরা। কারণ রুজি-রোজগারের জন্য সবাইকেই বাইরে বেরোতে হচ্ছে। এদিকে, এতোদিন গণপরিবহন বন্ধ থাকায় অনেক বেশি টাকা খরচ করে গন্তব্যে পৌঁছাতে হচ্ছিল। বিশেষ করে, যাঁদের কর্মক্ষেত্রে পৌঁছানোর জন্য ট্রেনই একমাত্র উপায়।

এই পরিস্থিতিতে অনেকদিন ধরেই ট্রেন চালানোর দাবি উঠছিল। দিন কয়েক আগেই ট্রেন চালানোর দাবিতে স্টেশনে স্টেশনে অবরোধও হয়। যাত্রী বিক্ষোভের জেরে, রেলের পক্ষ থেকে ট্রেন চালানোর আবেদন জানালেও, মুখ্যমন্ত্রী সেই আবেদন ইতিমধ্যেই খারিজ করে দিয়েছেন।