ভোট পরবর্তী হিংসার মামলায় রাজ্যের আবেদন খারিজ হাইকোর্টের

ভোট পরবর্তী হিংসার মামলায় রাজ্যের আবেদন খারিজ হাইকোর্টের
ভোট পরবর্তী হিংসার মামলায় রাজ্যের আবেদন খারিজ হাইকোর্টের

ভোট পরবর্তী হিংসা নিয়ে রাজ্য সরকারের আবেদন খারিজ করে দিল কলকাতা হাইকোর্ট। পাশাপাশি আগের রায়ই বহাল রাখল আদালত। এদিকে এই রায়ের বিরুদ্ধে রাজ্য সরকার সুপ্রিম কোর্টে যেতে পারে, এই আশঙ্কা করে মামলাকারী সর্বোচ্চ আদালতে ক্যাভিয়েট দাখিল করেছে।কলকাতা হাইকোর্টে এই মামলার পরবর্তী শুনানি আগামী ৩০জুন ৷

রাজ্যের ভোট পরবর্তী হিংসা নিয়ে বারবার সরব হয়েছে বিজেপি। এই নিয়ে রাজ্যের একাধিক জায়গায় হিংসার ঘটনা ঘটেছে বলে দাবি করেছে বিরোধী দল। এর ভিত্তিতেই ভোট পরবর্তী হিংসা নিয়ে মামলা দায়ের হয় কলকাতা হাইকোর্টে। ১৮ জুন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনকে একটি কমিটি গঠনের নির্দেশ দেয় কলকাতা হাইকোর্ট৷

এই কমিটিকে কলকাতা হাইকোর্ট নির্দেশ দিয়ে বলে, বিভিন্ন প্রান্ত ঘুরে কোন এলাকায় কি ঘটনা ঘটছে এবং কারা আক্রান্তের শিকার হচ্ছেন সে ব্যাপারে সবিস্তারে একটি রিপোর্ট তৈরি করতে বলেছে। এই রিপোর্ট ৩০ জুনের মধ্যে আদালতে পেশ করতে বলা হয়েছে।

এদিকে, হাইকোর্টের এই রায় পুনর্বিবেচনার জন্য আবেদন করে রাজ্য সরকার। ভারপ্রাপ্ত বিচারপতি রাজেশ বিন্দোল,বিচারপতি হরিশচন্দ্র, বিচারপতি ইন্দ্র প্রসন্ন মুখোপাধ্যায়, বিচারপতি সৌমেন্দ্র সেন এবং বিচারপতি সুব্রত তালুকদারের বেঞ্চে মামলার শুনানি শুরু হয় ৷ পাঁচ বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ রায় দেয় রাজ্যের আবেদন গ্রহণ করছে না আদালত৷ রায় পুনর্বিবেচনার জন্য রাজ্য যে আবেদন করেছে, তা খারিজ করা হল৷

সোমবার বিচারপতি হরিশ ট্যান্ডন জানান, ‘জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের কাছে প্রায় ৫৪১ টি অভিযোগ জমা পড়ছে।রাজ্য মানবাধিকার কমিশনের কাছে একটিও অভিযোগ জমা পড়েনি। এটা অত্যন্ত উদ্বেগের বিষয়।’

এই প্রসঙ্গ কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি বলেন, “আমি আদালত ধন্যবাদ জানাতে চাই। যে মানুষজন কে প্রতারণা করা হয়েছে, যাদেরকে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল, যাদের কে খুন করা হয়েছে তারা যে ন্যায় বিচার পাবেন এমন আশা আমরা করতে পারি। পাশাপাশি তিনি আরও উল্লেখ করেন, নির্বাচন এর পর বাংলার বিভিন্ন এলাকায় বিজেপি দলের সাথে যুক্ত থাকার জন্য বহু মহিলাকে ধর্ষণ এর স্বীকার হতে হয়েছে”।