দেশে স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠান পালনের জন্য গাইডলাইন বেঁধে দিল কেন্দ্র

দেশে স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠান পালনের জন্য গাইডলাইন বেঁধে দিল কেন্দ্র
দেশে স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠান পালনের জন্য গাইডলাইন বেঁধে দিল কেন্দ্র

করোনা আবহে স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠান কিভাবে পালিত হবে! তা নিয়ে উঠছিল প্রশ্ন। শুক্রবার চলতি বছরের স্বাধীনতা উৎসব পালনের জন্য একগুচ্ছ গাইডলাইন বেঁধে দিল কেন্দ্র সরকার।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের তরফের জারি করা গাইডলাইনে বলা হয়েছে, অন্যান্য বছরের মতো এ বছরও স্বাধীনতা দিবস পালন করা হবে। তবে কোনভাবেই এই অনুষ্ঠান থেকে যাতে করোনা সংক্রমণ না ছড়ায়, সেজন্য মাস্ক, স্যানিটাইজার বাধ্যতামূলক ব্যবহার করতে হবে। এছাড়াও যাতে কোনরকম ভাব বড় জমায়েত না হয় সেদিকে তীক্ষ্ণ নজর রাখতে হবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের গাইডলাইনে আরও বলা হয়েছে, রাষ্ট্রপতি ভবনে রাষ্ট্রপতি এবং অন্যান্য রাজ্যের রাজ্যপালরা স্বাধীনতা দিবস উদযাপন করতে পারবেন। কিন্তু এক্ষেত্রেও পালন করে চলতে হবে সমস্ত গাইডলাইনগুলি।

একইরকমভাবে জেলা, মহকুমা স্তর এবং পঞ্চায়েত স্তরেও পালন করা যাবে স্বাধীনতা দিবস। কিন্তু কোনরকমভাবে ভিড় করা চলবে না এবং বাধ্যতামূলক ভাবে ব্যবহার করতে হবে মাস্ক এবং স্যানিটাইজার। বজায় রাখতে হবে সামাজিক দূরত্ব।

প্রসঙ্গত, প্রত্যেক বছর বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে লালকেল্লায় পালিত হয় স্বাধীনতা দিবস। কিন্তু চলতি বছর পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখেই এই অনুষ্ঠানের পরিসর ছোট করা হয়েছে। সশস্ত্র বাহিনী ও পুলিশের প্রধানমন্ত্রীকে গার্ড অব অনার দেওয়ার মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সূচনা হবে। এরপর দেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলন করবেন প্রধানমন্ত্রী। গাওয়া হবে ভারতের জাতীয় সংগীত। এরপরে দেশবাসীর উদ্দেশ্যে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এরপর ফের একবার জাতীয় সংগীত গেয়ে এই অনুষ্ঠান শেষ করা হবে।

সূত্রের খবর, প্রথম সারির করোনা যোদ্ধা অর্থাৎ ডাক্তার নার্স স্বাস্থ্যকর্মীদের সম্মান জানানোর জন্য তাদের চলতি বছরের স্বাধীনতা দিবস পালন অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানোর হতে পারে।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.