ভ্যাকসিন নিতে গিয়ে সংক্রমণ এড়াতে কী কী করবেন? জানাচ্ছেন এই বিশিষ্ট চিকিৎসক! রইল ভিডিও

ভ্যাকসিন নিতে গিয়ে সংক্রমণ এড়াতে কী কী করবেন? জানাচ্ছেন এই বিশিষ্ট চিকিৎসক! রইল ভিডিও
ভ্যাকসিন নিতে গিয়ে সংক্রমণ এড়াতে কী কী করবেন? জানাচ্ছেন এই বিশিষ্ট চিকিৎসক! রইল ভিডিও

করোনা আতঙ্কে কার্যত জেরবার গোটা দেশ। বর্তমানে দেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১,৭৩, ০৬,৬৪৭ জন। লাফ দিয়ে বাড়ছে সংক্রমণের হার। করোনার মোকাবিলায় এরই মধ্যে দেশজুড়ে জারি রয়েছে টিকাকরণ প্রক্রিয়া। ছড়িয়ে পড়া করোনার প্রকোপ রুখতে ইতিমধ্যেই প্রায় ২৪ লক্ষ মানুষকে টিকা দেওয়া হয়েছে। প্রথম ও দ্বিতীয় পর্যায়ের টিকাকরণের পর দিন কয়েক আগে কেন্দ্র ঘোষণা করে, ১ মে থেকেই ১৮ ঊর্ধ্বদের টিকাকরণ শুরু হবে। অর্থাৎ মে মাসের শুরু থেকেই তৃতীয় পর্যায়ের টিকাকরণে দেশের ১৮ বছরের বেশি বয়সী সমস্ত নাগরিকরা টিকা নিতে পারবেন। সরকারি হাসপাতালে টিকা বিনামূল্যে দেওয়া হবে। বেসরকারি হাসপাতাল অন্য টিকা কেন্দ্র থেকে মূল্য দিয়ে কিনে টিকা নিতে হবে।

এদিকে টিকাকরণ কেন্দ্রগুলিতেও ভীড় উপচে পড়ছে। টিকা নিতে গিয়ে করোনা বিধিই মাথায় তুলেছেন হাজারও মানুষ। ফলে সেখান থেকে সংক্রমণ ছড়ানো অসম্ভব কিছু নয়৷ যা ফের চিন্তার ভাঁজ ফেলেছে চিকিৎসকদের কপালেও। এই অবস্থায় মুম্বইয়ের বিশিষ্ট চিকিৎসক ড: তুষার শাহ জরুরি কিছু পরামর্শ নিয়ে হাজির হলেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। যা মেনে চললে সংক্রমন এড়ানো বেশ সম্ভব। ফলে টিকাকরণ কেন্দ্রগুলি থেকে সংক্রমণ ছড়ানোও কমবে।

কিন্তু পরামর্শগুলি কী কী?
১. ভ্যাকসিন নিতে আসা সমস্ত মানুষের দু’টি মাস্ক পড়া একান্তই আবশ্যক। ভেতরে একটি N-95 মাস্ক ও তার বাইরে একটি সার্জিকাল মাস্ক ব্যবহার করা যেতে পারে।
২. হাতে গ্লাভস ব্যবহার করতে হবে।
৩. ভ্যাকসিন সেন্টারে আসার আগেই চা বা কফি খেয়ে আসতে বলেছেন প্রসিদ্ধ ডাক্তারটি। ভ্যাকসিনের লাইনে দাঁড়িয়ে কোনও রকম খাবার বা পানীয় না খাওয়ার কথাই বলা হয়েছে।
৪.ভ্যাকসিন নিতে আসা সমস্ত মানুষকে একে অপরের সঙ্গে হাত মেলানো বা যে কোনও রকম ঘনিষ্ঠতা থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। হাত মেলানো বা ঘনিষ্ঠতা থেকে শরীরে ভাইরাস সংক্রমণের আশঙ্কা বাড়ে।
৫. একে অপরের সঙ্গে সঠিক শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখা, কথা না বলারও পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।
৬. এর পাশাপাশি প্রত্যেককে স্যানিটাইজার ব্যবহারের উপদেশও দেওয়া হয়েছে।

ভিডিওটি ইতিমধ্যেই বেশ ভাইরাল হয়ে উঠেছে নেটদুনিয়ায়। এখনও পর্যন্ত মোট ১০৭ হাজার মানুষ দেখেছেন তা। লাইকের সংখ্যা ৭০০০০। পাশাপাশি ডাক্তারটির প্রশংসায় ধন্য ধন্যও করছেন নেটিজেনরা।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.