‘এখুনি শুটিংয়ে গিয়ে পরিবারকে বিপদে ফেলতে রাজি নই’, ফ্লোরে ফিরতে নারাজ লিলি

শুটিংয়ে এখনই নেই লিলি চক্রবর্তী

উত্তমকুমারে বহু ছবির অভিনেত্রী তিনি। ষাট পেরিয়ে গেছে বহুদিন। তবু অবসর মেলেনি স্টুডিওপাড়া থেকে। বড় পর্দা থেকে ছোটপর্দা—অনায়াস গতিবিধি তাঁর। শুটিং ছাড়া যিনি একমুহূর্ত থাকতে পারেন না সেই লিলি চক্রবর্তী এখুনি ফ্লোরে ফিরতে নারাজ। খলনায়ক অবশ্যই করোনা ভাইরাস। তিনি জানেন, শিশুদের মতো বয়স্করাও রিস্ক জোনে। তাই মুচলেকা দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বিপদে ফেলতে চান না পরিবারের লোকেদের। আর তাই জুলাইয়ের আগে স্টুডিও চত্বরে পা রাখবেন বলে জানিয়ে দিয়েছেন প্রবীণ অভিনেত্রী।

আর তাই, অন্য যশোদা ধারাবাহিকে গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে থেকেও আপাতত শুটিংয়ে না আসার কথা জানিয়ে দিয়েছেন লিলি। সাম্প্রতিক এক সাক্ষাৎকারে তাঁর দাবি, সংবাদপত্র পড়ে জেনেছেন, জুন-জুলাইয়ে ভয়ঙ্কর আকার ধারণ করবে করোনা। তাই গোটা জুলাই মাস তিনি দেখবেন। পরিস্থিতি বুঝবেন। কীভাবে শুটিং হচ্ছে তার খবরাখবর নেবেন। তারপর ঠিক করবেন কবে থেকে শুটিং করবেন। তাঁর এই সিদ্ধান্ত শুধু নিজের জন্য নয়, পরিবারের সকলের মুখ চেয়ে।

যে ধারাবাহিকে তিনি শুট করছিলেন সেখানে ৬০ থেকে ৬৫ বছরের আরও প্রবীণ অভিনেতা-অভিনেত্রী থাকায় চ্যানেল সহজেই মেনে নিয়েছে তাঁর দাবি। একই সঙ্গে তাঁর অভমান, পরিস্থিতি যতই জটিল হোক, মুচলেকা দিয়ে বা বন্ডে সই করিয়ে নিয়ে অভিনয় করানো মানে অভিনেতা সত্ত্বাকে অপমান করা। এই ধরনের প্রস্তাব তাঁর কাছে এলে একেবারেই রাজি হবেন না তিনি, এমনটাই জানিয়েছেন অভিনেত্রী।

আরও পড়ুনঃ  মৃত্যু বার্ষিকীতে শ্রদ্ধায় স্মরণে বাংলা চলচ্চিত্রের স্বর্ণ যুগের অভিনেতা শুভেন্দু চট্টোপাধ্যায়

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.