আইকোর চিটফান্ড মামলায় রাজ্যের মন্ত্রী তথা তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে তলব সিবিআই-এর

আইকোর চিটফান্ড মামলায় রাজ্যের মন্ত্রী তথা তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে তলব সিবিআই-এর
আইকোর চিটফান্ড মামলায় রাজ্যের মন্ত্রী তথা তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে তলব সিবিআই-এর

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ ভবানীপুর কেন্দ্রে উপনির্বাচনের দিন ঘোষণা হয়েছে। আর এই মুহূর্তে উপনির্বাচন নিয়ে তুমুল ব্যস্ততা রয়েছে তৃণমূলে। এই অবস্থায় তৃণমূল কংগ্রেসের নেতা-মন্ত্রীদের উপর চাপ বাড়াছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার। একদিকে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে ইডি নয়াদিল্লিতে ডেকে পাঠায়। আবার বিধানসভায় সমন পাঠানো হয়েছে সুব্রত, ফিরহাদ, মদনের নামে। আর এবার আইকোর চিটফান্ড মামলায় ফের একবার তৃণমূল কংগ্রেসের মহাসচিব তথা রাজ্যের মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে তলব করল সিবিআই।

জানা গিয়েছে, আগামী ১৩ অক্টোবর তাঁকে সিজিও কমপ্লেক্সে ডেকে পাঠানো হয়েছে। রাজ্যে শিল্পমন্ত্রীকে বেশকিছু নথি সঙ্গে নিয়ে হাজিরা দিতে বলা হয়েছে। কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই-এর সূত্রে খবর, একটি ভিডিওর সূত্র ধরেই এই জিজ্ঞাসাবাদ। উল্লেখ্য, এর আগেও ভুয়ো অর্থলগ্নিকারী সংস্থার তদন্তে পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে নোটিস দিয়েছিল সিবিআই ও ইডি। আইকোর চিটফান্ড মামলায় এর আগেও পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে জিজ্ঞাসাবাদের তলব করেছিল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। কিন্তু সেই সময় প্রশাসনিক কাজের চাপ দেখিয়ে, তিনি হাজিরা দেননি। সেই জন্য তিনি চিঠিও দিয়েছিলেন কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থাকে। জানিয়েছিলেন তাঁর উপস্থিত না হতে পারার কারণ।

সিবিআই সূত্রে খবর, এই মামলার তদন্তে একটি ভিডিও ক্লিপ পাওয়া গিয়েছে। যেখানে দেখা যাচ্ছে যে, ভুয়ো অর্থলগ্নি সংস্থার একটি অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়। সেই ভিডিও সংক্রান্ত জিজ্ঞাসাবাদের জন্যই ডেকে পাঠানো হয়েছে তাঁকে।

আগে ভুয়ো অর্থলগ্নি সংস্থা আইকোর মামলার তদন্তে নেমে সংস্থার কর্তা অনুকূল মাইতিকে জেরা করে নানা তথ্য পেয়েছিলেন সিবিআই আধিকারিকরা। প্রাপ্ত সেইসব তথ্যের উপর ভিত্তি করেই পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে জেরার জন্য নোটিশ পাঠানো হয়। তবে, পরে ওড়িশার জেলেই অনুকূল মাইতির মৃত্যু হয়। তাতে তদন্তের গতি খানিকটা মন্থর হয়ে পড়ে। তবে, এবার ফের তদন্তে গতি আনতে সক্রিয় হয়ে উঠেছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই। পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ যে, নাকতলার একটি ক্লাবে তাঁর নামকে সামনে রেখে, প্রচুর টাকা নেওয়া হয়েছিল। এইসব বিষয়ে বিস্তারিত জানতেই তাঁকে নতুন করে জেরার ভাবনা তদন্তকারীদের।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের আগে আইকোর মামলায় মানস ভুঁইঞাকেও নোটিশ পাঠিয়েছিল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। সিজিও কমপ্লেক্সে হাজিরার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল তাঁকে। তখন সিবিআই সূত্রে জানা গিয়েছিল, আইকোরের একটি অনুষ্ঠানের ভিডিও কিছুদিন আগে প্রকাশ্যে আসে। সেই অনুষ্ঠানে দেখা গিয়েছিল মানস ভুঁইঞাকে। তিনি আইকোরের সমর্থনে একাধিক বক্তব্যও রেখেছিলেন।