লকডাউনেও খোলা জুতোর দোকান! কোভিড বিধি ভাঙায় ব্যবসায়ীকে সপাটে চড় এডিএমের! দেখুন ভিডিও

লকডাউনেও খোলা জুতোর দোকান! কোভিড বিধি ভাঙায় ব্যবসায়ীকে সপাটে চড় এডিএমের! দেখুন ভিডিও
লকডাউনেও খোলা জুতোর দোকান! কোভিড বিধি ভাঙায় ব্যবসায়ীকে সপাটে চড় এডিএমের! দেখুন ভিডিও

করোনা মোকাবিলায় সারা দেশ জুড়েই চলছে আংশিক বা কার্যত লকডাউন। জারি রয়েছে নাইট কার্ফুও। তবে এখনও বহু মানুষ এমন রয়েছেন যারা কিছুতেই কোভিড বিধি মেনে চলছেন না। সেই তালিকায় যেমন রয়েছেন সাধারণ মানুষ, তেমনই রয়েছেন ছোট-বড় কিছু ব্যবসায়ীও। তবে প্রশাসনের চোখে পড়লে আর নিস্তার নেই। কোভিড বিধি ভাঙলেই মিলছে কড়া শাস্তি৷ সম্প্রতি সেরকমই এক ঘটনা ঘটল মধ্যপ্রদেশে।

জারি রয়েছে লকডাউন। তবু তার মধ্যেই জুতোর দোকান খুলেছেন এক ব্যবসায়ী। শাস্তিস্বরূপ দোকানদারের গালে সপাটে চড় কষালেন মহিলা এডিএম। ঘটনাটি ঘটেছে মধ্যপ্রদেশের সাজাপুর জেলায়। দোকানীর বিরুদ্ধে অভিযোগ, করোনা কার্ফুর মধ্যেই নিজের জুতোর দোকান খোলা রেখেছিলেন তিনি। তা নজরে আসতেই তাঁকে উপযুক্ত শাস্তি দিতে চড় কষান সাজাপুরের অ্যাডিশনাল ডিস্ট্রিক্ট কালেক্টর মঞ্জুসা বিক্রান্ত রাই।

তবে ব্যবসায়ীটির দাবি, জুতোর দোকানের শাটার বন্ধই ছিল ৷ তবুও তা টেনে তোলে পুলিশরা। তিনি আরও অভিযোগ করেন, এডিএমও কোনও কথাই শোনেননি ৷ উনি চড় মারেন। তারপর এক পুলিশকর্মীও এসে লাঠির ঘা মারেন তাঁকে৷ কেউ কিছু না শুনেই মারতে শুরু করে দেন। এই ঘটনারই ভিডিও এখন ভাইরাল সোশ্যাল মিডিয়ায়।

প্রসঙ্গত, দিন কয়েক আগেই এরকমই এক ঘটনা ঘটে ছত্তিসগড়ের সুরজপুর জেলায়। সেখানে কোভিড বিধি লঙ্ঘন করায় এক কালেক্টর চড় মারেন এক যুবককে। যুবকটির মোবাইল ফোন কেড়ে নিয়ে ভেঙেও ফেলেন তিনি। কিছুদিন পর সেই একই ঘটনা ঘটল আবারও। যদিও এই বিষয়ে ক্যাবিনেট মন্ত্রী ইন্দর সিং পরমার জানিয়েছেন, “ঘটনাটির কথা শুনেছি। এডিএমের আচরণ সন্তোষজনক ছিল না। তাঁর বিরুদ্ধে প্রয়োজন মতো ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”