নদিয়ার শান্তিপুরে তৃণমূল প্রার্থী অজয় দের সমর্থনে প্রচার সারলেন দেব

নদিয়ার শান্তিপুরে তৃণমূল প্রার্থী অজয় দের সমর্থনে প্রচার সারলেন দেব
নদিয়ার শান্তিপুরে তৃণমূল প্রার্থী অজয় দের সমর্থনে প্রচার সারলেন দেব

নিজস্ব প্রতিবেদনঃ নদিয়াঃ মলয় দেঃ রাজ্যে শুরু হয়ে গেছে ভোট যুদ্ধ। সম্পন্ন হয়েছে প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ দফার ভোট প্রক্রিয়া। বাকি রইলো আর ৪ দফার ভোট। রাজ্যের শাসক দলে কে আধিপত্ত বিস্তার করবে তা নিয়ে চলছে রাজনৈতিক বিরোধ। অন্যদিকে নির্বাচন ঘিরে উত্তপ্ত রাজ্য-রাজনীতি। আর এরইমাঝে এদিন নদিয়ার শান্তিপুরে তৃণমূল প্রার্থী অজয় দের সমর্থনে প্রচারে হাজির হলেন তৃণমূলের তারকা সাংসদ দেব।

উল্লেখ্য বুধবার দুপুর ১ টা নাগাদ শান্তিপুর স্টেডিয়াম মাঠে হেলিকপ্টার থেকে নামেন অভিনেতা দেব। এরপরই শান্তিপুর বিধানসভার তৃণমূল প্রার্থী অজয় দে তাকে উত্তরীয় পরিয়ে সম্বর্ধনা জানায়। তারপর শান্তিপুর পাবলিক লাইব্রেরী ময়দানে জনসভায় বক্তব্য রাখেন সাংসদ দেব। বক্তব্যের মধ্য দিয়ে শান্তিপুর বিধানসভার তৃণমূল প্রার্থী অজয় দে এর সমর্থনে তার একাধিক উন্নয়নের কথা তুলে ধরেন। এছাড়াও কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে একাধিক মন্তব্য করলেন। শান্তিপুর বিধানসভার তৃণমূল প্রার্থীকে ভূমিপুত্র বলে তাকে বিপুল ভোটে জয়ী করার আহ্বান জানান জনসভায় উপস্থিত থাকা সাধারণ মানুষকে।

স্বভাবতই অভিনেতা দেব কে দেখার জন্য কয়েক হাজার মানুষের ভিড় জমে পাবলিক লাইব্রেরী ময়দানে। শান্তিপুর পুলিশ প্রশাসন কেউ হিমশিম খেতে হয় সাধারণ মানুষের ভিড় সামলানোর জন্য। মাত্র ২০ মিনিটের বক্তব্যে ঝড় তোলেন দেব। টনটনে রোদ্দুর কে উপেক্ষা করেও সাধারণ মানুষের ভিড় সামলাতে নাজেহাল পুলিশ প্রশাসন। তবে বক্তব্যের শুরুতেই তিনি, করোনা পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার কথা বলেন। পোড়-খাওয়া রাজনীতিবিদদের মুখে সচেতনতা বার্তা খুব শোনা যায় না, শোনা যায় না সেলিব্রিটিদের মুখেও! তবে দেব দর্শনে আগতরা কি দৈববাণী মেনে চলবেন!

অন্যদিকে আজকের জনসভায় সাংসদ দেব বলেন, তিনি নিজেই এখনও রাজনীতি শিখছেন। তবে তিনি বিশ্বাস করেন যে দল মানুষের জন্য কাজ করবে, যে সরকার মানুষের পাশে থাকবে তাকেই ভোট দেওয়া উচিত। তারপরই তিনি বলে তার দলের কিছু কাজ রয়েছে যা মানুষের উপকার করছে। যেমন কন্যাশ্রির মত প্রকল্প। যার ফলে বাংলার প্রতিটি মেয়ে পড়াশোনা করতে পারছে। এপ্রসঙ্গে তিনি বলেন, দিদি কে তিনি প্রশ্ন করেছিলেন, এই প্রকল্পের কি দরকার, কারণ এরা তো ভোট দেবে না! তার কথার উত্তরে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি তাঁকে বলেন, তিনি জয়ী হন কিংবা হেরে যান , তার থেকে বাংলার প্রতিটি মেয়ে যেন পড়াশোনা করে জয়ী হয় সেটাই তিনি চান এভাবেই আজ সাংসদ দেব তার দলের একাধিক প্রকল্পের কথা তুলে ধরেন নদিয়ার মানুষের কাছে।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.