সুস্থতার পথে দেশ! গত ২৪ ঘণ্টায় কমল দৈনিক সংক্রমণ, পাল্লা দিয়ে নিম্নমুখী সক্রিয় রোগীর সংখ্যাও

সুস্থতার পথে দেশ! গত ২৪ ঘণ্টায় কমল দৈনিক সংক্রমণ, পাল্লা দিয়ে নিম্নমুখী সক্রিয় রোগীর সংখ্যাও
সুস্থতার পথে দেশ! গত ২৪ ঘণ্টায় কমল দৈনিক সংক্রমণ, পাল্লা দিয়ে নিম্নমুখী সক্রিয় রোগীর সংখ্যাও / প্রতীকী ছবি

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ উৎসবের মরশুমে করোনা নিয়ে শুরু থেকেই বিশেষ সতর্ক ছিল কেন্দ্রের মোদী সরকার। তাই সংক্রমণ ঠেকাতে জোর দেওয়া হয় করোনাবিধিতে। পাশাপাশি গতি বাড়ানো হয় টিকাকরণের উপরেও। যার সুফল মিলেছে হাতেনাতে। উৎসবের মরশুমে পনেক্তাই নিয়ন্ত্রণে দেশের করোনা সংক্রমণ। পাশাপাশি আর দু’একদিনের মধ্যেই করোনার টিকাকরণে ভারত ১০০ কোটির লক্ষ্যমাত্রা অতিক্রম করতে সক্ষম হবে দেশ। উৎসবের মুখে দেশের করোনা গ্রাফে স্বস্তি মিলেছে। এদিন ফের করোনার দৈনিক সংক্রমণ কমেছে। স্বস্তি দিয়ে অনেকটাই কমেছে করোনার অ্যাকটিভ কেসও। যা স্বাস্থ্যমন্ত্রককে স্বস্তি দিচ্ছে।

রবিবার সকালে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রকের দেওয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১৪ হাজার ১৪৬ জন। গতকালের থেকে সংক্রমণ অনেকটাই কম। গতকাল দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ১৫ হাজার ৯৮১ জন। এই মুহূর্তে দেশের মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৩ কোটি ৪০ লক্ষ ৬৭ হাজার ৭১৯। এদিকে, স্বাস্থ্যমন্ত্রকের নয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টা করোনায় মৃত্যুর সংখ্যাও কমেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ১৪৪ জনের। গতকাল দেশে করোনায় মৃতের সংখ্যা ছিল ১৬৬ জন। দেশে এখনও পর্যন্ত করোনার বলি ৪ লক্ষ ৫২ হাজার ১২৪ জন।

অন্যদিকে, দৈনিক সংক্রমণের পাশাপাশি গত ২৪ ঘণ্টায় স্বস্তি দিয়েছে করোনার অ্যাকটিভ কেসও। স্বাস্থ্যমন্ত্রকের রিপোর্ট বলছে, বর্তমানে দেশে করোনায় চিকিৎসাধীন রোগীর সংখ্যা স্বাস্থ্যমন্ত্রকের রিপোর্ট বলছে, বর্তমানে দেশে করোনায় চিকিৎসাধীন রোগী ১ লক্ষ ৯৫ হাজার ৮৪৬ জন। যা গতকালের থেকে বেশ খানিকটা কম। গতকাল দেশে করোনায় চিকিৎসাধীন রোগীর সংখ্যা ছিল ২ লক্ষ ১ হাজার ৬৩২ জন। যা উৎসবের মরশুমে যথেষ্ট স্বস্তিদায়ক বলেই মনে করছে স্বাস্থ্যমহল। এদিকে, করোনার বিরুদ্ধে আশার আলো দেখাচ্ছেন করোনাজয়ীরাই। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনামুক্ত হয়েছেন ১৯ হাজার ৭৮৮ জন। যা দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যার তুলনায় অনেকটাই বেশি। পরিসংখ্যান অনুযায়ী, এখনও পর্যন্ত দেশে ৩ কোটি ৩৪ লক্ষ ১৯ হাজার ৭৪৯ জন করোনা থেকে মুক্ত হয়েছেন।

টিকাকরণের গতি বাড়িয়ে সংক্রমণ ঠেকানোর প্রয়াস জারি রয়েছে দেশজুড়ে। তৃতীয় ঢেউ রুখতে পরীক্ষানিরীক্ষার মাধ্যমে করোনা রোগীদের চিহ্নিত করার পাশাপাশি টিককরণেও জোর দিয়েছে কেন্দ্র। স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রকের দেওয়া তথ্য জানাচ্ছে, এখনও পর্যন্ত দেশে মোট ৯৭ কোটি ৬৫ লক্ষ ৮৯ হাজার ৫৪০ জন করোনার টিকা পেয়েছেন। এর মধ্যে গতকালই ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে ৪১ লক্ষ ২০ হাজারের বেশি নাগরিককে।

উল্লেখ্য, করোনার টিকাকরণে ভারত ১০০ কোটির লক্ষ্যমাত্রা অতিক্রম করতে সক্ষম হবে আর মাত্র দু-একদিনের মধ্যেই। চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যেই দেশের ১০০ কোটি জনগণকে টিকা দেওয়ার লক্ষ্য ছিল কেন্দ্রের মোদী সরকারের। সেই লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হতে চলায় এবার কেন্দ্রের পক্ষ থেকে এক বিশেষ উপহার দেওয়া হল। সেই বিশেষ উপহার হিসেবে প্রকাশিত হল ভ্যাকসিন সঙ্গীত।

এখনও যাঁদের করোনার টিকা নিয়ে মনে হাজারো প্রশ্ন এবং দ্বিধা রয়েছে, এই গান সেইসব যাবতীয় প্রশ্ন, ভয় এবং দ্বিধা দূর করবে। শনিবার কেন্দ্রীয় পেট্রোলিয়াম মন্ত্রী হরদীপ সিং পুরী, প্রতিমন্ত্রী রামেশ্বর তেলি ও কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মনসুখ মাণ্ডব্য-র উপস্থিতিতে এই গানের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়। এই গানটি গেয়েছেন সঙ্গীত শিল্পী কৈলাশ খের। ভার্চুয়াল মাধ্যমে আয়োজিত এই উদ্বোধন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন গায়ক কৈলাশ খেরও। দেশের টিকাকরণ কর্মসূচির কথা মনে করিয়ে দিতেই এই গানের নাম দেওয়া হয়েছে, ‘টিকা সে বাঁচা হ্যায় দেশ’। পদ্মশ্রী সম্মান পাওয়া গায়ক কৈলাশ খেরের গলায় গাওয়া তিন মিনিটের দীর্ঘ এই গানে শোনা যায় যে, বর্তমান করোনা পরিস্থিতি থেকে রক্ষা পেতে সকলেই যে টিকা নিয়ে যাবতীয় ভয় এবং দ্বিধা সরিয়ে এগিয়ে আসেন। গানের ভিডিওটিতে দেখা গেছে বিভিন্ন বয়সের মানুষকে টিকা নিতে।