দেশে অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে করোনা ! গত ২৪ ঘণ্টায় সংক্রমণ সামান্য বাড়লেও, অনেকটা কমল অ্যাকটিভ কেস

দেশে অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে করোনা ! গত ২৪ ঘণ্টায় সংক্রমণ সামান্য বাড়লেও, অনেকটা কমল অ্যাকটিভ কেস
দেশে অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে করোনা ! গত ২৪ ঘণ্টায় সংক্রমণ সামান্য বাড়লেও, অনেকটা কমল অ্যাকটিভ কেস / প্রতীকী ছবি

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়ার আগে, দেশে করোনা গ্রাফে ওঠানামা অব্যাহত রয়েছে। প্রতিদিন একটু একটু করে বাড়ছে সংক্রমণ, আবার কখনও তা কমছে। এরই মধ্যে আবার সামনেই করোনার তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। এদিকে, উৎসবের মরশুমে করোনা নিয়ে বিশেষ সতর্ক কেন্দ্রের মোদী সরকার। তাই সংক্রমণ ঠেকাতে জোর দেওয়া হচ্ছে করোনাবিধিতে। পাশাপাশি গতি বাড়ানো হচ্ছে টিকাকরণের উপর। তবে, উৎসবের মুখে দেশের করোনা গ্রাফে স্বস্তি মিলেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার দৈনিক সংক্রমণ ২০ হাজারের নিচেই আছে। তবে, গতকালের থেকে সামান্য বেড়েছে। তবে, অনেকটাই কমেছে করোনার অ্যাকটিভ কেস। যা স্বাস্থ্যমন্ত্রককে স্বস্তি দিচ্ছে।

বুধবার সকালে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রকের দেওয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১৮ হাজার ৮৩৩ জন। গতকালের থেকে সংক্রমণ সামান্য কম। গতকাল দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ১৮ হাজার ৩৪৬ জন। দেশে সংক্রমণ কমেছে গতকালের তুলনায় বেড়েছে আড়াই শতাংসের কিছু বেশি। দেশের অন্যান্য রাজ্যে মারণ ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে এলেও, এখনও চিন্তায় রাখছে দক্ষিণের রাজ্য কেরল।

এদিকে, স্বাস্থ্যমন্ত্রকের নয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টা করোনায় মৃত্যু খানিকটা বেড়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় প্রাণ হারিয়েছেন ২৭৮ জন। এই সংখ্যা অবশ্য গতকালের থেকে সামান্য বেশি। গতকাল দেশে করোনায় দৈনিক মৃতের সংখ্যা ছিল ২৬৩ জন। দেশে এখনও পর্যন্ত করোনার বলি ৪ লক্ষ ৪৯ হাজার ৫৩৮ জন।

অন্যদিকে, স্বস্তি দিয়েছে করোনার অ্যাকটিভ কেসে। স্বাস্থ্যমন্ত্রকের রিপোর্ট বলছে, একধাক্কায় অনেকটা কমেছে অ্যাকটিভ রোগীর সংখ্যাও। বর্তমানে দেশে করোনায় চিকিৎসাধীন রোগীর সংখ্যা ২ লক্ষ ৪৬ হাজার ৬৮৭ জন। যা গত ২০৩ দিনে সর্বনিম্ন। এদিকে, করোনার বিরুদ্ধে আশার আলো দেখাচ্ছেন করোনাজয়ীরাই। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার কবল থেকে সুস্থ হয়েছেন ২৪ হাজার ৭৭০ জন। যা দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যার থেকে অনেকটাই বেশি। পরিসংখ্যান অনুযায়ী, এখনও পর্যন্ত দেশে ৩ কোটি ৩১ লক্ষ ৭৫ হাজার ৬৫৬ জন করোনা থেকে মুক্ত হয়েছেন।

টিকাকরণের গতি বাড়িয়ে সংক্রমণ ঠেকানোর প্রয়াস জারি রয়েছে দেশজুড়ে। তৃতীয় ঢেউ রুখতে পরীক্ষানিরীক্ষার মাধ্যমে করোনা রোগীদের চিহ্নিত করার পাশাপাশি টিককরণেও জোর দিয়েছে কেন্দ্র। এখনও পর্যন্ত দেশের মোট এখনও পর্যন্ত দেশের এখনও পর্যন্ত দেশে মোট ৯২ কোটি ১৭ লক্ষেরও বেশি মানুষ করোনার টিকা পেয়েছেন। একইসঙ্গে কোভিড রোগী চিহ্নিত করতে চলছে টেস্টিংও। আশা করা হচ্ছে, এই গতিতে টিকাকরণের কাজ চললে, চলতি বছরের মধ্যে দেশের সমস্ত মানুষকে টিকাকরণের লক্ষ্যমাত্রা সময়ের মধ্যেই পূরণ হয়ে যাবে বলে আশাবাদী কেন্দ্র সরকার। এদিকে, আগামী সপ্তাহের শুরু থেকেই দেশে উৎসবের মরশুম শুরু হয়ে যাবে। গত বছরের মতো এবারও মেনে চলতে হবে কঠোর করোনাবিধি। কিন্তু তার আগে দেশের করোনা গ্রাফের এই পতন কিছুটা আশ্বস্ত করেছে স্বাস্থ্যমহলকে।