শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর, ২০২২

সেনায় ভুয়ো নিয়োগপত্র নিয়ে ৪ মাস চাকরি! ১৬ লক্ষ টাকা খুইয়ে পুলিশের দ্বারস্থ যুবক

আত্রেয়ী সেন

প্রকাশিত: নভেম্বর ২৩, ২০২২, ১০:৫৬ পিএম | আপডেট: নভেম্বর ২৩, ২০২২, ১১:১৩ পিএম

সেনায় ভুয়ো নিয়োগপত্র নিয়ে ৪ মাস চাকরি! ১৬ লক্ষ টাকা খুইয়ে পুলিশের দ্বারস্থ যুবক
সেনায় ভুয়ো নিয়োগপত্র নিয়ে ৪ মাস চাকরি! ১৬ লক্ষ টাকা খুইয়ে পুলিশের দ্বারস্থ যুবক

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ সেনায় চাকরি দেওয়ার নাম করে প্রতারণা শিকার এর আগেও অনেকেই হয়েছেন। কাজেই এই অভিযোগ নতুন কোনও ঘটনা নয়। এবার উত্তরপ্রদেশে সামনে এল সেনায় ভুয়ো নিয়োগের অভিযোগ। সেনাবাহিনীতে ৪ মাস ‘চাকরি’ করার পর, এক যুবক জানতে পারলেন যে, তাঁকে আদতে সেনায় নিয়োগ করাই হয়নি। এই ঘটনার কথা জানিয়ে পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করেছেন মনোজ কুমার নামে ওই প্রতারিত যুবক। এদিকে, অভিযোগ পাওয়ার পর রাহুল সিং নামে এক প্রাক্তন সেনা কর্মীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

উত্তরপ্রদেশের গাজিয়াবাদের বাসিন্দা মনোজ কুমারের অভিযোগ, চলতি বছরের জুলাই মাসের শুরুর দিকে রাহুলকে ১৬ লক্ষ টাকা দিয়ে তাঁর মাধ্যমেই সেনার নিয়োগপত্র পেয়েছিলেন তিনি। এরপর টেরিটোরিয়াল আর্মির ১০৮ নম্বর পদাতিক ব্যাটেলিয়নে প্রশিক্ষণরত জওয়ান হিসেবে পাঠানকোটের সেনাছাউনিতে কাজ করেছেন চার মাস। এর জন্য বেতন হিসেবে প্রতি মাসে ১২,৫০০ টাকা করে পেয়েওছেন তিনি। এর সঙ্গে পেয়েছেন সেনার উর্দি এবং পরিচয়পত্রও।

কিন্তু এরপরই আসল সত্যি সামনে আসে। পাঠানকোটে টেরিটোরিয়াল আর্মির ২৭২ নম্বর ট্রানজিট ক্যাম্পে কাজ করার সময় মনোজ আচমকাই জানতে পারেন, তিনি আদতে বাহিনীর সদস্যই নন! তাঁকে সেনাছাউনির অস্থায়ী কর্মী হিসাবে এই চারমাস কাজ করানো হয়েছে। এর পরেই বিষয়টি নিয়ে পুলিশের দ্বারস্থ হন মনোজ কুমার। এরপর মনোজ কুমারের অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করে সেনা গোয়েন্দা বিভাগের সাহায্যে গ্রেফতার করা হয় রাহুল সিংকে।

এরপর তাঁকে জিজ্ঞসাবাদ করে বিট্টু সিং নামের আরও এক অভিযুক্তের সন্ধান পায় এবং তাঁকেও গ্রেফতার করা হয়। তবে, এই ভুয়ো নিয়োগ চক্রের পাণ্ডা বা মূল অভিযুক্ত রাজা সিং-এর কোনও হদিশ মেলেনি, এখনও সে নিখোঁজ বলেই জানিয়েছেন পুলিশ। জানা গিয়েছে, উত্তরপ্রদেশেরই বাসিন্দা অভিযুক্ত রাহুল সিং, বয়স ২৫ বছর। পুলিশ জানিয়েছে, ২০১৯ সালে সেনায় যোগদান করলেও, স্বাস্থ্যের কারণে অবসর নিতে পাধ্য হন রাহুল সিং। এরপরই সম্ভবত তিনি জড়িয়ে পড়েছিলেন সেনায় নিয়োগ সংক্রান্ত দুর্নীতি চক্রের সঙ্গে। অনেকেই মনে করছেন, এই ঘটনায় সেনায় নিয়োগের প্রক্রিয়ায় নজরদারির অভাব প্রকাশ হয়ে পড়ল। এদিকে, মনোজ কুমার জানিয়েছেন, টাকা দিয়ে ‘নিয়োগপত্র’ পেলেও সেনাশিবিরে নিয়ম মেনেই লিখিত ও শারীরিক সক্ষমতার পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছিলেন তিনি।