বৃহস্পতিবার, ২৬ মে, ২০২২

ফের ঊর্ধ্বমুখী দেশের কোভিড গ্রাফ! গত ২৪ ঘন্টায় সামান্য বাড়ল সংক্রমণ ও মৃতের সংখ্যা

চৈত্রী আদক

প্রকাশিত: মে ১৪, ২০২২, ১১:৪০ এএম | আপডেট: মে ১৪, ২০২২, ১১:৪৪ এএম

ফের ঊর্ধ্বমুখী দেশের কোভিড গ্রাফ! গত ২৪ ঘন্টায় সামান্য বাড়ল সংক্রমণ ও মৃতের সংখ্যা
ফের ঊর্ধ্বমুখী দেশের কোভিড গ্রাফ! গত ২৪ ঘন্টায় সামান্য বাড়ল সংক্রমণ ও মৃতের সংখ্যা / প্রতীকী ছবি

বংনিউজ২৪×৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ একেই চতুর্থ ঢেউয়ের আতঙ্ক পিছু ছাড়ছে না। এরই মধ্যে দেশে দৈনিক সংক্রমণ সামান্য বাড়ল। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের পরিসংখ্যান অনুযায়ী গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ২ হাজার ৮৫৮ জন। মৃত্যু হয়েছে ১১ জনের। শুক্রবার সংক্রমিত হয়েছিলেন ২ হাজার ৮৪১ জন আর মৃত ১০ জন। সুতরাং শুক্রবারের তুলনায় শনিবার সংক্রমণ ও মৃতের সংখ্যা সামান্য বেড়েছে।

বর্তমানে দেশে অ্যাক্টিভ রোগীর সংখ্যা ১৮ হাজার ৯৬। দৈনিক পজিটিভিটি রেট ০.৫৯ শতাংশ। সংক্রমণ কিছুটা বাড়লেও সুস্থতার হারও উল্লেখযোগ্যভাবে বেড়েছে। একদিনে সুস্থ হয়েছেন ৩ হাজার ৩৫৫ জন। সুস্থতার হার ৯৮.৭৪ শতাংশ। গোটা দেশজুড়ে মোট করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৪ কোটি ৩১ লাখ ১৯ হাজার ১১২। মোট মৃত্যু হয়েছে ৫ লাখ ২৪ হাজার ২০১ জনের। করোনাকে হারিয়ে সব মিলিয়ে সুস্থ হয়েছেন ৪ কোটি ২৫ লাখ ৭৬ হাজার ৮১৫।

সব রাজ্যের মধ্যে রাজধানীতেই দৈনিক সংক্রমণের হার সবথেকে বেশি, যা প্রশাসনের চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। ২ হাজার ৮৫৮ জনের মধ্যে ৮৯৯ জন আক্রান্তই দিল্লির। রাজধানীর পাশাপাশি কেরালা, মহারাষ্ট্র, হরিয়ানা ও উত্তরপ্রদেশ এই চারটি রাজ্যেও সংক্রমণ চিন্তা বাড়াচ্ছে। গত ২৪ ঘন্টায় হরিয়ানায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৪৩৯ জন। মহারাষ্ট্রে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা ২৬৩। কেরালায় আক্রান্ত হয়েছেন ৪১৮ জন। অন্যদিকে উত্তরপ্রদেশে নতুন করে সংক্রমিত হয়েছেন ১৭৫ জন। এই পাঁচ রাজ্য মিলিয়ে সংক্রমণের হার ৭৬.৮ শতাংশ যার মধ্যে রাজধানীতেই সংক্রমণের হার ৩১.৪৬ শতাংশ।

পশ্চিমবঙ্গ সংক্রমণে অনেকটাই লাগাম টানতে সক্ষম হয়েছে। রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে খবর, গত ২৪ ঘন্টায় বাংলায় নতুন করে সংক্রমিত হয়েছেন ৫০ জন। মৃতের সংখ্যা শূন্য। অন্যদিকে সুস্থ হয়েছেন ৪১ জন। রাজ্যে সুস্থতার হার ৯৮.৯৩ শতাংশ। পশ্চিমবঙ্গে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২০ লাখ ১৮ হাজার ৭৬৩। মোট সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৯৭ হাজার ১৫৩ জন।

দেশের চতুর্থ ঢেউ আছড়ে পড়া নিয়ে জল্পনার শেষ নেই। তবে এই প্রসঙ্গে খানিকটা স্বস্তির বার্তা দিলেন আইআইটি কানপুর (IIT Kanpur)-এর অধ্যাপক মনিন্দর আগরওয়াল। তাঁর একটি গবেষণাপত্রে এটি স্পষ্ট যে দেশে চতুর্থ ঢেউ আছে পড়ার আপাতত কোনও সম্ভাবনা নেই। কারণ দেশজুড়ে ব্যাপক টিকাকরণের ফলে ইতিমধ্যেই ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করার ক্ষমতা মানুষের মধ্যে তৈরি হয়ে গিয়েছে। তাছাড়াও জিনোম সিকোয়েন্সের মিউটেশনও সেভাবে হয়নি। ফলে দেশে কোভিডের চতুর্থ ঢেউ আছড়ে পড়বে না বললেই চলে।