সোমবার, ১৫ আগস্ট, ২০২২

ওয়ারেন্ট ছাড়া বিরোধী দলনেতার অফিসে কীভাবে তল্লাশি! হাইকোর্টে মামলা শুভেন্দুর

আত্রেয়ী সেন

প্রকাশিত: মে ১৭, ২০২২, ০১:৪০ পিএম | আপডেট: মে ১৭, ২০২২, ০১:৫৩ পিএম

ওয়ারেন্ট ছাড়া বিরোধী দলনেতার অফিসে কীভাবে তল্লাশি! হাইকোর্টে মামলা শুভেন্দুর
ওয়ারেন্ট ছাড়া বিরোধী দলনেতার অফিসে কীভাবে তল্লাশি! হাইকোর্টে মামলা শুভেন্দুর

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ রাজ্যপাল ধনখড়ের পর এবার কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হলেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। সোমবার আচমকাই নন্দীগ্রামে শুভেন্দু অধিকারীর অফিসে তল্লাশি চালায় নন্দীগ্রাম থানায় এক বিশাল পুলিশবাহিনী। এনিয়ে আগেই রাজ্যপালের কাছে নালিশ জানিয়েছিলেন শুভেন্দু। এবার তিনি বিষয়টিকে কোর্টের নজরে আনলেন। 

রাজ্যের বিরোধী দলনেতা প্রশ্ন তুলেছেন যে, ওয়ারেন্ট ছাড়া কীভাবে একজন বিরোধী দলের বিধায়কের কার্যালয়ে এবং বাড়িতে ঢুকে তল্লাশি চালাতে পারে রাজ্য সরকারের পুলিশ। তিনি জানিয়েছেন, ওই বাড়িটি শুধুমাত্র তাঁর কার্যালয়ই নয়, তাঁর বাড়িও। 

এই অভিযোগ তুলে, তিনি রাজ্য সরকারের পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা করার অনুমতি চাইলেন কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি রাজশেখর মান্থারের বেঞ্চে। জানা গিয়েছে, মামলা দায়েরর অনুমতিও দিয়েছেন বিচারপতি। আগামী বৃহস্পতিবার এই মামলার শুনানি রয়েছে বলেই খবর। 

ঠিক কী হয়েছিল সেদিন? নন্দীগ্রামের বিধায়ক শুভেন্দু অধিকারী ঘনিষ্ঠ বলেই পরিচিত নেতা মেঘনাথ পাল। সূত্রের খবর, তাঁর স্ত্রী মহুয়া পাল ভুয়ো সার্টিফিকেট দিয়ে নাকি ব্যাঙ্ক ম্যানেজারের পদে নিয়োগ পেয়েছেন। এমনই এক অভিযোগের ভিত্তিতে তমলুক কো-অপারেটিভ এগ্রিকালচার এন্ড রুরাল ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক তাঁর বিরুদ্ধে এফআইআর করে। 

সেই অভিযোগের ভিত্তিতে তমলুকের এসডিপিও-র নেতৃত্বে এক বিশাল পুলিশ বাহিনী সোমবার নন্দীগ্রামে মহুয়া পালের বাড়িতে যায়। কিন্তু মহুয়া পালকে তাঁর বাড়িতে না পেয়ে, নন্দীগ্রামে শুভেন্দুর কার্যালয়ে পুলিশ আসে। অপর পক্ষের অভিযোগ, কোনও আগাম খবর না দিয়েই শুভেন্দুর কার্যালয়ে ঢুকে পড়ে এসডিপিও-র নেতৃত্বে পুলিশ বাহিনী। সঙ্গে সঙ্গে এর প্রতিবাদ করেন কার্যালয়ের দায়িত্বে থাকা আধিকারিক। এদিকে, এই ঘটনা প্রসঙ্গে পুলিশের পক্ষ থেকে দাবি করা হচ্ছে, ওটা যে শুভেন্দু অধিকারীর কার্যালয়, সেকথা তাঁরা জানতেন না। যদি একথা তাঁরা জানতেন তাহলে অবশ্যই ঢুকতেন না। 

এরপরই এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাজ্য সরকারের পুলিশের বিরুদ্ধে সরব হন শুভেন্দু অধিকারী। এই বিষয়ে তিনি প্রথমেই রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের কাছে অভিযোগ জানান। এই ঘটনাকে তিনি ষড়যন্ত্র বলেও অভিযোগ করেন। এদিকে, সোমবার রাতেই এই ঘটনা প্রসঙ্গে টুইটে একটি ভিডিও পোস্ট করেন রাজ্যপাল। 

সেই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, কয়েকজন মহিলা পুলিশ কর্মী নিয়ে এক অফিসার কার্যালয়ে গিয়েছেন। ভিডিওতে একজনকে ভিডিওগ্রাফি করতেও দেখা গিয়েছে। ওই টুইটেই রাজ্যপাল জানিয়েছেন, শুভেন্দু অধিকারী তাঁকে পুলিশি হামলার অভিযোগ জানিয়েছেন। সেই ঘটনায় মুখ্যসচিবের কাছে ইতিমধ্যেই রিপোর্ট তলব করেছেন রাজ্যপাল। আর এবার সরাসরি এই বিষয়টিকে কেন্দ্র করে মামলা ঠুকলেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা।