প্রচার শেষে গুলিবিদ্ধ মালদার বিজেপি প্রার্থী! গলায় হতে পারে অস্ত্রপ্রচার

প্রচার শেষে গুলিবিদ্ধ মালদার বিজেপি প্রার্থী! গলায় হতে পারে অস্ত্রপ্রচার
প্রচার শেষে গুলিবিদ্ধ মালদার বিজেপি প্রার্থী! গলায় হতে পারে অস্ত্রপ্রচার

ভোটের রাজনৈতিক হিংসা অব্যাহত। রবিবার প্রচারে বেরিয়ে গুলিবিদ্ধ হলেন মালদার বিজেপির প্রার্থী গোপাল চন্দ্র সাহা। এরপরে তড়িঘড়ি তাকে মালদহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। হাসপাতাল সূত্রে খবর, আপাতত স্থিতিশীল রয়েছেন গোপাল বাবু।

স্থানীয় সূত্রে খবর এ দিন রাত সাড়ে আটটা নাগাদ পুরাতন মালদা সাহাপুর এর বাজারে প্রচারে বেরিয়েছিলেন গোপাল চন্দ্র সাহা। সে সময় আচমকাই তাকে লক্ষ্য করে চালানো হয় গুলি। এরপরে গলায় গুলি লেগে কিছু বুঝে ওঠার আগেই লুটিয়ে পড়েন তিনি। তার কর্মীসমর্থকরা সঙ্গে সঙ্গেই তাকে মালদহ মেডিক্যাল কলেজে নিয়ে যায়। সেখানে চিকিৎসা চলছে তার। পরে তাকে অস্ত্রোপচার করা হতে পারে বলে হাসপাতাল সূত্রে খবর।

এদিকে বিজেপির অভিযোগ, প্রচার শেষ করার পর এই হামলা চালানো হয়। নির্দিষ্ট কোন দলের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেননি গোপাল বাবু। কিন্তু হামলার এত সময় পেরিয়ে গেলেও দুষ্কৃতীদের এখনো গ্রেফতার করা হয়নি কেন সে বিষয়ে প্রশ্ন তুলেছে বিজেপি। এই বিষয়ে প্রশাসনের গাফিলতির দিকেই আঙ্গুল তুলেছে তারা। ইতিমধ্যেই ঘটনাস্থলে মোতায়েন করা হয়েছে বিশাল পুলিশবাহিনী।

অন্যদিকে সূত্রের খবর, মালদা কেন্দ্রে গোপাল চন্দ্র সাহা কে প্রার্থী করা নিয়ে দলের মধ্যে অন্তর্দ্বন্দ্ব ছিল প্রথম থেকেই। এই নিয়ে দলীয় দপ্তরে ভাঙচুর করা হয়েছিল। গোপাল বাবুর পাড়ায় ভাবমূর্তি ঠিক নয় বলে অভিযোগ করেছিল দলীয় কর্মী সমর্থকরা। কিন্তু শেষ পর্যন্ত প্রার্থী হন তিনি। সেইমতো এই দিন প্রচারে বেরোন এই বিজেপি প্রার্থী। আর তখনই দুষ্কৃতীদের হাতে গুলিবিদ্ধ হন তিনি।

মালদা মহিলা মোর্চার সম্পাদক নারায়ণী বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “আমাদের প্রার্থীর গুলিবিদ্ধ হয়েছে শোনার সঙ্গে সঙ্গে এখানে এসে দেখি তার গলায় গুলি আটকে রয়েছে। রক্তাক্ত অবস্থায় পরে রয়েছেন তিনি।” তাঁর অভিযোগ, “আমরা ভীষণ আতঙ্কিত। একজন প্রার্থী নির্বাচনী কার্যালয়ে সামনে এভাবে গুলিবিদ্ধ হচ্ছেন, তাহলে আমাদের নিরাপত্তা কোথায়। পশ্চিমবঙ্গের গণতন্ত্র কোথায় গেছে?”